ঐক্যফ্রন্ট নতুন কর্মসূচি দিচ্ছে ৩ জানুয়ারি

প্রকাশ : ০১ জানুয়ারি ২০১৯, ০৯:০৮ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

ফাইল ছবি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাতিল ও নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচনের দাবিতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আগামী ৩ জানুয়ারি নতুন কর্মসূচি ঘোষণা দেবে।

এছাড়াও এ নির্বাচনে অংশ নেয়া প্রার্থীদের নিয়ে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) স্মারকলিপি দেবে সংগঠনটি।

সীমাহীন অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ এনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করার পাশাপাশি নিরপেক্ষ-নির্দলীয় সরকারের অধীনে পুনর্নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

একই সঙ্গে তারা পুনর্নির্বাচনের জন্য আইনি লড়াইয়ে যাওয়ারও ঘোষণা দিয়েছে। পুনর্নির্বাচনের দাবিতে আগামী ৩ জানুয়ারি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টসহ সব বিরোধী দলের প্রার্থীরা নির্বাচন কমিশনে স্মারকলিপি প্রদান করবেন এবং সেখান থেকেই তারা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করবেন। 

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের মতিঝিলের চেম্বারে সোমবার রাতে জোটের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। 

জানা গেছে, ৩ জানুয়ারি স্মারকলিপি দেওয়ার পর নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করবে ঐক্যফ্রন্ট।

বৈঠক থেকে ড. কামাল হোসেন একটি বিবৃতি দেন। এতে তিনি বলেন, ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের নামে যে প্রহসনমূলক নাটক মঞ্চস্থ হল, তা সমগ্র দেশবাসী প্রত্যক্ষ করেছেন এবং হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করেছেন। 

একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশের নির্বাচনী ব্যবস্থাকে কীভাবে ধ্বংস করা হয়েছে, তা এ দেশের মানুষসহ সমগ্র বিশ্ববাসীকে দেখিয়ে দিয়েছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এবং তাদের আজ্ঞাবহ প্রধান নির্বাচন কমিশনার। 

কথিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সরকারকে বিজয়ী দেখালেও প্রকারান্তরে হেরেছে বাংলাদেশ ও তার ১৭ কোটি মানুষ। এর মধ্য দিয়ে কবর রচিত হয়েছে আমাদের বহু আকাক্সিক্ষত গণতন্ত্রের। 

সার্বিক অবস্থা বিবেচনা করে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কথিত নির্বাচনের ফলাফল ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করে নির্দলীয় সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের দাবি জানিয়েছে।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু, জেএসডি সভাপতি আসম আবদুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু, জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।