নতুন দল করলেও জামায়াত নেতাদের রেহাই নেই: আইনমন্ত্রী
jugantor
নতুন দল করলেও জামায়াত নেতাদের রেহাই নেই: আইনমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৫:১৯:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

নতুন দল করলেও জামায়াত নেতাদের রেহাই নেই: আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ফাইল ছবি

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জামায়াত নেতারা যে নামেই নতুন দল করুক না কেন, মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকলে তাদের বিচার হবেই।

 

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিউইয়র্ক স্টেট গভর্নরের ২৫ সেপ্টেম্বরকে ‘বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ডে’-এর ঘোষণাপত্র হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

 

‘জামায়াতে ইসলামী যে রূপেই আসুন না কেন, তৎকালীন জামায়াতে ইসলামীর নেতা যারা ছিলেন, তারা যদি মানবতাবিরোধী অপরাধের মধ্যে সম্পৃক্ত থাকে, তবে আদালতে তাদের জবাবদিহি করতে হবে’-যোগ করেন আনিসুল হক।

 

আইনমন্ত্রী বলেন, জামায়াতে ইসলামীর কোনো নেতা নতুন দল গঠন করলে তা খতিয়ে দেখা হবে।

 

যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ নেই এমন কোনো জামায়াত নেতা যদি নতুন দল করতে চায়, তবে আইনগতভাবে কোনো বাধা থাকবে কিনা- এমন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী বলেন, সেটি যখন তিনি করতে যাবেন তখন আমরা খতিয়ে দেখব।

 

স্বাধীনতাকে অস্বীকার করা জামায়াত ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার অগ্রগতি কতটুকু- জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, যে মামলাটি আপিল বিভাগে পেন্ডিং আছে, সেটি জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করার জন্য। হাইকোর্ট ডিভিশন তাদের নিবন্ধন বাতিলের পক্ষে রায় দিয়েছেন। সেটির বিরুদ্ধে তারা আপিল করেছে তা এখন ঝুলন্ত অবস্থায় আছে। আপিলে যদি হাইকোর্ট ডিভিশনের রায় বহাল থাকে, তা হলে জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল হয়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে জামায়াত রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশে আর থাকতে পারবে না।

 

ফৌজদারি অপরাধে জামায়াত নেতাদের বিচার করা হবে জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা মানবতাবিরোধী যে অপরাধ করেছে, সেই অপরাধের বিচার চলছে এবং চলবে। আপনারা এটিও জানেন, ফৌজদারি অপরাধ কিন্তু তামাদি হয় না।

নতুন দল করলেও জামায়াত নেতাদের রেহাই নেই: আইনমন্ত্রী

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৩:১৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নতুন দল করলেও জামায়াত নেতাদের রেহাই নেই: আইনমন্ত্রী
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ফাইল ছবি

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, জামায়াত নেতারা যে নামেই নতুন দল করুক না কেন, মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকলে তাদের বিচার হবেই।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিউইয়র্ক স্টেট গভর্নরের ২৫ সেপ্টেম্বরকে ‘বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন ডে’-এর ঘোষণাপত্র হস্তান্তর অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

‘জামায়াতে ইসলামী যে রূপেই আসুন না কেন, তৎকালীন জামায়াতে ইসলামীর নেতা যারা ছিলেন, তারা যদি মানবতাবিরোধী অপরাধের মধ্যে সম্পৃক্ত থাকে, তবে আদালতে তাদের জবাবদিহি করতে হবে’-যোগ করেন আনিসুল হক।

আইনমন্ত্রী বলেন, জামায়াতে ইসলামীর কোনো নেতা নতুন দল গঠন করলে তা খতিয়ে দেখা হবে।

যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ নেই এমন কোনো জামায়াত নেতা যদি নতুন দল করতে চায়, তবে আইনগতভাবে কোনো বাধা থাকবে কিনা- এমন প্রশ্নে আইনমন্ত্রী বলেন, সেটি যখন তিনি করতে যাবেন তখন আমরা খতিয়ে দেখব।

স্বাধীনতাকে অস্বীকার করা জামায়াত ইসলামীকে নিষিদ্ধ করার অগ্রগতি কতটুকু- জানতে চাইলে আনিসুল হক বলেন, যে মামলাটি আপিল বিভাগে পেন্ডিং আছে, সেটি জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করার জন্য। হাইকোর্ট ডিভিশন তাদের নিবন্ধন বাতিলের পক্ষে রায় দিয়েছেন। সেটির বিরুদ্ধে তারা আপিল করেছে তা এখন ঝুলন্ত অবস্থায় আছে। আপিলে যদি হাইকোর্ট ডিভিশনের রায় বহাল থাকে, তা হলে জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল হয়ে যাবে। সে ক্ষেত্রে জামায়াত রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশে আর থাকতে পারবে না।

ফৌজদারি অপরাধে জামায়াত নেতাদের বিচার করা হবে জানিয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ১৯৭১ সালে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় তারা মানবতাবিরোধী যে অপরাধ করেছে, সেই অপরাধের বিচার চলছে এবং চলবে। আপনারা এটিও জানেন, ফৌজদারি অপরাধ কিন্তু তামাদি হয় না।

 
আরও খবর