এটা নিশ্চিত হত্যাকাণ্ড: মুহিত

প্রকাশ : ২৪ মার্চ ২০১৯, ২২:৩২ | অনলাইন সংস্করণ

  সিলেট ব্যুরো

সিলেটে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য দিচ্ছেন আবুল মাল আবদুল মুহিত। ছবি: যুগান্তর

সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ঘোরী মো. ওয়াসিম আব্বাস আদনানকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ‘হত্যা’র প্রতিবাদে রোববার উত্তাল ছিল সিলেট। ক্যাম্পাস-নগরীর রাজপথ ছিল প্রতিবাদমুখর।

সকালে ক্যাম্পাসে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন সিকৃবির ভিসি, রেজিস্ট্রার শিক্ষক ছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারিরা।

ক্যাম্পাসের এই কর্মসূচিতে যোগ দিয়ে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরাও। ফলে রোববার সিকৃবিতে কোন ক্লাস-পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। স্থগিত করা হয় পূর্বনির্ধারিত বিশ্ববিদ্যালয়ের নীতি নির্ধারনী একাডেমিক কাউন্সিলের সভাও।

অপরদিকে ক্যাম্পাসে সংগঠিত হওয়ার পর বিক্ষুদ্ধ শিক্ষার্থীরা মিছিল সহকারে নগরী অভিমুখে রওনা হন। তারা চৌহাট্টা পয়েন্টে এসে জড়ো হওয়ার পর চৌরাস্তার মোড় অবরুদ্ধ করে রাখে। এ সময় তারা ‘ঘোরী হত্যার বিচার চাই, নিরাপদ সড়ক চাই’ শ্লোগান দেন।

নগরীর প্রাণকেন্দ্র চৌহাট্টা পয়েন্ট অবরোধ করে রাখায় গোটা সিলেট নগরী যানজটে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। দুপুর দেড়টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধ চলে। অবরোধ পালনকালে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা স্থগিত, ক্লাস বর্জনসহ ৩ দিনের কর্মস‚চি ঘোষণা করে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়।

এদিকে কর্মসূচি চলাকালে অবরোধকারীদের কবলে পড়েন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। একপর্যায়ে তিনি আন্দোলনে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন।

আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, 'আমি শুনেছি- বাসের চালক ও হেলপারের সঙ্গে বাকবিতণ্ডার জের ধরে একটি ছাত্রকে বাস থেকে ফেলে দেয়া হয়। এতে ছাত্রটি মারা যায়। এটা নিশ্চিত একটা হত্যাকাণ্ড। পুলিশ এই ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের ইতিমধ্যে আটক করেছে। এই ঘটনায় সংশ্লিষ্ট সবাইকে কোর্টের সামনে উপস্থাপন করা হবে।'

তিনি বলেন, 'কোর্ট দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করবে। তাদের আইনের আওতায় এনে দ্রুততম সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ শাস্তি প্রদান করা হবে।'
মুহিত বলেন, 'কোর্টকে আমাদের কোনো নির্দেশ দেয়া উচিত নয়। এটা আপনারাও (শিক্ষার্থীরা) স্বীকার করবেন যে, কোর্টের কাজে আমাদের হস্তক্ষেপ করা উচিত না। কোর্টের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করা আমাদের কাজ নয়।'

অপরদিকে সিকৃবি ক্যাম্পাসে মানববন্ধন চলাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ঘোরী মো. ওয়াসিম আব্বাস আদনানের নিহতের ঘটনায় শোক প্রকাশ করেন শিক্ষকরা।

এ সময় শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ নূর হোসেন মিঞার সভাপতিত্বে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. জীতেন্দ্র নাথ অধীকারীর সঞ্চালনায় এতে বক্তব্য রাখেন সিকৃবির ভিসি প্রফেসর ড. মো. মতিয়ার রহমান হাওলাদার, ডিন কাউন্সিলের আহ্বায়ক প্রফেসর ড. মো. আবুল কাশেম, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মো. বদরুল ইসলাম শোয়েব, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা পরিচালক  প্রফেসর ড. সৈয়দ সায়েম উদ্দিন আহম্মদ, পোস্ট-গ্র্যাজুয়েট স্টাডিজ অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. নজরুল ইসলাম, অফিসার পরিষদের সভাপতি কৃষিবিদ মো. সাজিদুল ইসলাম, গণতান্ত্রিক শিক্ষক পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. মিটু চৌধুরী, সাদা দলের সভাপতি প্রফেসর ড. এম. রাশেদ হাসনাত, লেপস্  এর সভাপতি সরকার মো. ইব্রাহিম খলিল, সহকারী প্রফেসর মো. নাজমুল হোসাইন, কর্মচারি সমিতির সভাপতি শাহ্ আলম সুরুক প্রমুখ।

এদিকে চৌহাট্টা পয়েন্টে অবরোধ চলাকালে বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা বাসচালক ও হেলপারকে আইনের আওতায় এনে দ্রুততম সময়ের মধ্যে ফাঁসি কার্যকর, ঘাতক বাস ‘উদার পরিবহন’ বাসের রুট পারমিট ও লাইসেন্স বাতিলের দাবি জানান।

উল্লেখ্য, গত শনিবার সন্ধ্যার দিকে সিলেট- ঢাকা মহাসড়কের মৌলভীবাজার জেলার শেরপুরে সিকৃবি শিক্ষার্থী ঘোরী মো. ওয়াসিম আব্বাস আদনানকে উদার পরিবহনের বাসের (ঢাকা মেট্রো-ভ-১৪-১২৮০) হেলপার ধাক্কা মেরে গাড়ির নিচে ফেলে দেয়। এ সময় ওয়াসিমের ওপর দিয়ে বাস চালিয়ে পিষে দেয় চালক।