সরকারের হাতে টাকার কোনো অভাব নেই: পানিসম্পদমন্ত্রী

  সুনামগঞ্জ ও জামালগঞ্জ প্রতিনিধি ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ২০:০৩ | অনলাইন সংস্করণ

সুনামগঞ্জ

বর্ষাকালে হাওরে যে পানি আসে তা থেকে সৃষ্ট বন্যায় ফসল নষ্ট হয়। গত বছর বাঁধের কাজে পুকুরচুরি করায় বাঁধ ভেঙে গিয়ে হাওরের ফসল তলিয়ে যায়, ফলে ভোগান্তিতে পরে এ এলাকার কৃষককুল। আমি কাজটি মন্ত্রণালয়ে বসেও করতে পারতাম। এখানে এসে দেখে গেলাম যে সমস্যাটা কী, কেন ফসল নষ্ট হয়, পানি কোথা থেকে আসে। পানিসম্পদমন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এসব কথা বলেছেন।

শনিবার দুপুরে জামালগঞ্জ উপজেলার বেশ কয়েকটি হাওরের ফসল রক্ষাবাঁধ পরিদর্শন শেষে দুপুরে জামালগঞ্জ উপজেলা সম্মেলনকক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, গত বছর হাওরের ফসল বাঁধের কারণে তলিয়ে গেছে, আর যেন বাঁধ ভেঙে কৃষকের ফসল তলিয়ে না যায়। সবাই আল্লাহ তায়ালার কাছে প্রাণ খুলে দোয়া করেন। আমাদের সরকারের হাতে টাকার কোনো অভাব নেই। ভালো করে সঠিক সময়ে হাওরে বাঁধের কাজগুলো সম্পন্ন করার জন্যে তিনি সংশ্লিষ্টদের প্রতি নির্দেশ প্রদান করেন।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো.সাবিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড.জাফর আহমেদ খান, অতিরিক্ত সচিব মো. ইউসুফ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মো. মাহফুজুর রহমান, অতিরিক্ত মহাপরিচালক মো. আনোয়ার হোসেন, সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ এমরান হোসেন, জামালগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.শামীম আল ইমরান, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বক্কর সিদ্দিক ভুইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল করিম শামীম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম নবী হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান করুনাসিন্ধু তালুকদার, রজব আলী, অসিম তালুকদার, দুলাল মিয়া, সাজ্জাদ মাহমুদ সাজিব প্রমুখ । এর আগে মন্ত্রী হেলিকপ্টার লো-ফ্লাই করে সুনামগঞ্জ জেলার হাওর অঞ্চলের বেড়িবাঁধের চলমান কাজ পরিদর্শন করেন। মন্ত্রী ধর্মপাশা উপজেলার চন্দ্রসোনা থাল হাওর, ধনকুনিয়া, জয়ধুনা হাওর এবং জামালগঞ্জ উপজেলার পাগনার হাওর, হালির হাওর, আপার বৌলাই নদী খননের চলমান কাজ পরিদর্শন করেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter