কারাগারে খালেদা জিয়া

আজ রায়ের কপি পেলে জামিন আবেদন কাল

প্রকাশ : ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ১০:৪২ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক   

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রায়ের সার্টিফায়েড কপি পাওয়া যাবে আজ বুধবার। এর পর বৃহস্পতিবার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল ও খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন করা যাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন তার জিয়ার আইনজীবীরা।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, মঙ্গলবার আমরা রায়ের কপি পাইনি। আদালত থেকে বলা হয়েছে রায়ের কপি আজ সরবরাহ করা হবে।

বিশেষ জজ আদালত-৫ এই কপি সরবরাহ করবেন। এজন্য আমাদের আর আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে আসতে হবে না।

সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, আজ যদি রায়ের কপি পাই, তাহলে পরের দিন বৃহস্পতিবার আপিল করতে পারব। আপিল করার পর যদি খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কাস্টডি ওয়ারেন্ট (সিডব্লিউ) বা প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট (পিডব্লিউ) দেয়া হয় তখন আমরা আদালতে সেগুলো প্রত্যাহারের আবেদন করব।

তারা বলেন, আদালত সার্টিফায়েড কপি সরবরাহ করলেই বৃহস্পতিবার রায়ের বিরুদ্ধে আপিল ও খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন করা হবে।

দুর্নীতির মামলায় সাজপ্রাপ্ত হয়ে গত এক সপ্তাহ ধরে কারাভোগ করছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

চলতি মাসের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছর সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত। রায় ঘোষণার পর পরই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়েছে।

প্রথম শ্রেণির কারাবন্দি হিসেবে বর্তমানে তিনি সেখানেই অবস্থান করছেন।

এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে কারাফটকে সাংবাদিকদের খালেদা জিয়ার আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া বলেন,  কারা কর্তৃপক্ষ আমাদের জানিয়েছে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কাস্টডি ওয়ারেন্ট বা প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট কিছুই নেই। এমন কোনো ওয়ারেন্ট তাদের কাছে আসেনি।

আমরা ওকালতনামায় সই নেয়ার জন্য কারাগারে এসেছিলাম। তবে কাস্টডি ওয়ারেন্ট কারাগারে না আসায় সেটি জেল সুপারের কাছে রেখে এসেছি।

খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে মঙ্গলবার বেলা ১২টায় পুরান ঢাকার কারাগারের সামনে আসেন সানাউল্লাহ মিয়াসহ চার আইনজীবী। পরে সেখান থেকে তারা যান কারা অধিদফতরে। ওই সময় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, কিছু কাগজপত্রে ম্যাডামের সই লাগবে। এ কাজেই এসেছি। খালেদা জিয়ার সইয়ের জন্য সেগুলো কারা কর্তৃপক্ষকে দেয়া হয়েছে। কারা কর্তৃপক্ষ এগুলো গ্রহণ করেছে। তারা বলেছে, এগুলোতে স্বাক্ষর নিয়ে পরে আমাদের ফেরত দেবেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সানাউল্লাহ মিয়া বলেন, খালেদা জিয়াকে অন্য মামলায় গ্রেফতার দেখানোর যে খবর বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে এসেছে তা সঠিক নয়। আমরা কারা কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করে জানতে চেয়েছি, বিভিন্ন গণমাধ্যমে যে খবর এসেছে তা আসলে ঠিক কিনা।

তারা আমাদের জানিয়েছে, তার বিরুদ্ধে সে রকম কোনো অর্ডার আসেনি। সামনে গ্যাটকো, বড়পুকুরিয়াসহ তিনটি মামলায় খালেদা জিয়ার হাজিরার তারিখ রয়েছে। তবে এই মামলাগুলোতে খালেদা জিয়াকে নিজে উপস্থিত থাকতে হবে না। আইনজীবীর মাধ্যমেই তিনি হাজিরা দিতে পারেন বলে সানাউল্লাহ মিয়া জানান।

এর আগে গত সোমবার ৬৩২ পৃষ্ঠার রায়ের সার্টিফায়েড কপি পেতে খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে তিন হাজার পৃষ্ঠার কোর্টফলিও দাখিল করা হয়। ঢাকার পাঁচ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের অনুলিপি শাখায় খালেদা জিয়ার পক্ষে তার আইনজীবীরা এ কোর্টফলিও দাখিল করেন। ওই কোর্টফলিওতে রায়ের অনুলিপি সরবরাহ করা হবে।

এরও আগে রোববার জেলকোড অনুসারে খালেদা জিয়াকে ডিভিশন দিতে কারা কর্তৃপক্ষকে আদেশ দেন আদালত। এর পরই খালেদা জিয়াকে ডিভিশন সুবিধা দেয়া হয়। একই দিন কাজের মেয়ে ফাতেমা রাখার আবেদনও করা কর্তৃপক্ষের কাছে দেয়া হয়।

এ ছাড়া ওই দিন দুদকের পক্ষ থেকে রায়ের সার্টিফায়েড কপির জন্যও আবেদন করা হয়। রায়ে খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধির মতো কোনো উপাদান থাকলে দুদক তার সাজা বৃদ্ধির জন্য আবেদন করবে বলে জানায় দুদক প্রসিকিউশন।