বাজেট অধিবেশনে খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে কথা বলবে বিএনপি

  সংসদ রিপোর্টার ১০ জুন ২০১৯, ১৮:৩৭ | অনলাইন সংস্করণ

সংসদ অধিবেশন
সংসদ অধিবেশন। ফাইল ছবি

দীর্ঘ পাঁচ বছর পর সংসদে যোগ দিয়ে বাজেট অধিবেশনেই বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ কয়েকটি ইস্যুতে আলোচনার প্রস্তুতি নিচ্ছে দলটির সদস্যরা।

মঙ্গলবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিকাল ৫টায় অধিবেশনের কার্যক্রম শুরু হবে। এই অধিবেশনে বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ২০১৯-২০২০ অর্থ-বছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করবেন।

জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে সরব থাকবে প্রধান বিরোধীদল জাতীয় পার্টিও। আগের সংসদের মতো এবারও বাজেট নিয়ে প্রাণবন্ত আলোচনা করতে চান প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যরা।

তাদের সঙ্গে বিরোধীদলে যোগ হয়েছেন বিএনপির ছয়জন এবং গণফোরামের দুইজন সংসদ সদস্য।

বিএনপি সদস্যরা প্রস্তাবিত বাজেট ছাড়াও দলীয় চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয় সংসদ অধিবেশনে আলোচনার দাবি জানাবে।

এছাড়াও তারা বিএনপিসহ সকল বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার, শেয়ার বাজার কেলেংকারি, অর্থ পাচার, বিনাবিচারে হত্যা, মাদক সমস্যা, দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, ব্যাংক লুটসহ একাধিক জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে সাধারণ আলোচনার জন্য ইতিমধ্যে সংসদ সচিবালয়ে প্রস্তাব জমা দিয়েছে।

জানতে চাইলে এ প্রসঙ্গে বিএনপির সংসদীয় দলের নেতা চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. হারুনুর রশীদ যুগান্তরকে বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এখন সময়ের দাবি। তাকে রাজনৈতিক কারণে বন্দি করে রাখা হয়েছে। এজন্য আমি একটি প্রস্তাব জমা দিয়েছি। এছাড়া আরও কয়েকটি প্রস্তাব সংসদের সংশ্লিষ্ট শাখায় জমা দেয়া হয়েছে। আশা করি এসব বিষয়ে আলোচনার জন্য স্পিকার আমাদের সুযোগ দেবেন’।

বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙ্গা যুগান্তরকে বলেন, ‘আমরা অতীতের মতো এবারও জনগুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে সংসদে আলোচনা করব। সরকারের ভালো কাজের যেমন প্রশংসা করব, তেমনি খারাপ কাজেরও সমালোচনা করব’।

এ প্রসঙ্গে ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি মিয়া বলেন, ‘বিএনপি-জাতীয় পার্টিসহ যারাই সংসদে কথা বলতে চায় তাদের সুযোগ দেয়া হবে। তবে কার্যপ্রণালী বিধি মেনেই সবাইকে কথা বলতে হবে। এর বাইরে কাউকে সুযোগ দেয়া হবে না’।

তিনি আরও বলেন, ‘কেউ রাজনৈতিক শিষ্টাচারের বাইরে কথা বলতে চাইলে সেই সুযোগ তাকে দেয়া হবে না’।

জানা গেছে, সাধারণত জুনের প্রথম সপ্তাহে বাজেট অধিবেশন শুরু হলেও ঈদের ছুটির কারণে এবার একটু দেরিতে শুরু হচ্ছে। তাই এবার প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে আলোচনার জন্য ছুটির দিনেও অধিবেশন বসতে পারে।

অধিবেশনকে সামনে রেখে সংসদ গ্যালারির সাউন্ড সিস্টেম ঠিক করা হয়েছে। আর অধিবেশন কক্ষের কার্পেট পরিবর্তন করা হয়েছে। চেয়ারগুলো মেরামত করে নতুন করে সাজানো হয়েছে। সংসদের ভিতরে বাইরে ধুয়ে মুছে পরিস্কার করা হয়েছে। আগের মতো এবারও সংসদের অধিবেশন কক্ষে ডিজিটাল পদ্ধতিতে বাজেট প্রস্তাবনা উত্থাপন করা হবে।

এদিন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধান বিচারপতি, বিচারপতি, প্রধান নির্বাচন কমিশনার, তিন বাহিনীর প্রধান, কূটনীতিকসহ দেশী-বিদেশি সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। এজন্য সংসদে প্রবেশের ক্ষেত্রে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে।

সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, চলতি অধিবেশনে বাজেট ছাড়াও অর্থ বিলসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিল পাসের সম্ভাবনা রয়েছে।

এর আগে একাদশ সংসদের দ্বিতীয় অধিবেশন গত ৩০ এপ্রিল শেষ হয়। ওই অধিবেশন ২৪ এপ্রিল শুরু হয়ে ৫ কার্য দিবস চলেছিল। যে অধিবেশনে তিনটি সরকারি বিল পাস হয় ও একটি বিল উত্থাপন করা হয়।

এছাড়া ওই অধিবেশনে সংসদ কার্যপ্রণালী বিধির ১৪৭ (১) বিধিতে সাধারণ আলোচনা শেষে সন্ত্রাস ও যৌন নিপীড়নের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ার প্রস্তাব সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। নির্বাচনের তিন মাস পর শপথ গ্রহণ করে বিএনপির পাঁচজন সংসদ সদস্য ওই অধিবেশনে যোগ দেন।

ঘটনাপ্রবাহ : কারাগারে খালেদা জিয়া

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×