প্রস্তাবিত বাজেটকে দুর্নীতির বার্ষিক বরাদ্দপত্র বললেন চরমোনাই পীর

প্রকাশ : ১৪ জুন ২০১৯, ১২:৫৪ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম। ফাইল ছবি

২০১৯-২০ অর্থবছরের ঘোষিত বাজেটকে দুর্নীতির বার্ষিক বরাদ্দপত্র বলে মন্তব্য করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির ও চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ রেজাউল করীম। 

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ঘোষিত বাজেটের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে চরমোনাই পীর এ মন্তব্য করেন।

বিশাল অঙ্কের বাজেট দিয়ে অর্থমন্ত্রী গৌরববোধ করলেও সাধারণ জনগণ এর কতভাগ সুফল পাবেন, তা নিয়ে জনমনে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে তিনি বলেন, প্রতিবারের মতো এবারের বাজেট প্রস্তাবনাও কথার ফুলঝুরি ও মিথ্যা আশ্বাসে ভরা লোক দেখানো মনতুষ্টির নিষ্ফল প্রয়াস।

বিগত সরকারগুলোর ধারাবাহিকতায় এবারের বাজেটেও সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের লুটপাটের সুবিধার দিকে লক্ষ্য রেখে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।

ঘোষিত বাজেটকে জনগণের ট্যাক্সের টাকায় দেশি-বিদেশি লুটপাটকারীদের পকেট ভারী করার বাজেট আখ্যায়িত করে চরমোনাই পীর বলেন, এবারের বাজেটে পরোক্ষ করের পরিমাণ ও মাত্রা বাড়িয়ে এবং বাজেট ঘাটতি মেটানোর জন্য ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাঁধে বিশাল ঋণের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হয়েছে। বাজেটের বিশাল অংশ সরকারদলীয় এমপি ও নেতাকর্মীদের পকেটে যাবে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেন চরমোনাই পীর।

এ বাজেটে গণমানুষের প্রত্যাশা পূরণ হয়নি মন্তব্য করে মুফতি রেজাউল করীম বলেন, ধনী ও সুবিধাভোগী শ্রেণির কথা চিন্তা করেই এই বাজেট প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে সাধারণ মানুষের কোনও উপকার হবে না। প্রস্তাবিত বাজেটের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের ওপর নতুনভাবে ঋণ ও করের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। নতুন অর্থবছরের প্রস্তাবিত এই বাজেটের কারণে অর্থনীতি পুরোপুরি ঋণনির্ভর হয়ে পড়বে।