মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের চাকরির ব্যবস্থা করে দিয়েছেন এরশাদ

  বেরোবি প্রতিনিধি ১৪ জুলাই ২০১৯, ২৩:৩৬ | অনলাইন সংস্করণ

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা কোরআন শরীফ পড়েন
হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীরা কোরআন শরীফ পড়েন

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান, সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের রুহের মাগফিরাত কামনায় ৩০ পারা কোরআন শরীফ খতম করেছেন মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা।

রোববার রংপুরের দর্শনামোড়ে অবস্থিত 'পল্লীনিবাস' ভবনের নিচে এরশাদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে ২৫ জন মাদ্রাসা শিক্ষার্থী কোরআন শরীফ পড়েন।

বাদ যোহর থেকে শুরু হওয়া কোরআন শরীফ খতমের পরিচালনায় ছিলেন রংপুরের ৩১ নম্বর ওয়ার্ডে অবস্থিত বায়তুল হিকমা নুরানি তালিমুল কোরআন কওমি মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ মো. শাহিন আলম।

পরিচালনার বিষয়ে বায়তুল হিকমা নুরানি তালিমুল কোরআন কওমি মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ মো. শাহিন আলম যুগান্তরকে বলেন, পল্লীবন্ধু এরশাদের রুহের মাগফিরাত কামনায় জোহর নামাজের পর আমার মাদ্রাসার ২৫ জন শিক্ষার্থীকে নিয়ে কোরআন শরীফ খতম দেয়। বাদআসর পল্লীবন্ধুর শান্তি কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের বিষয়ে যুগান্তরকে বলেন, আমি দীর্ঘ আট বছর ধরে এই মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করছি। প্রতি বছর আমাদের মাদ্রাসার জন্য তিনি ব্যক্তিগতভাবে বড় অঙ্কের বাজেট বরাদ্দ রাখতেন। তিনি এই অঞ্চলের সব মাদ্রাসা মসজিদে আর্থিক সহায়তাসহ এসব মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের চাকরির ব্যবস্থা করে দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, এরশাদের আমলেই মসজিদে বিদ্যুৎ বিল মওকুফের ব্যবস্থা করা হয়। এরশাদ সাহেব মাদ্রাসা শিক্ষাকে কখনোই ছোট করে দেখতেন না। সবসময় তিনি মাদ্রাসা শিক্ষার মানোন্নয়নসহ অন্যান্য সুবিধার জন্য কাজ করে গেছেন।

ঘটনাপ্রবাহ : পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×