মওদুদের কঠোর সমালোচনায় কৃষিমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৮ আগস্ট ২০১৯, ২২:২১ | অনলাইন সংস্করণ

মওদুদের কঠোর সমালোচনায় কৃষিমন্ত্রী
বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ ও কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক। ফাইল ছবি

বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদসহ তার সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের এ যুগের ‘শয়তান’ হিসেবে উল্লেখ করেছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আবদুর রাজ্জাক। তিনি বলেছেন, তাদের জন্যই দেশটা পিছিয়ে গেছে।

রোববার কৃষি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সঙ্গে ঈদ-পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময়কালে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, মওদুদ আহমদ যখন আইনমন্ত্রী ছিলেন। তখন বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করেননি। পরে আইন করে বিচার বন্ধ করেছিল। সে আইন বাতিল করা হয়েছে, তারপরও এই হত্যাকাণ্ডের বিচার হয়নি। তারা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ছিল, বঙ্গবন্ধুর আলোতে আলোকিত ছিল। জাতীয় পার্টি করেছে, যখন এরশাদ এসেছে। পরে এরশাদ চলে যাওয়ার পরে গণতন্ত্রের লেবাস পড়ে বিএনপিতে চলে গিয়েছিল। মওদুদরা হলেন এদেশের `ইভিল জিনিয়াস’শয়তান। এই শয়তানদের জন্য দেশটা পিছিয়ে গেছে। যে আদর্শে দেশ স্বাধীন হয়েছিল, সেটি অব্যাহত থাকলে দেশ এগিয়ে যেত, সে জন্য আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় থাকতে হবে, তা নয়। সব মানুষের জন্য ন্যায়ভিত্তিক সমাজ গড়ে তুলতে হবে।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. রাজ্জাক বলেন, `বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ড ছিল আন্তর্জাতিক চক্রান্ত, যার পেছনে ছিল পাকিস্তান ও তাদের এ দেশের দোসরেরা। ইতিহাসের সবকিছু জানা যায় না, তবে কিছু জানা যায়। জানা যাওয়ার মধ্যে অন্যতম একটি হল জিয়াউর রহমান সরাসরি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি অনেককে উসকে দিয়ে এ হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করেন। খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধুর বিচার নিয়ে অনেক টালবাহানা করেছেন। প্রেক্ষাপট সব সময় এক থাকে না। ২০০৯ সালে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠন করে বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার শুরু হয়। এখন শুধু বাকি পলাতকদের বিভিন্ন দেশ থেকে এনে বিচার কার্য সম্পন্ন করা।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ফিলিপিনে চালের দাম বেশি ছিল। তারা চাল আমদানি করেছে প্রায় ১৪ লাখ টন। ফলে সেখানে চালের দাম কমে গেছে। এখন সে দেশের সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চাল রফতানি করবে। আমরা চাল রফতানি করলে কঠিন অবস্থার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। সে জন্য সেদিকে নজর রাখতে হবে। পানির কারণে যে সব জায়গায় ধান চাষ করা যাবে না, সে সব জায়গায় রবি শস্য আবাদ করা হবে। কৃষকদের বিনামূল্যে বীজ, সারসহ অন্যান্য কৃষি উপকরণ দেয়া হবে। পানি নামার সঙ্গে সঙ্গে যাতে করে কৃষক চাষাবাদ করতে পারেন, সে জন্য সব জেলায় ইতিমধ্যে মাসকালাই বীজ প্রেরণ করা হয়েছে চাষের জন্য।

সভাপতির বক্তব্যে কৃষি সচিব নাসিরুজ্জামান বলেন, এবারের বন্যায় ১০০ কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়নি। ক্ষতি যা হয়েছে বীজতলা, কিছু পাট ও সবজির। বন্যার ক্ষয়ক্ষতি আমরা সহজে পুষিয়ে নিতে পারব।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×