রংপুর উপনির্বাচন: মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত আ’লীগ প্রার্থীর
jugantor
রংপুর উপনির্বাচন: মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত আ’লীগ প্রার্থীর

  যুগান্তর রিপোর্ট  

১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৬:১২:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

রেজাউল করিম রাজু।

রংপুর সদর আসনের উপনির্বাচনে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রেজাউল করিম রাজু।

জানা গেছে, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে সোমবার বিকালে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসে গেছেন রেজাউল করিম।

তবে এ রিপোর্ট লেখার সময় বিকাল ৪টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পর তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেবেন বলে জানা গেছে।

রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মণ্ডল গণমাধ্যমকে বলেন, গত ৭ সেপ্টেম্বর গণভবনে রংপুর উপনির্বাচনের মনোনয়ন বাছাই বোর্ডের সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় প্রার্থী দিয়েছিলেন রেজাউল করিম রাজুকে।

তবে সেদিন প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বৃহৎ দল হিসেবে আমাদের প্রার্থী দিতে হয়, তাই দিলাম। আবার যেহেতু জাতীয় পার্টি (জাপা) আমাদের মহাজোটের অংশ, তাই এই প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেয়া হবে। আমরা জোটগত নির্বাচন করব।

জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত গত ১৪ জুলাই রংপুর-৩ আসনের এমপি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর ১৬ জুলাই আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

গত ১ সেপ্টেম্বর আসনটিতে নির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণা করা হয়। আজ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন।তফসিল অনুযায়ী আগামী ৫ অক্টোবর ভোটগ্রহণ হবে ইভিএম পদ্ধতিতে।

রংপুর সদর উপজেলা এবং রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ১-৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাড়া বাকি এলাকা নিয়ে গঠিত রংপুর-৩ আসনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৭৩ জন। এই আসনে ভোটকেন্দ্র ১৩০টি, ভোটকক্ষ ৯১০টি।

রংপুর উপনির্বাচন: মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত আ’লীগ প্রার্থীর

 যুগান্তর রিপোর্ট 
১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৪:১২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
রেজাউল করিম রাজু।
রেজাউল করিম রাজু। ফাইল ছবি

রংপুর সদর আসনের উপনির্বাচনে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রেজাউল করিম রাজু।

জানা গেছে, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে সোমবার বিকালে রংপুর আঞ্চলিক নির্বাচন অফিসে গেছেন রেজাউল করিম।

তবে এ রিপোর্ট লেখার সময় বিকাল ৪টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের কোনো খবর পাওয়া যায়নি। 

মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পর তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচন থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দেবেন বলে জানা গেছে। 

রংপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মণ্ডল গণমাধ্যমকে বলেন, গত ৭ সেপ্টেম্বর গণভবনে রংপুর উপনির্বাচনের মনোনয়ন বাছাই বোর্ডের সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় প্রার্থী দিয়েছিলেন রেজাউল করিম রাজুকে। 

তবে সেদিন প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বৃহৎ দল হিসেবে আমাদের প্রার্থী দিতে হয়, তাই দিলাম। আবার যেহেতু জাতীয় পার্টি (জাপা) আমাদের মহাজোটের অংশ, তাই এই প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেয়া হবে। আমরা জোটগত নির্বাচন করব।

জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের প্রতি সম্মান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত গত ১৪ জুলাই রংপুর-৩ আসনের এমপি জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর ১৬ জুলাই আসনটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। 

গত ১ সেপ্টেম্বর আসনটিতে নির্বাচনের জন্য তফসিল ঘোষণা করা হয়। আজ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। তফসিল অনুযায়ী আগামী ৫ অক্টোবর ভোটগ্রহণ হবে ইভিএম পদ্ধতিতে। 

রংপুর সদর উপজেলা এবং রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ১-৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাড়া বাকি এলাকা নিয়ে গঠিত রংপুর-৩ আসনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৭৩ জন। এই আসনে ভোটকেন্দ্র ১৩০টি, ভোটকক্ষ ৯১০টি।