বিএনপিতে কোনো সহমর্মিতা নেই: মেজর হাফিজ
jugantor
বিএনপিতে কোনো সহমর্মিতা নেই: মেজর হাফিজ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৩ অক্টোবর ২০১৯, ২২:০৭:৫৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপিতে কোনো সহমর্মিতা নেই: মেজর হাফিজ উদ্দিন

দলের নেতাদের সমালোচনা করে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, ‘২৮ বছর এই দল করি। কোনো সহমর্মিতা নেই।’

বুধবার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

দেশবিরোধী চুক্তি বাতিল, আবরার হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ভোলার ঘটনার দ্রুত বিচার এবং খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল।

তিনি বলেন, বিএনপির ওপরে দায়িত্ব পড়েছিল আবরার হত্যার প্রতিবাদ করার। কিন্তু দুঃখের বিষয় বিএনপি সেই প্রতিবাদ করতে পারেনি। তিনবার জেলে গিয়েছি। প্রত্যেকবার রাজপথ থেকে গিয়েছি, আমাকে বাসা থেকে ধরেনি কখনো। দলের একটা লোক ফোন করে খবর নেননি। এবার একমাত্র রুহুল কবির রিজভী ফোন করে খবর নিয়েছিল। আমার পরিবার সে খবর নেয়ার চেষ্টা করেছে।

‘কেন এই অবস্থা হল দলের’ এ প্রশ্ন রেখে হাফিজ উদ্দিন বলেন, কর্মীরা কত ত্যাগ স্বীকার করছে গ্রামে-গঞ্জে। আমার একটা ছোট উপজেলায় ৪শ' লোককে রামদা দিয়ে কুপিয়েছে। এবারের নির্বাচনের সময়ে আমি ঘর থেকে বেরুতে পারিনি। আমি ৬বারের এমপি, আমার বাবা এমপি ছিলেন। আমি ঘর থেকে বেরুতে পারিনি, নিজের ভোট দিতে পারিনি। বাংলাদেশকে এই অবস্থায় তারা (সরকার) নিয়ে গেছে।’

সরকারের সমালোচনা করে তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, এই সরকার অত্যন্ত দুর্বল সরকার। আপনারা মাঠে নামেন, ইনশাআল্লাহ সরকার বিদায় হয়ে যাবে।

মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহমেদ খানের সঞ্চালনায় সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক জয়নাল আবেদিন, স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ।

বিএনপিতে কোনো সহমর্মিতা নেই: মেজর হাফিজ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৩ অক্টোবর ২০১৯, ১০:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
বিএনপিতে কোনো সহমর্মিতা নেই: মেজর হাফিজ উদ্দিন
আলোচনা সভায় বক্তব্য দিচ্ছেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। ছবি: যুগান্তর

দলের নেতাদের সমালোচনা করে বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, ‘২৮ বছর এই দল করি। কোনো সহমর্মিতা নেই।’

বুধবার বিকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। 

দেশবিরোধী চুক্তি বাতিল, আবরার হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, ভোলার ঘটনার দ্রুত বিচার এবং খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে সভার আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল। 

তিনি বলেন, বিএনপির ওপরে দায়িত্ব পড়েছিল আবরার হত্যার প্রতিবাদ করার। কিন্তু দুঃখের বিষয় বিএনপি সেই প্রতিবাদ করতে পারেনি।  তিনবার জেলে গিয়েছি। প্রত্যেকবার রাজপথ থেকে গিয়েছি, আমাকে বাসা থেকে ধরেনি কখনো। দলের একটা লোক ফোন করে খবর নেননি। এবার একমাত্র রুহুল কবির রিজভী ফোন করে খবর নিয়েছিল। আমার পরিবার সে খবর নেয়ার চেষ্টা করেছে।

‘কেন এই অবস্থা হল দলের’ এ প্রশ্ন রেখে হাফিজ উদ্দিন বলেন, কর্মীরা কত ত্যাগ স্বীকার করছে গ্রামে-গঞ্জে। আমার একটা ছোট উপজেলায় ৪শ' লোককে রামদা দিয়ে কুপিয়েছে। এবারের নির্বাচনের সময়ে আমি ঘর থেকে বেরুতে পারিনি। আমি ৬বারের এমপি, আমার বাবা এমপি ছিলেন। আমি ঘর থেকে বেরুতে পারিনি, নিজের ভোট দিতে পারিনি। বাংলাদেশকে এই অবস্থায় তারা (সরকার) নিয়ে গেছে।’

সরকারের সমালোচনা করে তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বলেন, এই সরকার অত্যন্ত দুর্বল সরকার। আপনারা মাঠে নামেন, ইনশাআল্লাহ সরকার বিদায় হয়ে যাবে। 

মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাদেক আহমেদ খানের সঞ্চালনায় সভায় আরও বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শওকত মাহমুদ, যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক জয়নাল আবেদিন, স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক শিরিন সুলতানা, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন