পদত্যাগের জন্য আমি গোপন বৈঠক করিনি: আলতাফ হোসেন

  পটুয়াখালী ও দক্ষিণ প্রতিনিধি ১১ ডিসেম্বর ২০১৯, ২২:৪৭:৫৪ | অনলাইন সংস্করণ

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী

পদত্যাগের জন্য আমি কোনো গোপন বৈঠক করিনি বলে দাবি করেছেন সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী।

বুধবার রাতে তার পটুয়াখালী বাসভবনে এ সংবাদ সম্মেলনে এ তিনি এ দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে আলতাফ হোসেন চৌধুরী বলেন, দেশের মানুষ মন্ত্রী, এমপি ও দলীয় ক্যাডারদের সীমাহীন দুর্নীতি, দলীয়করণ, পিঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে দিশেহারা। বাক-ব্যক্তি স্বাধীনতা ও সংবাদপত্রের স্বাধীনতা বিপন্ন, সারা দেশে বিরোধীদলের নেতাকর্মীদের হামলা ও মিথ্যা মামলার কারণে এক অরাজক শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি বলেন, এই পরিস্থিতি থেকে দেশ ও জাতিকে রক্ষার জন্য বিএনপির নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা সারা দেশের মতো পটুয়াখালীতেও ঐক্যবদ্ধ। ঠিক সেই মুহূর্তে মিডিয়ায় দল থেকে আমার পদত্যাগের সম্ভাবনা নিয়ে ও আমার ঢাকাস্থ বাসায় গোপন বৈঠকের একটি সম্পূর্ণ মিথ্যা,বানোয়াট ও ভুয়া সংবাদ প্রচার করে।

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান আলতাফ হোসেন চৌধুরী বলেন, দল থেকে পদত্যাগের কোনো সিদ্ধান্ত কখনও আমি গ্রহণ করিনি এবং আমার বাসায় এ সংক্রান্ত কখনও কোনো বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়নি। উদ্দেশ্যমূলকভাবে দলকে ক্ষতিগ্রস্ত এবং আমার ইমেজ ও সুনাম ক্ষুণ্ণ করার জন্য একটি কুচক্রি মহল ভুয়া সংবাদ রটাচ্ছে।

তিনি বলেন, পদত্যাগের সংবাদটি ক্ষমতাসীনদের ষড়যন্ত্রের একটি অংশ। তাই আমি মিথ্যা, বানোয়াট সংবাদ ও অপপ্রচারের তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

সাবেক এই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ১৯৯৫ সালে চাকরি থেকে অবসর গ্রহণের পর বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে বিএনপিতে যোগদান করি। দলে যোগদানের পর থেকে দীর্ঘ ২৫ বছর বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান ও জেলা বিএনপির সভাপতি হিসেবে একাধিকবার দায়িত্বে থেকে গণতান্ত্রিক ও নিয়মতান্ত্রিকভাবে এবং সব নেতাকর্মীর মতামতকে গুরুত্ব দিয়ে দল পরিচালনা করে আসছি।

তিনি বলেন, বিএনপি জোট সরকারের স্বরাষ্ট্র ও বাণিজ্যমন্ত্রী হিসেবে দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করি। পটুয়াখালী-১ আসন থেকে দুইবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে আমার নির্বাচনী এলাকাসহ সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলে ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করি। তাই দল থেকে পদত্যাগের কোনো প্রশ্নই আসে না। বিএনপি আমার প্রথম ও শেষ ঠিকানা।

আলতাফ হোসেন চৌধুরী বলেন, এ সরকার ক্ষমতায় আসার পূর্ববর্তী মইনউদ্দিন-ফখরউদ্দিনের জরুরি অবস্থাকালীন বিতর্কিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময়ে আমি মিথ্যা মামলায় দীর্ঘ ১৮ মাস কারাবরণ করি। তত্ত্বাবধায়ক পরবর্তী সরকারের রোষাণলে পড়ে তিনবার গ্রেফতার ও কারাভোগ এবং নির্যাতিত হয়েছি।

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ডজনখানেক মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে আমার বিরুদ্ধে। সবগুলো মামলা চলমান আছে এবং এখনও প্রতিমাসে আমাকে কোর্টে হাজিরা দিতে হয়। এ সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর প্রহসনের ভোটারবিহীন নির্বাচনের পূর্ব পর্যন্ত আমার পটুয়াখালীস্থ বাসভবনে অসংখ্যবার হামলা, ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে সরকারদলীয় সন্ত্রাসীরা।

সংবাদ সম্মেলনে জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত