ভারতীয় দূতাবাসের সামনের সড়ক ফেলানীর নামে নামকরণের দাবি ডা. জাফরুল্লাহর
jugantor
ভারতীয় দূতাবাসের সামনের সড়ক ফেলানীর নামে নামকরণের দাবি ডা. জাফরুল্লাহর

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৭ জানুয়ারি ২০২০, ১৪:৫৯:৩১  |  অনলাইন সংস্করণ

সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর হাতে খুন হওয়া বাংলাদেশি তরুণী ফেলানীর নামে ঢাকায় দেশটির দূতাবাসটির সামনের সড়কের নামকরণ করার দাবি জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। 

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলন’ আয়োজিত সীমান্ত হত্যা বন্ধ ও ন্যায় বিচারের দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

জাফরুল্লাহ বলেন, ভারতীয় দূতাবাসের সামনের রোড ফেলানীর নামে নামকরণ করতে হবে। ভারতীয়দের মনে করে দিতে হবে যে, অন্যায়কে আমরা ভুলে যাইনি। 

ফেলানী হত্যার প্রসঙ্গ তুলে ধরে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ভারতীয় বাহিনী ১৫ বছর বয়সী ফেলানীকে নির্মমভাবে হত্যা করে ৫ দিন সীমান্তে ঝুলিয়ে রেখেছিল। এ ঘটনার বাংলাদেশ থেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে কোনো প্রতিবাদ জানানো হয়নি।

ভারতের পতন অনিবার্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, জনগণের ঐক্যবদ্ধ চেষ্টা ছাড়া ভারতীয়দের এই অন্যায় অন্যায্য কর্মকাণ্ড বন্ধ করা যাবে না। ভারতের বিভক্তি আসন্ন। তাদের ধ্বংসলীলা দেখতে থাকুন। 

এসময় ভাততের প্রতি সরকারের ‘নতজানু পররাষ্ট্রনীতির’ সমালোচনা করেন ডা. জাফরুল্লাহ। বলেন, আজ ভারতে যেসব ঘটনা ঘটছে বাংলাদেশে তার কোনো প্রতিবাদ নাই। সরকারের এই নতজানু ব্যবস্থাপনা ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য। যা দেশবাসীর জন্য ভয়ঙ্কর অমঙ্গল ডেকে আনবে। 

মানববন্ধনে আয়োজক সংগঠনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া আনোয়ার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ভারতীয় দূতাবাসের সামনের সড়ক ফেলানীর নামে নামকরণের দাবি ডা. জাফরুল্লাহর

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৭ জানুয়ারি ২০২০, ০২:৫৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর হাতে খুন হওয়া বাংলাদেশি তরুণী ফেলানীর নামে ঢাকায় দেশটির দূতাবাসটির সামনের সড়কের নামকরণ করার দাবি জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ‘দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলন’ আয়োজিত সীমান্ত হত্যা বন্ধ ও ন্যায় বিচারের দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

জাফরুল্লাহ বলেন, ভারতীয় দূতাবাসের সামনের রোড ফেলানীর নামে নামকরণ করতে হবে। ভারতীয়দের মনে করে দিতে হবে যে, অন্যায়কে আমরা ভুলে যাইনি।

ফেলানী হত্যার প্রসঙ্গ তুলে ধরে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ভারতীয় বাহিনী ১৫ বছর বয়সী ফেলানীকে নির্মমভাবে হত্যা করে ৫ দিন সীমান্তে ঝুলিয়ে রেখেছিল। এ ঘটনার বাংলাদেশ থেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে কোনো প্রতিবাদ জানানো হয়নি।

ভারতের পতন অনিবার্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, জনগণের ঐক্যবদ্ধ চেষ্টা ছাড়া ভারতীয়দের এই অন্যায় অন্যায্য কর্মকাণ্ড বন্ধ করা যাবে না। ভারতের বিভক্তি আসন্ন। তাদের ধ্বংসলীলা দেখতে থাকুন।

এসময় ভাততের প্রতি সরকারের ‘নতজানু পররাষ্ট্রনীতির’ সমালোচনা করেন ডা. জাফরুল্লাহ। বলেন, আজ ভারতে যেসব ঘটনা ঘটছে বাংলাদেশে তার কোনো প্রতিবাদ নাই। সরকারের এই নতজানু ব্যবস্থাপনা ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য। যা দেশবাসীর জন্য ভয়ঙ্কর অমঙ্গল ডেকে আনবে।

মানববন্ধনে আয়োজক সংগঠনের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপন, কৃষক দলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য লায়ন মিয়া আনোয়ার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

 
আরও খবর