‘দণ্ডিত বিএনপি নেত্রী খালেদার ছবি কীভাবে পোস্টারে স্থান পায়?’

প্রকাশ : ১৫ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

ফাইল ফটো

আসন্ন ঢাকা সিটি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থীরা সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার ছবি দিয়ে কীভাবে পোস্টার করেছে- নির্বাচন কমিশনের কাছে এমন প্রশ্ন রেখেছেন নৌ-প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘অপরাধীর ছবি সংবলিত পোস্টার দিয়ে নির্বাচন করার অধিকার নেই কোনো দলের প্রার্থীদের। কিন্তু আমরা দেখছি জিয়াউর রহমানের স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া একজন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। তার ছবি দিয়ে বিএনপি প্রার্থীরা পোস্টার করছে।’  

এরপর নির্বাচন কমিশনের কাছে তিনি প্রশ্ন করেন, ‘একজন অপরাধীর ছবি সংবলিত পোস্টার কীভাবে করা হয়?’

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর সেগুন বাগিচার কচিকাঁচার মেলার কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জয়বাংলা সাংস্কৃতিক ঐক্যজোটের আয়োজনে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের’ আলোচনা সভায় এই প্রশ্ন রাখেন খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

আলোচনা সভায় খালিদ মাহমুদ চৌধুরী লেভেল প্লেয়িং বিষয়েও প্রশ্ন তোলেন।

তিনি বলেন, ‘আসন্ন ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে নির্বাচন কমিশন থেকে শুরু করে রাজনৈতিক দল ও বিশ্লেষকদের মধ্যে লেভেল প্লেয়িং কথাটি বারবার বলা হচ্ছে।  তাই আমি নির্বাচন কমিশনের উদ্দেশে বলতে চাই, লেভেল প্লেয়িং বলতে আসলে আমরা কী বুঝি?’

যে নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির প্রতিদ্বন্দ্বিতায় মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি থাকে; সেই নির্বাচন কখনো লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড হতে পারে না বলে মন্তব্য করেন নৌ-প্রতিমন্ত্রী।

তবে আওয়ামী লীগ আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল জানিয়ে নৌ-প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান যে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিলেন, কিন্তু ঘাতকরা সেই সুযোগ বঙ্গবন্ধুকে দেয়নি। তারা নির্মমভাবে হত্যা করেছে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের। খালেদা জিয়ার সরকার যুদ্ধাপরাধীদের বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠা করার জন্য চেষ্টা করেছে। এ বিষয়ে আমাদের মনে অনেক কষ্ট আছে। তারপরেও আইনের প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল, তার মানে এই নয় এই ধরনের যুদ্ধাপরাধী আর স্বাধীনতাবিরোধীদের জনগণ মেনে নেবে। বাংলার মানুষ কখনো এই স্বাধীনতাবিরোধীদের মেনে নেবে না।’

জয়বাংলা সাংস্কৃতিক ঐক্যজোটের সভাপতি সালাউদ্দিন বাদলের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন গীতিকার সাফাত খৈয়াম, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রহমান সুলতান।