সরকার যৌথভাবে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাচ্ছে: চরমোনাই পীর
jugantor
সরকার যৌথভাবে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাচ্ছে: চরমোনাই পীর

  যুগান্তর ডেস্ক  

২৬ জানুয়ারি ২০২০, ২২:৩৪:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

চরমোনাই পীর
ছবি: সংগৃহীত

সরকার ও নির্বাচন কমিশন যৌথভাবে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর ও চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মো. রেজাউল করিম। 

তিনি বলেন, গত ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায়। সিটি নির্বাচন নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার মিডিয়ায় হুংকার দিলেও সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে তারা যে মোটেও আন্তরিক নয়, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের বক্তব্যে তা স্পষ্ট।

রোববার রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে (ডিএনসিসি) দলীয় প্রার্থীর ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন চরমোনাই পীর।   

তিনি আরও বলেন, আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই, নির্বাচন কমিশন সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা ধুলোয় মিশে যাবে জনগণ তা হতে দিবে না। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, সরকার ও নির্বাচন কমিশন যৌথভাবে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাচ্ছে।

ঢাকা সিটি নির্বাচনে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি হলে জনগণ তা রুখে দেবে বলেও হুশিয়ার করেন মুফতি রেজাউল করীম।

সংবাদ সম্মেলনে দুর্নীতি ও দূষণমুক্ত ঢাকা গড়তে ৩১ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মনোনীত মেয়র প্রার্থী অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ। 

ঘোষিত নির্বাচনী ইশতেহারের মধ্যে রয়েছে, দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন, স্বচ্ছতা আনয়ন, জবাদিহি নিশ্চিতকরণ, শ্বেতপত্র প্রকাশ, নগর বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন, নগর সরকার গঠনে কার্যকর উদ্যোগ, বায়ূ দূষণ নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, পানি সমস্যার সমাধান, নদীদূষণ, শব্দদূষণ, দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড গঠন, খাদ্যে ভেজাল নিয়ন্ত্রণ, পরিকল্পিত ঢাকা গঠন, যানজট নিরসন, ওয়ার্ড ভিত্তিক পরিকল্পনা প্রণয়ন, বিল্ডিং কোর্ডের যথাযথ অনুসরণ, দুর্যোগ সহিষ্ণু নগর গঠন, বাসা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, স্মার্ট পার্কিং ব্যবস্থা গড়ে তোলার উদ্যোগ। 

এছাড়া ফুটপাত দখলমুক্ত ও পথচারীদের চলাচল উপযোগী করা, আধুনিক মানের পাবলিক টয়লেট গড়ে তোলা, মশক নিধনে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ, সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা, মাদক নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ, খাল, জলাধার সংরক্ষণ করে জলাবদ্ধতা নিরসণে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ, নগরস্বাস্থ্য ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, হকার ও ছিন্নমূল শিশুদের পুনবার্সন, নারীবান্ধব গণপরিবহন ব্যবস্থা গড়ে তোলা, নাগরিকদের নৈতিক উন্নয়ন, জাকার্ত বোর্ড গঠন এবং সামাজিক নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হবে। 

সরকার যৌথভাবে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাচ্ছে: চরমোনাই পীর

 যুগান্তর ডেস্ক 
২৬ জানুয়ারি ২০২০, ১০:৩৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
চরমোনাই পীর
ছবি: সংগৃহীত

সরকার ও নির্বাচন কমিশন যৌথভাবে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর ও চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মো. রেজাউল করিম।

তিনি বলেন, গত ৩০ ডিসেম্বর বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায়। সিটি নির্বাচন নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার মিডিয়ায় হুংকার দিলেও সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে তারা যে মোটেও আন্তরিক নয়, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের বক্তব্যে তা স্পষ্ট।

রোববার রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে (ডিএনসিসি) দলীয় প্রার্থীর ইশতেহার ঘোষণা অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন চরমোনাই পীর।

তিনি আরও বলেন, আমরা স্পষ্টভাবে বলতে চাই, নির্বাচন কমিশন সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠানের মর্যাদা ধুলোয় মিশে যাবে জনগণ তা হতে দিবে না। অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, সরকার ও নির্বাচন কমিশন যৌথভাবে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি ঘটাতে চাচ্ছে।

ঢাকা সিটি নির্বাচনে ৩০ ডিসেম্বরের পুনরাবৃত্তি হলে জনগণ তা রুখে দেবে বলেও হুশিয়ার করেন মুফতি রেজাউল করীম।

সংবাদ সম্মেলনে দুর্নীতি ও দূষণমুক্ত ঢাকা গড়তে ৩১ দফা নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) মনোনীত মেয়র প্রার্থী অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ।

ঘোষিত নির্বাচনী ইশতেহারের মধ্যে রয়েছে, দুর্নীতিমুক্ত প্রশাসন, স্বচ্ছতা আনয়ন, জবাদিহি নিশ্চিতকরণ, শ্বেতপত্র প্রকাশ, নগর বিশেষজ্ঞ কমিটি গঠন, নগর সরকার গঠনে কার্যকর উদ্যোগ, বায়ূ দূষণ নিরসনে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, পানি সমস্যার সমাধান, নদীদূষণ, শব্দদূষণ, দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ড গঠন, খাদ্যে ভেজাল নিয়ন্ত্রণ, পরিকল্পিত ঢাকা গঠন, যানজট নিরসন, ওয়ার্ড ভিত্তিক পরিকল্পনা প্রণয়ন, বিল্ডিং কোর্ডের যথাযথ অনুসরণ, দুর্যোগ সহিষ্ণু নগর গঠন, বাসা নিয়ন্ত্রণে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, স্মার্ট পার্কিং ব্যবস্থা গড়ে তোলার উদ্যোগ।

এছাড়া ফুটপাত দখলমুক্ত ও পথচারীদের চলাচল উপযোগী করা, আধুনিক মানের পাবলিক টয়লেট গড়ে তোলা, মশক নিধনে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ, সুষ্ঠু বর্জ্য ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা, মাদক নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ, খাল, জলাধার সংরক্ষণ করে জলাবদ্ধতা নিরসণে কার্যকর উদ্যোগ গ্রহণ, নগরস্বাস্থ্য ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, হকার ও ছিন্নমূল শিশুদের পুনবার্সন, নারীবান্ধব গণপরিবহন ব্যবস্থা গড়ে তোলা, নাগরিকদের নৈতিক উন্নয়ন, জাকার্ত বোর্ড গঠন এবং সামাজিক নিরাপত্তা বলয় তৈরি করা হবে।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ঢাকার দুই সিটি নির্বাচন-২০২০

২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০