‘পাঁচ মিনিটের মধ্যে কার্জন হল না ছাড়লে খবর আছে’
jugantor
‘পাঁচ মিনিটের মধ্যে কার্জন হল না ছাড়লে খবর আছে’

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১:৫৫:২৩  |  অনলাইন সংস্করণ

‘পাঁচ মিনিটের মধ্যে কার্জন হল না ছাড়লে খবর আছে’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল ও কার্জন হল কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের মোট ৮ জন পোলিং এজেন্টকে বের করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডভুক্ত এসব কেন্দ্র থেকে শনিবার সকালে ভোট শুরু হওয়ার পরেই তাদের বের করে দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তাদের মৌখিকভাবে বিষয়টি জানিয়েছেন বিএনপির মেয়রপ্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনের সমর্থকরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশে হল শাখা ছাত্রদল নেতা এ কে এন এম রাশেদ আল-আমীনের নেতৃত্বে সকালে কার্জন হল কেন্দ্রে গিয়েছিলেন ধানের শীষের প্রার্থীর চারজন পোলিং এজেন্ট।

সেখান থেকে বেরিয়ে এসে অভিযোগ করে এই ছাত্রদল নেতা বলেন, কেন্দ্রের ভেতর গিয়ে বসতেই শাহবাগ থানা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ইব্রাহিম রাসেল আমাদের কক্ষের বাইরে ডেকে নেন। তিনি আমাদের বলেন, পাঁচ মিনিটের মধ্যে কার্জন হল এলাকা না ছাড়লে খবর আছে। তখন আমরা ভয়ে বেরিয়ে যাই।

ক্যাম্পাস শাখা ছাত্রদলের আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম বলেন, ক্যাম্পাস এলাকার দুই ভোটকেন্দ্র থেকে ধানের শীষের ৮ জন এজেন্টকে বের করে দেয়া হয়েছে ৷ এর মধ্যে ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল কেন্দ্র থেকে ৪ জন আর কার্জন হল কেন্দ্র থেকে ৪ জনকে বের করে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে ঢাবি বিএনপি-সমর্থক শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দলের আহ্বায়ক এ বি এম ওবায়দুল ইসলামের নেতৃত্বে সকাল পৌনে নয়টার দিকে ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছে পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ জানানো হয়েছে।

এই শিক্ষক নেতা বলেন, প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ জানিয়েছি। পরিস্থিতি কী হতে যাচ্ছে, বুঝতে পারছি না।

এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা কিংবা আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের প্রচারের দায়িত্বে থাকা কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। ছাত্রলীগের এক শীর্ষ নেতা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এদিকে রাজধানীর উত্তরায় বিএনপি সমর্থিত এক কাউন্সিলর প্রার্থী ও তার এজেন্টদের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের লোকজন মারধর করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার সকালে উত্তরার ৪ নম্বর সেক্টরের নওয়াব হাবিবুল্লাহ মডেল স্কুল ও কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে উত্তর সিটির ১ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান (ঠেলাগাড়ি প্রতীক) তার এজেন্টদের নিয়ে নওয়াব হাবিবুল্লাহ মডেল স্কুল ও কলেজ কেন্দ্রে আসেন।

এসময় কেন্দ্রের ভেতর ঢোকার সময় মূল প্রবেশ পথে তাদের বাধা দেন ওই ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের ( ঝুড়ি প্রতীক) লোকজন।

কিন্তু বাধা উপেক্ষা করে মোস্তাফিজুর রহমান তার এজেন্টদের নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে গেলে আফসার উদ্দিন খানের লোকজন তাদের হাত দিয়ে ধাক্কা দেন।

একপর্যায়ে মোস্তাফিজুর রহমানকে চড় থাপ্পড়সহ মারধর শুরু করেন। এরপর মোস্তাফিজুর রহমান তার এজেন্ট ছাড়াই ভেতরে প্রবেশ করলে আফসার উদ্দিন খানের লোকজন বেরিয়ে যান।

পরে আটটা বাজার পাঁচ মিনিট আগে আফসার উদ্দিন খানের এজেন্টদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেখা যায়।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এজেন্ট নিয়ে মূল গেট দিয়ে ঢোকার পর আফসারউদ্দিন খানের লোকজন আমাকে এবং আমার এজেন্টদের মারধর করে। এজেন্টদের বের করে দেয়।

‘পাঁচ মিনিটের মধ্যে কার্জন হল না ছাড়লে খবর আছে’

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০১ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১:৫৫ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘পাঁচ মিনিটের মধ্যে কার্জন হল না ছাড়লে খবর আছে’
ফাইল ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল ও কার্জন হল কেন্দ্র থেকে ধানের শীষের মোট ৮ জন পোলিং এজেন্টকে বের করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ২১ নম্বর ওয়ার্ডভুক্ত এসব কেন্দ্র থেকে শনিবার সকালে ভোট শুরু হওয়ার পরেই তাদের বের করে দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের প্রিজাইডিং কর্মকর্তাদের মৌখিকভাবে বিষয়টি জানিয়েছেন বিএনপির মেয়রপ্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনের সমর্থকরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অমর একুশে হল শাখা ছাত্রদল নেতা এ কে এন এম রাশেদ আল-আমীনের নেতৃত্বে সকালে কার্জন হল কেন্দ্রে গিয়েছিলেন ধানের শীষের প্রার্থীর চারজন পোলিং এজেন্ট। 

সেখান থেকে বেরিয়ে এসে অভিযোগ করে এই ছাত্রদল নেতা বলেন, কেন্দ্রের ভেতর গিয়ে বসতেই শাহবাগ থানা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ইব্রাহিম রাসেল আমাদের কক্ষের বাইরে ডেকে নেন। তিনি আমাদের বলেন, পাঁচ মিনিটের মধ্যে কার্জন হল এলাকা না ছাড়লে খবর আছে। তখন আমরা ভয়ে বেরিয়ে যাই।

ক্যাম্পাস শাখা ছাত্রদলের আহ্বায়ক রাকিবুল ইসলাম বলেন, ক্যাম্পাস এলাকার দুই ভোটকেন্দ্র থেকে ধানের শীষের ৮ জন এজেন্টকে বের করে দেয়া হয়েছে ৷ এর মধ্যে ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল কেন্দ্র থেকে ৪ জন আর কার্জন হল কেন্দ্র থেকে ৪ জনকে বের করে দেয়া হয়।

এ বিষয়ে ঢাবি বিএনপি-সমর্থক শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দলের আহ্বায়ক এ বি এম ওবায়দুল ইসলামের নেতৃত্বে সকাল পৌনে নয়টার দিকে ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরি স্কুল কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছে পোলিং এজেন্টদের বের করে দেয়ার অভিযোগ জানানো হয়েছে।

এই শিক্ষক নেতা বলেন, প্রিসাইডিং কর্মকর্তার কাছে মৌখিকভাবে অভিযোগ জানিয়েছি। পরিস্থিতি কী হতে যাচ্ছে, বুঝতে পারছি না।

এ বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা কিংবা আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের প্রচারের দায়িত্বে থাকা কারও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। ছাত্রলীগের এক শীর্ষ নেতা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

এদিকে রাজধানীর উত্তরায় বিএনপি সমর্থিত এক কাউন্সিলর প্রার্থী ও তার এজেন্টদের প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের লোকজন মারধর করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার সকালে উত্তরার ৪ নম্বর সেক্টরের নওয়াব হাবিবুল্লাহ মডেল স্কুল ও কলেজ কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সকাল সাড়ে ৭টার দিকে উত্তর সিটির ১ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান (ঠেলাগাড়ি প্রতীক) তার এজেন্টদের নিয়ে নওয়াব হাবিবুল্লাহ মডেল স্কুল ও কলেজ কেন্দ্রে আসেন।

এসময় কেন্দ্রের ভেতর ঢোকার সময় মূল প্রবেশ পথে তাদের বাধা দেন ওই ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী আফসার উদ্দিন খানের ( ঝুড়ি প্রতীক) লোকজন।

কিন্তু বাধা উপেক্ষা করে মোস্তাফিজুর রহমান তার এজেন্টদের নিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে গেলে আফসার উদ্দিন খানের লোকজন তাদের হাত দিয়ে ধাক্কা দেন।

একপর্যায়ে মোস্তাফিজুর রহমানকে চড় থাপ্পড়সহ মারধর শুরু করেন। এরপর মোস্তাফিজুর রহমান তার এজেন্ট ছাড়াই ভেতরে প্রবেশ করলে আফসার উদ্দিন খানের লোকজন বেরিয়ে যান।

পরে আটটা বাজার পাঁচ মিনিট আগে আফসার উদ্দিন খানের এজেন্টদের কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেখা যায়।

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, এজেন্ট নিয়ে মূল গেট দিয়ে ঢোকার পর আফসারউদ্দিন খানের লোকজন আমাকে এবং আমার এজেন্টদের মারধর করে। এজেন্টদের বের করে দেয়।

 
আরও খবর