আদালতের সঙ্গে যে কথা হল খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের
jugantor
আদালতের সঙ্গে যে কথা হল খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩:০৯:২২  |  অনলাইন সংস্করণ

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় হাইকোর্টে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন হয়নি। বৃহস্পতিবার দু’দফা শুনানি শেষে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ জামিন আবেদনটি সরাসরি খারিজ করে দেন। এর ফলে আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার মুক্তি আপাতত হচ্ছে না।

এদিন আদালতে বিচারকদের সঙ্গে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক হয়। রাষ্ট্রপক্ষ এবং দুদকের আইনজীবীরাও জামিনের বিরোধিতা করে পাল্টা যুক্ত তুলে ধরেন। একপর্যায়ে তা কিছুটা বাকবিতণ্ডায় রুপ নেয়। একপর্যায়ে আদালত জামিন আবেদনটি খারিজ করে দেন।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। সঙ্গে ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, বদরুদ্দোজা বাদল, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, ফারুক হোসেন প্রমুখ।

রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা ও মোমতাজ উদ্দিন ফকির এবং ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। এ ছাড়া বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, বিএনপির রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে আদালত কক্ষে দেখা গেছে।

খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনটি আদেশের জন্য কার্যতালিকায় ৫ নম্বরে ছিল। বেলা ১১টায় শুনানি শুরু হয়। শুরুতে আদালত মেডিকেল রিপোর্ট পড়ে শোনান। রিপোর্টে সাত সদস্যের বোর্ড তাদের মতামত দিয়েছেন।

রিপোর্টে বলা হয়, খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস, হাইপার টেনসন, অ্যাজমা, ব্যাকপেইন, আর্থ্রারাইটিজ সমস্যা আছে। তবে ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণে আছে। কিন্তু আর্থ্রারাইটিজ ও ব্যাক পেইনের চিকিৎসার জন্য মেডিসিন পুশ করা দরকার। অন্য সমস্যাগুলো নিয়ন্ত্রণে থাকলেও অস্টিও-আর্থ্ররাইটিসের ‘অ্যাডভানসড ট্রিটমেন্ট’ শুরুর বিষয়ে তিনি সম্মতি দেননি। এমনকি সেই চিকিৎসকার জন্য যেসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা দরকার, সেগুলোও করা যাচ্ছে না। এ সময় আদালত বলেন, আমরা এখন আদেশ দেব।

এ সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবী আ্যডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, আমাদের একটু আবেদন রয়েছে। তিনি (খালেদা জিয়া) কেন অনুমতি দেননি তা জানা দরকার। আমরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে চাই। আমরা তার কাছে জানব কেন তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন না।

জবাবে আদালত বলেন, এটা আমরা দিতে পারি না। এর কোনো সুযোগ নেই। আমরা আদেশ দিচ্ছি। এ সময় জয়নুল আবেদীন বলেন, এখনই আদেশ দেবেন না, আমাদের জানা দরকার কেন তিনি চিকিৎসা নেবেন না। প্লিজ আমাদের অনুমতি দিন। জবাবে আদালত বলেন, এটি আমরা দিতে পারব না। আমরা আদেশ দেব।

এ সময় ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, যে মেডিসিন পুশ করার কথা বলা হচ্ছে তা বিদেশি ওষুধ। তা পুশ করার পর কী রি-অ্যাকশন হবে সেটি দেখা দরকার। এ সময় আদালত বলেন, তিনি (খালেদা জিয়া) কী এক্সপার্ট? তিনি কী ডাক্তার? তিনি কীভাবে বুঝবেন?

আদালত বলেন, আমরা চিকিৎসার জন্য দরকার হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডাক্তারদের কনসান নিয়ে চিকিৎসা করি। আমাদের একজন বিচারপতি প্যারালাইজড হয়ে গেছেন, তিনিও চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে গেছেন। কিন্তু যাওয়ার আগে ঢাকা মেডিকেলে ডাক্তারের কনসান নিয়ে গেছেন।

এ সময় মওদুদ আহমদ বলেন, আমাদের দেখা করে জানা দরকার। আদালত বলেন, আপনারা কী ডাক্তার? আপনারা জানেন ট্রিটমেন্ট কী? এ সময় আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, আমাদের বারবার আপনাদের কাছেই আসতে হয়। আমাদের সবকিছু বন্ধ করবেন না। আমাদের একটু অনুমতি দেন। আর এ বিষয়ে আদেশের জন্য আগামী রোববার দিন ধার্য রাখেন। এ সময় আদালত বলেন, আমাদের একটি প্ল্যান আছে। কোর্টের নিজস্ব প্ল্যান থাকে। সেই অনুযায়ী কোর্ট চলে।

এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, মেডিকেল বোর্ড রিপোর্ট দিয়েছে। তিনি যদি চিকিৎসার অনুমতি না দেন তা হলে মেডিকেল বোর্ডের কী করার আছে? উনার সমস্যাগুলো নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ সময় আদালত বলেন, ব্যাক পেইন ও আর্থ্রারাইটিজ সমস্যা রয়েছে। ঠিক আছে আমরা আদেশ দিই। পরে আবার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, দুপুর ২টা রাখেন। পরে আদালত জামিনের আদেশের জন্য বেলা ২টা রাখেন।

বেলা ২টার পর খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসা নিয়ে দুটি সম্পূরক আবেদন দেন। এ নিয়ে উভয়পক্ষ শুনানি করেন। শুনানিতে জয়নুল আবেদীন বলেন, পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে হাইকোর্ট উন্নত চিকিৎসার জন্য মুক্তি দিয়েছেন। তিনি বিদেশে চিকিৎসা নিয়েছেন। তখন আদালত বলেন, নওয়াজ শরিফকে দেশের ভেতরে চিকিৎসার শর্তে জামিন দেয় আদালত। তিনি দেশের ভেতরে চিকিৎসা নেন। আর পাকিস্তানের উদাহরণ এখানে টানবেন না।

শুনানিতে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, খালেদা জিয়াকে (রেডিয়েন্ট ফার্মাসিউটিক্যালস) ওষুধ দিতে চাইলে তিনি নিতে চান না। এত ভয় কিসের? এই মেডিসিন খেয়ে মানুষ যদি মরে যেত তা হলে তো ওষুধ বাজারজাত হতো না। দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, খালেদা জিয়া জামিন বিষয়ে আপিল বিভাগ একটা পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন। এর বাইরে যাওয়া যাবে না। কারণ আপিল বিভাগের আদেশ মানা বাধ্যতামূলক।

শুনানি শেষে আদালত আদেশ দেন। আদেশে আদালত বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে। খালেদা জিয়া তার চিকিৎসার জন্য সম্মতি দেননি। যেহেতু খালেদা জিয়া তার চিকিৎসার জন্য এখন পর্যন্ত সম্মতি দেননি তাই উন্নত চিকিৎসা শুরু করা সম্ভব হচ্ছে না।

আদালত আরও বলেন, দেশের সর্বোচ্চ হাসপাতাল বা চিকিৎসা কেন্দ্র বিএসএমএমইউ। দেশের যত হাসপাতাল আছে তারা উন্নত চিকিৎসার জন্য রোগীদের এখানে পাঠান। এছাড়া প্রতিবেদনে উল্লেখ নেই যে, এই বোর্ড খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসা দিতে অক্ষম বা এ কথাও উল্লেখ নেই বিএসএমএমইউতে এ ধরনের চিকিৎসা দেয়া সম্ভব নয়। ‘তিনি একজন বন্দি। তিনি একজন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। একজন সাধারণ মানুষ যেভাবে সুযোগ-সুবিধা নিয়ে চিকিৎসা নিতে পারে একজন বন্দি তা পারবেন না। তার কারাবিধি ও নিয়ম-নীতি অনুযায়ী তার চিকিৎসার ব্যবস্থা হবে।’

আদালত আদেশে আরও বলেন, এই আবেদনে জামিনের নতুন কোনো কারণ দেখছি না। তাই এই আবেদনটি প্রত্যাখ্যান করা হলো। তবে যদি খালেদা জিয়া সম্মতি দেন তবে দ্রুত তার উন্নত চিকিৎসা শুরু করতে হবে এবং তার চিকিৎসায় গঠিত বোর্ড চাইলে উন্নত চিকিৎসার জন্য নতুন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককে যুক্ত করতে পারবে।

উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো ১৮ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ সংক্রান্ত আবেদন জমা দেয়া হয়। পরদিন খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন আবেদনটি আদালতে উপস্থাপন করেন। এরপর রোববার শুনানির দিন ধার্য করেন আদালত।

ওই দিন খালেদা জিয়ার চিকিৎসাবিষয়ক তিন অবস্থার তথ্য জানতে চান হাইকোর্ট। মেডিকেল বোর্ডের সুপারিশ অনুসারে খালেদা জিয়া অ্যাডভান্স থেরাপির জন্য সম্মতি দিয়েছেন কিনা, দিলে সেই চিকিৎসা শুরু হয়েছে কিনা, চিকিৎসা শুরু হলে এখন কী অবস্থা- তা জানিয়ে বুধবারের মধ্যে আদালতে এ প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। আদালতের নির্দেশ মোতাবেক বুধবার খালেদা জিয়া র চিকিৎসাবিষয়ক প্রতিবেদন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সুপ্রিমকোর্টে পৌঁছে।

দুর্নীতির দুই মামলায় মোট ১৭ বছরের দণ্ড মাথায় নিয়ে কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া গত এপ্রিল থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। দল ও পরিবারের সদস্যরা তাকে অন্য হাসপাতালে নিতে চাইলেও তাতে অনুমতি মেলেনি।

আদালতের সঙ্গে যে কথা হল খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০১:০৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় হাইকোর্টে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন হয়নি। বৃহস্পতিবার দু’দফা শুনানি শেষে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি একেএম জহিরুল হকের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ জামিন আবেদনটি সরাসরি খারিজ করে দেন। এর ফলে আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার মুক্তি আপাতত হচ্ছে না।

এদিন আদালতে বিচারকদের সঙ্গে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের যুক্তিতর্ক হয়। রাষ্ট্রপক্ষ এবং দুদকের আইনজীবীরাও জামিনের বিরোধিতা করে পাল্টা যুক্ত তুলে ধরেন। একপর্যায়ে তা কিছুটা বাকবিতণ্ডায় রুপ নেয়। একপর্যায়ে আদালত জামিন আবেদনটি খারিজ করে দেন।  

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। সঙ্গে ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, এ জে মোহাম্মদ আলী, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, বদরুদ্দোজা বাদল, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, ফারুক হোসেন প্রমুখ। 

রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা ও মোমতাজ উদ্দিন ফকির এবং ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। এ ছাড়া বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, বিএনপির রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে আদালত কক্ষে দেখা গেছে।

খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনটি আদেশের জন্য কার্যতালিকায় ৫ নম্বরে ছিল। বেলা ১১টায় শুনানি শুরু হয়। শুরুতে আদালত মেডিকেল রিপোর্ট পড়ে শোনান। রিপোর্টে সাত সদস্যের বোর্ড তাদের মতামত দিয়েছেন।

রিপোর্টে বলা হয়, খালেদা জিয়ার ডায়াবেটিস, হাইপার টেনসন, অ্যাজমা, ব্যাকপেইন, আর্থ্রারাইটিজ সমস্যা আছে। তবে ডায়াবেটিস, হাইপারটেনশন, অ্যাজমা নিয়ন্ত্রণে আছে। কিন্তু আর্থ্রারাইটিজ ও ব্যাক পেইনের চিকিৎসার জন্য মেডিসিন পুশ করা দরকার। অন্য সমস্যাগুলো নিয়ন্ত্রণে থাকলেও অস্টিও-আর্থ্ররাইটিসের ‘অ্যাডভানসড ট্রিটমেন্ট’ শুরুর বিষয়ে তিনি সম্মতি দেননি। এমনকি সেই চিকিৎসকার জন্য যেসব পরীক্ষা-নিরীক্ষা দরকার, সেগুলোও করা যাচ্ছে না। এ সময় আদালত বলেন, আমরা এখন আদেশ দেব।

এ সময় খালেদা জিয়ার আইনজীবী আ্যডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, আমাদের একটু আবেদন রয়েছে। তিনি (খালেদা জিয়া) কেন অনুমতি দেননি তা জানা দরকার। আমরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে চাই। আমরা তার কাছে জানব কেন তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন না।

জবাবে আদালত বলেন, এটা আমরা দিতে পারি না। এর কোনো সুযোগ নেই। আমরা আদেশ দিচ্ছি। এ সময় জয়নুল আবেদীন বলেন, এখনই আদেশ দেবেন না, আমাদের জানা দরকার কেন তিনি চিকিৎসা নেবেন না। প্লিজ আমাদের অনুমতি দিন। জবাবে আদালত বলেন, এটি আমরা দিতে পারব না। আমরা আদেশ দেব।

এ সময় ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, যে মেডিসিন পুশ করার কথা বলা হচ্ছে তা বিদেশি ওষুধ। তা পুশ করার পর কী রি-অ্যাকশন হবে সেটি দেখা দরকার। এ সময় আদালত বলেন, তিনি (খালেদা জিয়া) কী এক্সপার্ট? তিনি কী ডাক্তার? তিনি কীভাবে বুঝবেন?

আদালত বলেন, আমরা চিকিৎসার জন্য দরকার হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজের ডাক্তারদের কনসান নিয়ে চিকিৎসা করি। আমাদের একজন বিচারপতি প্যারালাইজড হয়ে গেছেন, তিনিও চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে গেছেন। কিন্তু যাওয়ার আগে ঢাকা মেডিকেলে ডাক্তারের কনসান নিয়ে গেছেন।

এ সময় মওদুদ আহমদ বলেন, আমাদের দেখা করে জানা দরকার। আদালত বলেন, আপনারা কী ডাক্তার? আপনারা জানেন ট্রিটমেন্ট কী? এ সময় আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, আমাদের বারবার আপনাদের কাছেই আসতে হয়। আমাদের সবকিছু বন্ধ করবেন না। আমাদের একটু অনুমতি দেন। আর এ বিষয়ে আদেশের জন্য আগামী রোববার দিন ধার্য রাখেন। এ সময় আদালত বলেন, আমাদের একটি প্ল্যান আছে। কোর্টের নিজস্ব প্ল্যান থাকে। সেই অনুযায়ী কোর্ট চলে।

এ সময় অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, মেডিকেল বোর্ড রিপোর্ট দিয়েছে। তিনি যদি চিকিৎসার অনুমতি না দেন তা হলে মেডিকেল বোর্ডের কী করার আছে? উনার সমস্যাগুলো নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ সময় আদালত বলেন, ব্যাক পেইন ও আর্থ্রারাইটিজ সমস্যা রয়েছে। ঠিক আছে আমরা আদেশ দিই। পরে আবার আইনজীবী জয়নুল আবেদীন বলেন, দুপুর ২টা রাখেন। পরে আদালত জামিনের আদেশের জন্য বেলা ২টা রাখেন।

বেলা ২টার পর খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসা নিয়ে দুটি সম্পূরক আবেদন দেন। এ নিয়ে উভয়পক্ষ শুনানি করেন। শুনানিতে জয়নুল আবেদীন বলেন, পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে হাইকোর্ট উন্নত চিকিৎসার জন্য মুক্তি দিয়েছেন। তিনি বিদেশে চিকিৎসা নিয়েছেন। তখন আদালত বলেন, নওয়াজ শরিফকে দেশের ভেতরে চিকিৎসার শর্তে জামিন দেয় আদালত। তিনি দেশের ভেতরে চিকিৎসা নেন। আর পাকিস্তানের উদাহরণ এখানে টানবেন না।

শুনানিতে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, খালেদা জিয়াকে (রেডিয়েন্ট ফার্মাসিউটিক্যালস) ওষুধ দিতে চাইলে তিনি নিতে চান না। এত ভয় কিসের? এই মেডিসিন খেয়ে মানুষ যদি মরে যেত তা হলে তো ওষুধ বাজারজাত হতো না। দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, খালেদা জিয়া জামিন বিষয়ে আপিল বিভাগ একটা পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন। এর বাইরে যাওয়া যাবে না। কারণ আপিল বিভাগের আদেশ মানা বাধ্যতামূলক।

শুনানি শেষে আদালত আদেশ দেন। আদেশে আদালত বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে। খালেদা জিয়া তার চিকিৎসার জন্য সম্মতি দেননি। যেহেতু খালেদা জিয়া তার চিকিৎসার জন্য এখন পর্যন্ত সম্মতি দেননি তাই উন্নত চিকিৎসা শুরু করা সম্ভব হচ্ছে না।

আদালত আরও বলেন, দেশের সর্বোচ্চ হাসপাতাল বা চিকিৎসা কেন্দ্র বিএসএমএমইউ। দেশের যত হাসপাতাল আছে তারা উন্নত চিকিৎসার জন্য রোগীদের এখানে পাঠান। এছাড়া প্রতিবেদনে উল্লেখ নেই যে, এই বোর্ড খালেদা জিয়ার উন্নত চিকিৎসা দিতে অক্ষম বা এ কথাও উল্লেখ নেই বিএসএমএমইউতে এ ধরনের চিকিৎসা দেয়া সম্ভব নয়। ‘তিনি একজন বন্দি। তিনি একজন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি। একজন সাধারণ মানুষ যেভাবে সুযোগ-সুবিধা নিয়ে চিকিৎসা নিতে পারে একজন বন্দি তা পারবেন না। তার কারাবিধি ও নিয়ম-নীতি অনুযায়ী তার চিকিৎসার ব্যবস্থা হবে।’

আদালত আদেশে আরও বলেন, এই আবেদনে জামিনের নতুন কোনো কারণ দেখছি না। তাই এই আবেদনটি প্রত্যাখ্যান করা হলো। তবে যদি খালেদা জিয়া সম্মতি দেন তবে দ্রুত তার উন্নত চিকিৎসা শুরু করতে হবে এবং তার চিকিৎসায় গঠিত বোর্ড চাইলে উন্নত চিকিৎসার জন্য নতুন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসককে যুক্ত করতে পারবে।

উন্নত চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে দ্বিতীয়বারের মতো ১৮ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ সংক্রান্ত আবেদন জমা দেয়া হয়। পরদিন খালেদা জিয়ার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন আবেদনটি আদালতে উপস্থাপন করেন। এরপর রোববার শুনানির দিন ধার্য করেন আদালত।

ওই দিন খালেদা জিয়ার চিকিৎসাবিষয়ক তিন অবস্থার তথ্য জানতে চান হাইকোর্ট। মেডিকেল বোর্ডের সুপারিশ অনুসারে খালেদা জিয়া অ্যাডভান্স থেরাপির জন্য সম্মতি দিয়েছেন কিনা, দিলে সেই চিকিৎসা শুরু হয়েছে কিনা, চিকিৎসা শুরু হলে এখন কী অবস্থা- তা জানিয়ে বুধবারের মধ্যে আদালতে এ প্রতিবেদন জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। আদালতের নির্দেশ মোতাবেক বুধবার খালেদা জিয়া     র চিকিৎসাবিষয়ক প্রতিবেদন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সুপ্রিমকোর্টে পৌঁছে।

দুর্নীতির দুই মামলায় মোট ১৭ বছরের দণ্ড মাথায় নিয়ে কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া গত এপ্রিল থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। দল ও পরিবারের সদস্যরা তাকে অন্য হাসপাতালে নিতে চাইলেও তাতে অনুমতি মেলেনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : কারাগারে খালেদা জিয়া