সিলেট ও খাগড়াছড়িতে গণধর্ষণের ঘটনায় আল্লামা কাসেমীর ক্ষোভ
jugantor
সিলেট ও খাগড়াছড়িতে গণধর্ষণের ঘটনায় আল্লামা কাসেমীর ক্ষোভ

  অনলাইন ডেস্ক  

২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:০৪:৩০  |  অনলাইন সংস্করণ

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী/ যুগান্তর

সিলেটের এমসি কলেজে স্বামীর কাছ থেকে স্ত্রীকে কেড়ে নিয়ে এবং খাগড়াছড়িতে চাকমা প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের নিষ্ঠুর ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।

শনিবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি যে, গণধর্ষণের এমন বর্বরতম ঘটনার প্রায় সকলক্ষেত্রেই দেখা গেছে ধর্ষকদের দলীয় পরিচয় ও রাজনৈতিক আশ্রয় আছে এবং যেকোনো ধরনের অপরাধ করে পার পেয়ে যাওয়ার একটা অলিখিত নিশ্চয়তাও তাদের মনে কাজ করে থাকে। যে কোন সভ্য সমাজের জন্য এটা ভয়াবহ উদ্বেগের বিষয়।

তিনি আরো বলেন, ২০১২ সালের ডিসেম্বরে বিশ্বজিৎ দাসকে দিনদুপুরে কুপিয়ে হত্যার সুস্পষ্ট আলামত ও প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও আসামিদের খালাস পেয়ে যাওয়া কিংবা একের পর এক সাজাপ্রাপ্ত প্রভাবশালী খুনিদের রাষ্ট্রীয়ভাবে সাজা মওকুফ করে মুক্ত করার যে ভয়ঙ্কর সংস্কৃতি সরকার চালু করেছে, তার ফলে একের পর এক হত্যা, গণধর্ষণ, সন্ত্রাস এবং সামাজিক নৈরাজ্য সৃষ্টির পথ খুলে গেছে।

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী গভীর হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, সাধারণ মানুষের আইনি নিরাপত্তা, বিচার পাওয়ার নিশ্চয়তা ও সামাজিক সুরক্ষার কোন কিছুই এখন আর অবশিষ্ট নাই। এভাবে একটি রাষ্ট্র চলতে পারে না।

সিলেট ও খাগড়াছড়িতে গণধর্ষণের ঘটনায় আল্লামা কাসেমীর ক্ষোভ

 অনলাইন ডেস্ক 
২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী/ যুগান্তর
আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী। ফাইল ছবি

সিলেটের এমসি কলেজে স্বামীর কাছ থেকে স্ত্রীকে কেড়ে নিয়ে এবং খাগড়াছড়িতে চাকমা প্রতিবন্ধী নারীকে গণধর্ষণের নিষ্ঠুর ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’র মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী।
 
শনিবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, আমরা গভীর উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করছি যে, গণধর্ষণের এমন বর্বরতম ঘটনার  প্রায় সকলক্ষেত্রেই দেখা গেছে ধর্ষকদের দলীয় পরিচয় ও রাজনৈতিক আশ্রয় আছে এবং যেকোনো ধরনের অপরাধ করে পার পেয়ে যাওয়ার একটা অলিখিত নিশ্চয়তাও তাদের মনে কাজ করে থাকে। যে কোন সভ্য সমাজের জন্য এটা ভয়াবহ উদ্বেগের বিষয়।

তিনি আরো বলেন, ২০১২ সালের ডিসেম্বরে বিশ্বজিৎ দাসকে দিনদুপুরে কুপিয়ে হত্যার সুস্পষ্ট আলামত ও প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও আসামিদের খালাস পেয়ে যাওয়া কিংবা একের পর এক সাজাপ্রাপ্ত প্রভাবশালী খুনিদের রাষ্ট্রীয়ভাবে সাজা মওকুফ করে মুক্ত করার যে ভয়ঙ্কর সংস্কৃতি সরকার চালু করেছে, তার ফলে একের পর এক হত্যা, গণধর্ষণ, সন্ত্রাস এবং সামাজিক নৈরাজ্য সৃষ্টির পথ খুলে গেছে।

আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী গভীর হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, সাধারণ মানুষের আইনি নিরাপত্তা, বিচার পাওয়ার নিশ্চয়তা ও সামাজিক সুরক্ষার কোন কিছুই এখন আর অবশিষ্ট নাই। এভাবে একটি রাষ্ট্র চলতে পারে না।