প্রেসক্লাবে সংঘর্ষ: বিএনপি-ছাত্রদলের ৪৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা
jugantor
প্রেসক্লাবে সংঘর্ষ: বিএনপি-ছাত্রদলের ৪৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০১ মার্চ ২০২১, ১১:৩৬:২৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও লেখক মুশতাক আহমেদের কারাগারে মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সমাবেশ ঘিরে পুলিশ ও নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে।

রোববার গভীর রাতে পুলিশ বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় এ মামলাটি করেন।

মামলায় এজাহার নামীয় বিএনপি ও ছাত্রদলের ৪৭ নেতাকর্মী ও অজ্ঞাতনামা ২০০-২৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এখন পর্যন্ত সংঘর্ষের ঘটনায় ১২ জনকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ।

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে (পুলিশ অ্যাসল্ট) হত্যাচেষ্টা ও হামলা-ভাঙচুর চালানো।

সোমবার সকালে শাহবাগ থানার ওসি মোহাম্মদ মামুন অর রশীদ যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, গ্রেফতার আসামিদের আদালতে উপস্থাপন করা হবে। গতকালের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছে। সংঘর্ষের সময় প্রেসক্লাবসংলগ্ন অস্থায়ী পুলিশ বক্সের জানালা ভাঙচুরসহ পুলিশের ওপর হামলা চালায় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

মামলায় বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলেও জানান তিনি।

রোববার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও লেখক মুশতাক আহমেদের কারাগারে মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে ছাত্রদল সমাবেশের আয়োজন করে।

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দুপুরে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির জন্য জমায়েত শুরুর আগেই পুলিশ লাঠিপেটা করে ও কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এ ঘটনায় ছাত্রদলের সহসভাপতি মামুন খানসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ছাত্রদলের বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে।

প্রেসক্লাবে সংঘর্ষ: বিএনপি-ছাত্রদলের ৪৭ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০১ মার্চ ২০২১, ১১:৩৬ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও লেখক মুশতাক আহমেদের কারাগারে মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সমাবেশ ঘিরে পুলিশ ও নেতাকর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। 

রোববার গভীর রাতে পুলিশ বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় এ মামলাটি করেন।

মামলায় এজাহার নামীয় বিএনপি ও ছাত্রদলের ৪৭ নেতাকর্মী ও অজ্ঞাতনামা ২০০-২৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে। 

এখন পর্যন্ত সংঘর্ষের ঘটনায় ১২ জনকে গ্রেফতার দেখিয়েছে পুলিশ। 

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে (পুলিশ অ্যাসল্ট) হত্যাচেষ্টা ও হামলা-ভাঙচুর চালানো।

সোমবার সকালে শাহবাগ থানার ওসি মোহাম্মদ মামুন অর রশীদ যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, গ্রেফতার আসামিদের আদালতে উপস্থাপন করা হবে। গতকালের সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশের বেশ কয়েকজন সদস্য আহত হয়েছে। সংঘর্ষের সময় প্রেসক্লাবসংলগ্ন অস্থায়ী পুলিশ বক্সের জানালা ভাঙচুরসহ পুলিশের ওপর হামলা চালায় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা।

মামলায় বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রেখেছে বলেও জানান তিনি।

রোববার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল ও লেখক মুশতাক আহমেদের কারাগারে মৃত্যুর ঘটনার প্রতিবাদে ছাত্রদল সমাবেশের আয়োজন করে। 

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে দুপুরে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির জন্য জমায়েত শুরুর আগেই পুলিশ লাঠিপেটা করে ও কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এ ঘটনায় ছাত্রদলের সহসভাপতি মামুন খানসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ছাত্রদলের বেশ কয়েকজনকে আটক করেছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন