মামুনুলদের গ্রেফতার না করলে ১৫ রমজান হরতাল
jugantor
মামুনুলদের গ্রেফতার না করলে ১৫ রমজান হরতাল

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১২ এপ্রিল ২০২১, ১৮:৫১:৫৫  |  অনলাইন সংস্করণ

মামুনুলদের গ্রেফতার না করলে ১৫ রমজান হরতাল

সারাদেশে হেফাজতের নাশকতায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা না হলে আগামী ১৫ রমজান সকাল-সন্ধ্যা হরতাল কর্মসূচি পালনের হুশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

সোমবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামিক পার্টির আলোচনা সভা থেকে এ ঘোষণা দেন দলটির চেয়ারম্যান মাওলানা মো. ইসমাইল হোসাইন।

হরতালের ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, এই হরতাল কঠোরভাবে পালন করা হবে। রিকশা-সাইকেল কোনো কিছুই চলতে দেব না। এমনকি পুলিশের গাড়িও চলতে দেওয়া হবে না।

মাওলানা মো. ইসমাইল বলেন, বর্তমান সরকার এবং সরকারের প্রশাসন মুসলমানদের প্রতি যথেষ্ট সংবেদনশীল এবং অধিকার আদায়ে সচেষ্ট। তবুও হেফাজত ইসলামের মত এত বড় একটি অরাজনৈতিক দল যখন কোনো প্রকার সমঝোতা বা সংলাপের প্রয়াস ছাড়াই সংঘাতের পথে পা বাড়ায় সেটা দেশের সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির জন্য যথেষ্ট।

তিনি আরও বলেন, হেফাজতে ইসলাম এবং সরকারের দ্বিপাক্ষিক সমঝোতা এবং পারস্পরিক সৌহার্দ্য বোধের অভাবে মোদি বিরোধী আন্দোলন এবং এর পরবর্তী ইস্যুতে ২৬টি তাজা প্রাণ ঝরে যায়।জাতীয় সম্পদের শতকোটি টাকার অধিক ক্ষয় ক্ষতি হয়। সে কারণে উভয় পক্ষই জনগণের কাছে দায়বদ্ধ এবং প্রত্যেক সচেতন নাগরিক তাদের থেকে যথাসময়ে জবাবদিহিতা আদায় করে ছাড়বে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দলটির মহাসচিব মাওলানা মুফতি শাহাদাত হোসাইন, যুগ্ম-মহাসচিব কাজী মাওলানা শাহ মো. ওমর ফারুক, সহ-সভাপতি মাওলানা মোস্তফা চৌধুরী, আবুল খায়ের ওয়াহেদী, মাওলানা শহিদুল ইসলাম, হারুন অর রশিদ মিরন- পীর সাহেব নড়াইল, মাওলানা হাজী হাবিবুল্লাহ প্রমূখ।

মামুনুলদের গ্রেফতার না করলে ১৫ রমজান হরতাল

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১২ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মামুনুলদের গ্রেফতার না করলে ১৫ রমজান হরতাল
বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামিক পার্টির চেয়ারম্যান মাওলানা মো. ইসমাইল হোসাইন। ছবি: সংগৃহীত

সারাদেশে হেফাজতের নাশকতায় অভিযুক্তদের গ্রেফতার করা না হলে আগামী ১৫ রমজান সকাল-সন্ধ্যা হরতাল কর্মসূচি পালনের হুশিয়ারি দেওয়া হয়েছে।

সোমবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামিক পার্টির আলোচনা সভা থেকে এ ঘোষণা দেন দলটির চেয়ারম্যান মাওলানা মো. ইসমাইল হোসাইন।

হরতালের ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, এই হরতাল কঠোরভাবে পালন করা হবে। রিকশা-সাইকেল কোনো কিছুই চলতে দেব না। এমনকি পুলিশের গাড়িও চলতে দেওয়া হবে না। 

মাওলানা মো. ইসমাইল বলেন, বর্তমান সরকার এবং সরকারের প্রশাসন মুসলমানদের প্রতি যথেষ্ট সংবেদনশীল এবং অধিকার আদায়ে সচেষ্ট। তবুও হেফাজত ইসলামের মত এত বড় একটি অরাজনৈতিক দল যখন কোনো প্রকার সমঝোতা বা সংলাপের প্রয়াস ছাড়াই সংঘাতের পথে পা বাড়ায় সেটা দেশের সার্বিক আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির জন্য যথেষ্ট। 

তিনি আরও বলেন, হেফাজতে ইসলাম এবং সরকারের দ্বিপাক্ষিক সমঝোতা এবং পারস্পরিক সৌহার্দ্য বোধের অভাবে মোদি বিরোধী আন্দোলন এবং এর পরবর্তী ইস্যুতে ২৬টি তাজা প্রাণ ঝরে যায়। জাতীয় সম্পদের শতকোটি টাকার অধিক ক্ষয় ক্ষতি হয়। সে কারণে উভয় পক্ষই জনগণের কাছে দায়বদ্ধ এবং প্রত্যেক সচেতন নাগরিক তাদের থেকে যথাসময়ে জবাবদিহিতা আদায় করে ছাড়বে। 

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন দলটির মহাসচিব মাওলানা মুফতি শাহাদাত হোসাইন, যুগ্ম-মহাসচিব কাজী মাওলানা শাহ মো. ওমর ফারুক, সহ-সভাপতি মাওলানা মোস্তফা চৌধুরী, আবুল খায়ের ওয়াহেদী, মাওলানা শহিদুল ইসলাম, হারুন অর রশিদ মিরন- পীর সাহেব নড়াইল, মাওলানা হাজী হাবিবুল্লাহ প্রমূখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন