'‌ইলিয়াস আলীর স্ত্রীকে বিভিন্ন প্রশ্ন করে হেনস্তা করা হয়েছে'
jugantor
'‌ইলিয়াস আলীর স্ত্রীকে বিভিন্ন প্রশ্ন করে হেনস্তা করা হয়েছে'

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৯:৫৩:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজের নয় বছর বার্ষিকিীতে শনিবার এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের দেওয়া বক্তব্য নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে। বিভ্রান্তি দূর করতে নিজ বাসায় রোববার সংবাদ সম্মেলন করেন এই নেতা। সেখানে দাবি করেন, তার বক্তব্য বিকৃত করে পেচিয়ে লেখা হয়েছে, টুইস্ট করা হয়েছে।

মির্জা আব্বাস বলেন, আজ (রোববার) সকালে ইলিয়াস আলীর বাসায় গেছে একদল সাংবাদিক। তার স্ত্রীকে গিয়ে রীতিমতো চার্জ করেছে, বিভিন্ন প্রশ্ন করে হেনস্তা করার চেষ্টা করা হয়েছে। এটাই বা কেন? কী এমন ঘটনা ঘটল যে, হঠাৎ করে এই বিষয়টা নিয়ে এত মাথা ঘামাতে হবে?

তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, গত ৯টি বছর ইলিয়াস গুম হওয়ার পরে কোনো পত্র-পত্রিকায় একটি দিবস পালন করেনি। সেই ইলিয়াস আলীর জন্য আজকে কেন সাংবাদিকদের মাথা খারাপ হয়ে গেল? আমি কোনো সাংবাদিককে দোষারোপ করছি না। দয়া করে সত্য বক্তব্যটা যদি তুলে ধরতেন তাহলে ভালো হতো। আমি এমন কোনো কথা বলিনি যার জন্য জাতির কাছে, দেশের কাছে, বিএনপির কাছে কিংবা আমার নেতাকর্মীর কাছে আমাকে বিব্রত হতে হবে। আমার বক্তব্য গতকাল যারা শুনেছেন তারা হয়তো বুঝে উঠতে পারেননি। আমি দুঃখিত যে, আমি বুঝাতে পারিনি।

মির্জা আব্বাস বলেন, আমি আবারও বলছি যে, আমার গতকালের বক্তব্যের কাটপিছকে তুলে ধরে সামনের অংশ, পেছনের অংশ বাদ দিয়ে মাঝখান থেকে যার যেখানে যতটুকু প্রয়োজন নিয়ে মনের মাধুরী দিয়ে বিস্তারিত লিখেছেন। এর সঙ্গে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই।এর সঙ্গে আমার দল এবং আমি কোনো দায়-দায়িত্ব বহন করি না। যারা বলছেন, যারা লিখেছেন তার জন্য তারাই দায়িত্ব বহন করবেন। আমি যা বলেছি আমার সংগঠনের ভালোর জন্য বলেছি। আমি কাউকে ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য বলিনি। আমি যা বলেছি, ইলিয়াসকে স্মরণ করে বলেছি, ইলিয়াস আমাদের মধ্যে ছিলেন, আমাদের মাঝে আসবেন- সেই কথা স্মরণ করে আমি বলেছি।

তিনি বলেন, দয়া করে আর টুইস্ট করে নিউজ করবেন না। আমাকে কেন এই সরকার বা কিছু সাংবাদিকের টার্গেট করার প্রয়োজন হলো আমি তা বুঝতে পারছি না। এত লোক থাকতে ইলিয়াসকে নিয়ে আমাকে টার্গেট করা- এই লক্ষণটা কিন্তু ভালো না, আমি এটাকে অশুভ লক্ষণ বলে মনে করি।

সরকার ইলিয়াসকে গুম করেনি- এই বক্তব্য সম্পর্কে জানতে চাইলে মির্জা আব্বাস বলেন, আমি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হয়ে কেন বলব যে, আমি জানি সরকার জড়িত নয়। আমি কটাক্ষ করে বলেছি। ইট মিনস সরকারই বলুক ইলিয়াস আলী কোথায় আছে? সরকারকেই জবাব দিতে হবে। এই সরকারের সময়ে একজন জলজ্যান্ত ইলিয়াস, একজন তরতাজা ইলিয়াস, সত্যভাষী একজন ইলিয়াস গুম হয়ে যাবে? সরকার জানে না। তাহলে কে করল গুম? আমি এটা বলতে চেয়েছি।আপনারা কি বের করতে পেরেছেন সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড কারা করল? পারেননি। কারা করেছে বলতে পারবেন আপনারা। ইলিয়াস গুম হয়েছে, সালাহউদ্দিন আহমেদকে পাচার করা হয়েছে, আমাদের চৌধুরী আলমকে গুম করা হয়েছে, এরকম আরও হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গুম করা হয়েছে। কে করল? তারা হাওয়া হয়ে গেল?

রাজধানীর শাহজাহানপুরে মির্জা আব্বাসের নিজ বাসায় এই সংবাদ সম্মেলনে দলের যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন,কামরুজ্জামান রতন, আবদুস সালাম আজাদ ও কাইয়ুম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।

'‌ইলিয়াস আলীর স্ত্রীকে বিভিন্ন প্রশ্ন করে হেনস্তা করা হয়েছে'

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৯:৫৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এম ইলিয়াস আলী নিখোঁজের নয় বছর বার্ষিকিীতে শনিবার এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের দেওয়া বক্তব্য নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে।  বিভ্রান্তি দূর করতে নিজ বাসায় রোববার সংবাদ সম্মেলন করেন এই নেতা।  সেখানে দাবি করেন, তার বক্তব্য বিকৃত করে পেচিয়ে লেখা হয়েছে, টুইস্ট করা হয়েছে। 

মির্জা আব্বাস বলেন, আজ (রোববার) সকালে ইলিয়াস আলীর বাসায় গেছে একদল সাংবাদিক। তার স্ত্রীকে গিয়ে রীতিমতো চার্জ করেছে, বিভিন্ন প্রশ্ন করে হেনস্তা করার চেষ্টা করা হয়েছে। এটাই বা কেন? কী এমন ঘটনা ঘটল যে, হঠাৎ করে এই বিষয়টা নিয়ে এত মাথা ঘামাতে হবে?

তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশে বলেন, গত ৯টি বছর ইলিয়াস গুম হওয়ার পরে কোনো পত্র-পত্রিকায় একটি দিবস পালন করেনি। সেই ইলিয়াস আলীর জন্য আজকে কেন সাংবাদিকদের মাথা খারাপ হয়ে গেল? আমি কোনো সাংবাদিককে দোষারোপ করছি না। দয়া করে সত্য বক্তব্যটা যদি তুলে ধরতেন তাহলে ভালো হতো। আমি এমন কোনো কথা বলিনি যার জন্য জাতির কাছে, দেশের কাছে, বিএনপির কাছে কিংবা আমার নেতাকর্মীর কাছে আমাকে বিব্রত হতে হবে। আমার বক্তব্য গতকাল যারা শুনেছেন তারা হয়তো বুঝে উঠতে পারেননি। আমি দুঃখিত যে, আমি বুঝাতে পারিনি।

মির্জা আব্বাস বলেন, আমি আবারও বলছি যে, আমার গতকালের বক্তব্যের কাটপিছকে তুলে ধরে সামনের অংশ, পেছনের অংশ বাদ দিয়ে মাঝখান থেকে যার যেখানে যতটুকু প্রয়োজন নিয়ে মনের মাধুরী দিয়ে বিস্তারিত লিখেছেন। এর সঙ্গে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই।এর সঙ্গে আমার দল এবং আমি কোনো দায়-দায়িত্ব বহন করি না। যারা বলছেন, যারা লিখেছেন তার জন্য তারাই দায়িত্ব বহন করবেন। আমি যা বলেছি আমার সংগঠনের ভালোর জন্য বলেছি। আমি কাউকে ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য বলিনি। আমি যা বলেছি, ইলিয়াসকে স্মরণ করে বলেছি, ইলিয়াস আমাদের মধ্যে ছিলেন, আমাদের মাঝে আসবেন- সেই কথা স্মরণ করে আমি বলেছি।

তিনি বলেন, দয়া করে আর টুইস্ট করে নিউজ করবেন না। আমাকে কেন এই সরকার বা কিছু সাংবাদিকের টার্গেট করার প্রয়োজন হলো আমি তা বুঝতে পারছি না। এত লোক থাকতে ইলিয়াসকে নিয়ে আমাকে টার্গেট করা- এই লক্ষণটা কিন্তু ভালো না, আমি এটাকে অশুভ লক্ষণ বলে মনে করি।

সরকার ইলিয়াসকে গুম করেনি- এই বক্তব্য সম্পর্কে জানতে চাইলে মির্জা আব্বাস বলেন, আমি বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হয়ে কেন বলব যে,  আমি জানি সরকার জড়িত নয়। আমি কটাক্ষ করে বলেছি। ইট মিনস সরকারই বলুক ইলিয়াস আলী কোথায় আছে? সরকারকেই জবাব দিতে হবে। এই সরকারের সময়ে একজন জলজ্যান্ত ইলিয়াস, একজন তরতাজা ইলিয়াস, সত্যভাষী একজন ইলিয়াস গুম হয়ে যাবে? সরকার জানে না। তাহলে কে করল গুম? আমি এটা বলতে চেয়েছি।আপনারা কি বের করতে পেরেছেন সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড কারা করল? পারেননি। কারা করেছে বলতে পারবেন আপনারা। ইলিয়াস গুম হয়েছে, সালাহউদ্দিন আহমেদকে পাচার করা হয়েছে, আমাদের চৌধুরী আলমকে গুম করা হয়েছে, এরকম আরও হাজার হাজার নেতাকর্মীকে গুম করা হয়েছে। কে করল? তারা হাওয়া হয়ে গেল?

রাজধানীর শাহজাহানপুরে মির্জা আব্বাসের নিজ বাসায় এই সংবাদ সম্মেলনে দলের যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, বিশেষ সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন,কামরুজ্জামান রতন, আবদুস সালাম আজাদ ও কাইয়ুম চৌধুরী উপস্থিত ছিলেন।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন