পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ বহাল রাখার দাবিতে ঢাকায় বিক্ষোভ
jugantor
পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ বহাল রাখার দাবিতে ঢাকায় বিক্ষোভ

  যুগান্তর ডেস্ক  

০৫ জুন ২০২১, ১৯:২৭:৩৩  |  অনলাইন সংস্করণ

পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ বহাল রাখার দাবিতে ঢাকায় বিক্ষোভ

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী বলেছেন, বাংলাদেশের পাসপোর্ট থেকে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ বাদ দিয়ে সরকার সারা বিশ্বের মুসলিমদের কলিজায় আঘাত করেছে। অনতিবিলম্বে বাংলাদেশের পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ পুনর্বহাল করতে হবে।

শনিবার বিকালে রাজধানীর বাইতুল মোকাররমের উত্তর গেটে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের উদ্যোগে ‘পাসপোর্ট থেকে এক্সসেপ্ট ইসরাইল বাদ দেয়ার প্রতিবাদে ও তা সংযোজনের' দাবিতে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিলপূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর একসেপ্ট ইসরাইল বহাল রেখেছিলেন, তার কন্যা শেখ হাসিনা সেই পথ থেকে দূরে সরে গিয়ে ইসরাইলের সঙ্গে সখ্য করার চেষ্টা করছেন। বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে সরকার টিকে থাকতে পারবে না। গোপনে তড়িঘড়ি করে পাসপোর্ট থেকে শব্দ দুটি বাদ দেয়া এবং বাংলাদেশ থেকে কেউ ইসরাইলে গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থার ঘোষণায় প্রমাণ করে সরকার ইসরাইলের সাথে নতুন কোনো সম্পর্ক তৈরি করেছে; যা ইসলাম, দেশ ও মানবতার জন্য হুমকির।

তিনি বলেন, স্বৈরাচারী আচরণের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন ক্ষমতাধর রাষ্ট্রপ্রধানদের করুণ পরিণতি ভোগ করতে হয়েছে। জাতীয় সংসদে ইসরাইলের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব না করে সরকার মুসলমানদের অনুভূতিতে আঘাত করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

প্রিন্সিপাল মাদানী বলেন, সাধারণ দেশপ্রেমিক জনগণকে ধোঁকা দেয়ার জন্য যে খোঁড়া যুক্তি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দিয়েছিল পাসপোর্ট শক্তিশালী করার ব্যাপারে তাতেও সরকারের কর্তাব্যক্তিদের চরম অদক্ষতা, অবিচক্ষণতা ও মূর্খতার বহিঃপ্রকাশ পেয়েছে। যেখানে মালয়েশিয়া-ইন্দোনেশিয়াসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি প্রভাবশালী রাষ্ট্র ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ বহাল রেখেই সারাবিশ্বে বুক ফুলিয়ে চলছে; সেখানে সরকারের ন্যক্কারজনক প্রচেষ্টা অবশ্যই অগ্রহণযোগ্য ও পরিহার করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল ফিলিস্তিনে রিফিউজি হিসেবে থাকার জন্য এসে এখন প্রায় পুরো ফিলিস্তিনকে দখল করে নিয়েছে। আমার দেশের প্রধানমন্ত্রী সংসদে নিন্দা জানিয়েছেন ইসরাইলের এহেন কর্মকাণ্ডের। সেজন্য সারাবিশ্বের মুসলমান তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তবে দেশের পাসপোর্ট থেকে রাতারাতি ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ দুটি মুছে দেয়ার ষড়যন্ত্র দেখে মুসলিম বিশ্ব হতবাক হয়েছে। জানিয়েছে ধিক্কার, করেছে সমালোচনা। আমরা অনতিবিলম্বে পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ দুটির পুনর্বহাল চাই।

সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভপূর্ব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কেএম আতিকুর রহমান, কেন্দ্রীয় ও দাওয়াহ সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা আরিফুল ইসলাম, ডা. শহিদুল ইসলাম, ছাত্রনেতা শরীফুল ইসলাম রিয়াদ,মুফতি ফরিদুল ইসলাম প্রমুখ।

বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেই সমাবেশ শেষে একটি মিছিল বের করেন সংগঠনটির নেতারা। মিছিলটি বায়তুল মোকাররম থেকে পল্টন মোড় হয়ে বিজয়নগর পানির ট্যাংকির সামনে গিয়ে শেষ হয়।

পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ বহাল রাখার দাবিতে ঢাকায় বিক্ষোভ

 যুগান্তর ডেস্ক 
০৫ জুন ২০২১, ০৭:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ বহাল রাখার দাবিতে ঢাকায় বিক্ষোভ
ছবি: সংগৃহীত

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী বলেছেন, বাংলাদেশের পাসপোর্ট থেকে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ বাদ দিয়ে সরকার সারা বিশ্বের মুসলিমদের কলিজায় আঘাত করেছে। অনতিবিলম্বে বাংলাদেশের পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ পুনর্বহাল করতে হবে। 

শনিবার বিকালে রাজধানীর বাইতুল মোকাররমের উত্তর গেটে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের উদ্যোগে ‘পাসপোর্ট থেকে এক্সসেপ্ট ইসরাইল বাদ দেয়ার প্রতিবাদে ও তা সংযোজনের' দাবিতে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ মিছিলপূর্ব সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 

মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী আরও বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর একসেপ্ট ইসরাইল বহাল রেখেছিলেন, তার কন্যা শেখ হাসিনা সেই পথ থেকে দূরে সরে গিয়ে ইসরাইলের সঙ্গে সখ্য করার চেষ্টা করছেন। বিশ্ব মুসলিম উম্মাহর বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে সরকার টিকে থাকতে পারবে না। গোপনে তড়িঘড়ি করে পাসপোর্ট থেকে শব্দ দুটি বাদ দেয়া এবং বাংলাদেশ থেকে কেউ ইসরাইলে গেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থার ঘোষণায় প্রমাণ করে সরকার ইসরাইলের সাথে নতুন কোনো সম্পর্ক তৈরি করেছে; যা ইসলাম, দেশ ও মানবতার জন্য হুমকির। 

তিনি বলেন, স্বৈরাচারী আচরণের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন ক্ষমতাধর রাষ্ট্রপ্রধানদের করুণ পরিণতি ভোগ করতে হয়েছে। জাতীয় সংসদে ইসরাইলের বিরুদ্ধে নিন্দা প্রস্তাব না করে সরকার মুসলমানদের অনুভূতিতে আঘাত করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 

প্রিন্সিপাল মাদানী বলেন, সাধারণ দেশপ্রেমিক জনগণকে ধোঁকা দেয়ার জন্য যে খোঁড়া যুক্তি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় দিয়েছিল পাসপোর্ট শক্তিশালী করার ব্যাপারে তাতেও সরকারের কর্তাব্যক্তিদের চরম অদক্ষতা, অবিচক্ষণতা ও মূর্খতার বহিঃপ্রকাশ পেয়েছে। যেখানে মালয়েশিয়া-ইন্দোনেশিয়াসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি প্রভাবশালী রাষ্ট্র ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ বহাল রেখেই সারাবিশ্বে বুক ফুলিয়ে চলছে; সেখানে সরকারের ন্যক্কারজনক প্রচেষ্টা অবশ্যই অগ্রহণযোগ্য ও পরিহার করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ বলেন, অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইল ফিলিস্তিনে রিফিউজি হিসেবে থাকার জন্য এসে এখন প্রায় পুরো ফিলিস্তিনকে দখল করে নিয়েছে। আমার দেশের প্রধানমন্ত্রী সংসদে নিন্দা জানিয়েছেন ইসরাইলের এহেন কর্মকাণ্ডের। সেজন্য সারাবিশ্বের মুসলমান তাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তবে দেশের পাসপোর্ট থেকে রাতারাতি ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ দুটি মুছে দেয়ার ষড়যন্ত্র দেখে মুসলিম বিশ্ব হতবাক হয়েছে। জানিয়েছে ধিক্কার, করেছে সমালোচনা। আমরা অনতিবিলম্বে পাসপোর্টে ‘এক্সসেপ্ট ইসরাইল’ শব্দ দুটির পুনর্বহাল চাই।  

সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর সভাপতি হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভপূর্ব সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- ঢাকা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি মাওলানা ইমতিয়াজ আলম, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক কেএম আতিকুর রহমান, কেন্দ্রীয় ও দাওয়াহ সম্পাদক মাওলানা আহমদ আবদুল কাইয়ূম, মাওলানা আরিফুল ইসলাম, ডা. শহিদুল ইসলাম, ছাত্রনেতা শরীফুল ইসলাম রিয়াদ,মুফতি ফরিদুল ইসলাম প্রমুখ।

বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেই সমাবেশ শেষে একটি মিছিল বের করেন সংগঠনটির নেতারা। মিছিলটি বায়তুল মোকাররম থেকে পল্টন মোড় হয়ে বিজয়নগর পানির ট্যাংকির সামনে গিয়ে শেষ হয়।  

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন