হেফাজত কি হাটহাজারী থেকে বেরিয়ে এল?
jugantor
হেফাজত কি হাটহাজারী থেকে বেরিয়ে এল?

  হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

০৭ জুন ২০২১, ১৭:৫৭:২৬  |  অনলাইন সংস্করণ

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে ৩৩ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

এবার প্রথম ঢাকায় ঘোষিত হল হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটি। অথচ শুরু থেকেই সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কাউন্সিল থেকে শুরু করে সব ধরণের নীতিগত সিদ্ধান্ত ও কার্যক্রম হেফাজত দূর্গ বলে খ্যাত চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসা থেকে পরিচালিত হত।

নেতাকর্মীরা জানান, বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে সদ্য ঘোষিত ৩৩ সদস্যের আংশিক কমিটিতে হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা আমির প্রয়াত আল্লামা শাহ আহমদ শফীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ মাদানীসহ চট্টগ্রামের ১৪ নেতার ঠাঁই হয়েছে।

হেফাজতের সদ্য ঘোষিত কেন্দ্রীয় কমিটিতে চট্টগ্রামের ১৪ জনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তারা হলেন-সংগঠনটির আমির আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী, নায়েবে আমির মাওলানা সালাহউদ্দীন নানুপুরী (ফটিকছড়ি), মাওলানা ইয়াহইয়া (হাটহাজারী), মাওলানা তাজুল ইসলাম (চট্টগ্রাম), মাওলানা মুফতী জসিমুদ্দীন (হাটহাজারী)। তবে সংগঠনটির বর্তমান মহাসচিব আল্লামা হাফেজ নূরুল ইসলাম জিহাদী ঢাকার স্থায়ী বাসিন্দা হলেও তার পৈত্রিক নিবাস চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলায়।

প্রসঙ্গত, হেফাজতে চলমান অস্থিরতা ও দেশের নাজুক পরিস্থিতির কথা বিবেচনা নিয়ে গত ২৫ এপ্রিল হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ও মহানগর কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেছিল সংগঠনটির বর্তমান আমির আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী।

তারও আগে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা আমির আহমদ শফীর মৃত্যুর পর গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর বাবুনগরীকে আমির ও নুরুল ইসলাম জিহাদীকে মহাসচিব করে ১৫১ সদস্যের কমিটি করা হয়। পরে ওই কমিটি ২০১ সদস্যবিশিষ্ট করা হয়। ওই কমিটিতে আহমদ শফীর ছেলে আনাস মাদানীর অনুসারী হিসেবে পরিচিত নেতাদের কাউকে রাখা হয়নি।

হেফাজত কি হাটহাজারী থেকে বেরিয়ে এল?

 হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
০৭ জুন ২০২১, ০৫:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সব জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে ৩৩ সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করেছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। 

এবার প্রথম ঢাকায় ঘোষিত হল হেফাজত ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটি। অথচ শুরু থেকেই সংগঠনটির কেন্দ্রীয় কাউন্সিল থেকে শুরু করে সব ধরণের নীতিগত সিদ্ধান্ত ও কার্যক্রম হেফাজত দূর্গ বলে খ্যাত চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসা থেকে পরিচালিত হত। 

নেতাকর্মীরা জানান, বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে সদ্য ঘোষিত ৩৩ সদস্যের আংশিক কমিটিতে হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা আমির প্রয়াত আল্লামা শাহ আহমদ শফীর বড় ছেলে মাওলানা ইউসুফ মাদানীসহ চট্টগ্রামের ১৪ নেতার ঠাঁই হয়েছে। 

হেফাজতের সদ্য ঘোষিত কেন্দ্রীয় কমিটিতে চট্টগ্রামের ১৪ জনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। তারা হলেন-সংগঠনটির আমির আল্লামা হাফেজ জুনাইদ বাবুনগরী, নায়েবে আমির মাওলানা সালাহউদ্দীন নানুপুরী (ফটিকছড়ি), মাওলানা ইয়াহইয়া (হাটহাজারী), মাওলানা তাজুল ইসলাম (চট্টগ্রাম), মাওলানা মুফতী জসিমুদ্দীন (হাটহাজারী)। তবে সংগঠনটির বর্তমান মহাসচিব আল্লামা হাফেজ নূরুল ইসলাম জিহাদী ঢাকার স্থায়ী বাসিন্দা হলেও তার পৈত্রিক নিবাস চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলায়। 

প্রসঙ্গত, হেফাজতে চলমান অস্থিরতা ও দেশের নাজুক পরিস্থিতির কথা বিবেচনা নিয়ে গত ২৫ এপ্রিল হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ও মহানগর কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে ৫ সদস্য বিশিষ্ট নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেছিল সংগঠনটির বর্তমান আমির আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী। 

তারও আগে সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা আমির আহমদ শফীর মৃত্যুর পর গত বছরের ২৬ ডিসেম্বর বাবুনগরীকে আমির ও নুরুল ইসলাম জিহাদীকে মহাসচিব করে ১৫১ সদস্যের কমিটি করা হয়। পরে ওই কমিটি ২০১ সদস্যবিশিষ্ট করা হয়। ওই কমিটিতে আহমদ শফীর ছেলে আনাস মাদানীর অনুসারী হিসেবে পরিচিত নেতাদের কাউকে রাখা হয়নি।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : হেফাজতে অস্থিরতা