বিএনপি নেত্রী নিপুণ রায় কারামুক্ত
jugantor
বিএনপি নেত্রী নিপুণ রায় কারামুক্ত

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৮ জুন ২০২১, ১৪:০৭:৪৮  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াই মাসেরও বেশি সময় কারাভোগ করে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরী।

শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে তিনি কেরানীগঞ্জ কারাগার থেকে ছাড়া পান।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও তার শ্বশুর গয়েশ্বর চন্দ্র নিপুণের মুক্তির বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

কারামুক্ত হওয়ার পর তাকে জেলগেটে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান স্থানীয় নেতাকর্মীরা। এরপর তিনি সেখান থেকে ঢাকার বাসার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। এর আগে ১৬ জুন হাইকোর্টে থেকে জামিন পান নিপুণ রায়।

গত ২৮ মার্চ হেফাজতের হরতালের দিন রাজধানীর রায়েরবাজার এলাকা থেকে নিপুণ রায়কে আটক করে সাদা পোশাকের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ ও দলটির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরীর মেয়ে নিপুণ রায় গাড়িতে আগুন দেওয়ার নির্দেশ দিচ্ছেন, সে সময় এমন একটি কল রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তাকে আটক করা হয়। যদিও বিএনপি বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। এরপর নাশকতা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে হাজারীবাগ থানায় মামলা হয়।

বিএনপি নেত্রী নিপুণ রায় কারামুক্ত

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৮ জুন ২০২১, ০২:০৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আড়াই মাসেরও বেশি সময় কারাভোগ করে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুণ রায় চৌধুরী। 

শুক্রবার দুপুর ১টার দিকে তিনি কেরানীগঞ্জ কারাগার থেকে ছাড়া পান। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও তার শ্বশুর গয়েশ্বর চন্দ্র নিপুণের মুক্তির বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।  

কারামুক্ত হওয়ার পর তাকে জেলগেটে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান স্থানীয় নেতাকর্মীরা।  এরপর তিনি সেখান থেকে ঢাকার বাসার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন।  এর আগে ১৬  জুন হাইকোর্টে থেকে জামিন পান নিপুণ রায়।

গত ২৮ মার্চ হেফাজতের হরতালের দিন রাজধানীর রায়েরবাজার এলাকা থেকে নিপুণ রায়কে আটক করে সাদা পোশাকের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।  

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের পুত্রবধূ ও দলটির ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক মন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরীর মেয়ে নিপুণ রায় গাড়িতে আগুন দেওয়ার নির্দেশ দিচ্ছেন, সে সময় এমন একটি কল রেকর্ড সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তাকে আটক করা হয়।  যদিও বিএনপি বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে।  এরপর নাশকতা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে হাজারীবাগ থানায় মামলা হয়। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
আরও খবর