স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক, মুখ খুললেন না বাবুনগরী
jugantor
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক, মুখ খুললেন না বাবুনগরী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৫ জুলাই ২০২১, ২৩:০০:৩৬  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে বৈঠক শেষে কোনো কথা বলেননি হেফাজত আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।

সোমবার (৫ জুলাই) রাত ৮ টা ৩৭ মিনিটে মহাসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদীকে নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ধানমণ্ডির বাসায় প্রবেশ করেন তিনি। রাত ১০ টা ৩০ মিনিটের দিকে বের বের হয়ে যান তারা। তবে বের হওয়ার পরে সাক্ষাতের বিষয়ে কোনো কথা বলেনি হেফাজত নেতারা।

হেফাজত নেতারা ছাড়াও বৈঠকে বিভিন্ন বাহিনীর কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে।

হেফাজত সূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়া, হেফাজত নেতা কর্মীদের মুক্তি, মামলার বিষয়ে আলোচনা হয়।

বৈঠকে অংশ নিতে সোমবার চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় এসেছেন জুনায়েদ বাবুনগরী। বাবুনগরীর সঙ্গে হাটহাজারী থেকে ঢাকায় এসেছেন হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা আমির প্রয়াত আল্লামা আহমদ শফীর সাবেক একান্ত সহকারী মাওলানা শফিউল আলম।

উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে বিক্ষোভ ও সহিংস ঘটনার পর সরকার হেফাজতে ইসলামের বিষয়ে কঠোর অবস্থান নেয়।

এর মধ্যে হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়্যাল রিসোর্টে নারীসহ জনতার হাতে ধরা পড়েন। এতে নতুন করে বিতর্কের মুখে পড়ে হেফাজত।

এরপর সংগঠনটির অন্তত কয়েক ডজন কেন্দ্রীয় নেতা গ্রেফতার হয়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে। এর আগে একাধিকবার হেফাজত নেতারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে গ্রেফতার বন্ধ এবং গ্রেফতার নেতাদের মুক্তির দাবি জানিয়েছেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক, মুখ খুললেন না বাবুনগরী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৫ জুলাই ২০২১, ১১:০০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে বৈঠক শেষে কোনো কথা বলেননি হেফাজত আমির আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী।  
 
সোমবার (৫ জুলাই) রাত ৮ টা ৩৭ মিনিটে মহাসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদীকে নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ধানমণ্ডির বাসায় প্রবেশ করেন তিনি। রাত ১০ টা ৩০ মিনিটের দিকে বের বের হয়ে যান তারা। তবে বের হওয়ার পরে সাক্ষাতের বিষয়ে কোনো কথা বলেনি হেফাজত নেতারা। 

হেফাজত নেতারা ছাড়াও বৈঠকে বিভিন্ন বাহিনীর কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গেছে। 

হেফাজত সূত্রে জানা গেছে,  বৈঠকে কওমি মাদ্রাসা খুলে দেওয়া, হেফাজত নেতা কর্মীদের মুক্তি, মামলার বিষয়ে আলোচনা হয়।

বৈঠকে অংশ নিতে সোমবার চট্টগ্রাম থেকে ঢাকায় এসেছেন জুনায়েদ বাবুনগরী। বাবুনগরীর সঙ্গে হাটহাজারী থেকে ঢাকায় এসেছেন হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা আমির প্রয়াত আল্লামা আহমদ শফীর সাবেক একান্ত সহকারী মাওলানা শফিউল আলম।

উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে বিক্ষোভ ও সহিংস ঘটনার পর সরকার হেফাজতে ইসলামের বিষয়ে কঠোর অবস্থান নেয়।

এর মধ্যে হেফাজতে ইসলামের সাবেক কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে রয়্যাল রিসোর্টে নারীসহ জনতার হাতে ধরা পড়েন। এতে নতুন করে বিতর্কের মুখে পড়ে হেফাজত। 

এরপর সংগঠনটির অন্তত কয়েক ডজন কেন্দ্রীয় নেতা গ্রেফতার হয়েছেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে। এর আগে একাধিকবার হেফাজত নেতারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে গ্রেফতার বন্ধ এবং গ্রেফতার নেতাদের মুক্তির দাবি জানিয়েছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : হেফাজতে অস্থিরতা