‘বিএনপি মহাসচিবের বাইরে চিৎকার করার প্রয়োজন ছিল না’
jugantor
‘বিএনপি মহাসচিবের বাইরে চিৎকার করার প্রয়োজন ছিল না’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৫:০৫:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

‘বিএনপি মহাসচিবের বাইরে চিৎকার করার প্রয়োজন ছিল না’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কথা বলার সুযোগ তো অবারিত ছিল। বিএনপি মহাসচিবের বাইরে চিৎকার করার প্রয়োজন ছিল না। তার সংসদে গিয়ে কথা বলার সুযোগ ছিল। নির্বাচিত হয়েও সংসদে না গিয়ে ফখরুল দ্বিচারিতা করেছেন।

ওবায়দুল কাদের মঙ্গলবার সকালে তার বাসভবনে এক ব্রিফিংয়ে এ মন্তব্য করেন।

সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে বিএনপি নেতারা মনের শান্তি ও স্বস্তি খোঁজেন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, কিন্তু তারা নিজেদের ব্যর্থতা চিহ্নিত করার কোনো উদ্যোগ বা প্রয়াস চালান না।

কর্মী-সমর্থকদের ধাঁধার মধ্যে রেখে নিজেদের ব্যর্থতা আড়াল করতে চায় বিএনপি এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, সার্বক্ষণিক সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে অথচ তারা বলে তাদের কথা বলার সুযোগ নাকি কম আসছে। প্রতিদিন তাদের বক্তব্য পত্রিকায়, ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় আসছে, সংসদের আসন সংখ্যা অনুযায়ী প্রাপ্ত সময়ের বেশি সময় দেওয়া হচ্ছে, তাও বলে কথা নাকি কম দেওয়া হচ্ছে?

‘বিএনপি মহাসচিবের বাইরে চিৎকার করার প্রয়োজন ছিল না’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩:০৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘বিএনপি মহাসচিবের বাইরে চিৎকার করার প্রয়োজন ছিল না’
ফাইল ছবি

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সমালোচনা করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, কথা বলার সুযোগ তো অবারিত ছিল। বিএনপি মহাসচিবের বাইরে চিৎকার করার প্রয়োজন ছিল না।  তার সংসদে গিয়ে কথা বলার সুযোগ ছিল।  নির্বাচিত হয়েও সংসদে না গিয়ে ফখরুল দ্বিচারিতা করেছেন।

ওবায়দুল কাদের মঙ্গলবার সকালে তার বাসভবনে এক ব্রিফিংয়ে এ মন্তব্য করেন। 

সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে বিএনপি নেতারা মনের শান্তি ও স্বস্তি  খোঁজেন উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, কিন্তু  তারা নিজেদের ব্যর্থতা চিহ্নিত করার কোনো উদ্যোগ বা প্রয়াস চালান না।

কর্মী-সমর্থকদের ধাঁধার মধ্যে রেখে নিজেদের ব্যর্থতা আড়াল করতে চায় বিএনপি এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, সার্বক্ষণিক সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে অথচ তারা বলে তাদের কথা বলার সুযোগ নাকি কম আসছে।  প্রতিদিন তাদের বক্তব্য পত্রিকায়, ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় আসছে, সংসদের আসন সংখ্যা অনুযায়ী প্রাপ্ত সময়ের বেশি সময় দেওয়া হচ্ছে, তাও বলে কথা নাকি কম দেওয়া হচ্ছে?
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন