আসামে উচ্ছেদের অভিযোগ নিয়ে যা বলল হেফাজত
jugantor
আসামে উচ্ছেদের অভিযোগ নিয়ে যা বলল হেফাজত

  হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:২৯:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম

ভারতের আসাম রাজ্যে উচ্ছেদের নামে মুসলিমদের ওপর দমন–পীড়ন চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করে এর নিন্দা জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

সোমবার এক বিবৃতিতে সংগঠনটির আমির মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম এক যৌথ বিবৃতিতে এ নিন্দা জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, আসামের দরং জেলার মুসলমানদের কাছে সব ধরনের সরকারি নথিপত্র, দলিল-প্রমাণ ও পরিচয়পত্র থাকা সত্ত্বেও শুধু মন্দিরের পরিধি বাড়ানোর অজুহাতে কিছুদিন ধরে সেখানে দফায় দফায় উচ্ছেদ অভিযান চালানো হচ্ছে। ভেঙে দেওয়া হয়েছে ঘরবাড়ি ও মসজিদ। ভারতে যেভাবে মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হচ্ছে, তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

হেফাজতের বিবৃতিতে বলা হয়, সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে একজন উগ্র হিন্দুকে এক মুসলমানের লাশের উপর তাণ্ডব চালাতে দেখা গেছে। ভারতের মত একটি সেকুলার ও গণতান্ত্রিক দেশে বিশেষ একটি জনগোষ্ঠীর ওপর এমন অমানবিক আচরণ ও দমন-পীড়ন নীতি অপ্রত্যাশিত। ভারতের স্বাধীনতাসহ সব বিষয়ে মুসলিমদের ঐতিহ্য ও অবদানের ইতিহাস কারও অজানা নয়।

এমন জঘন্য ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছেন মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মাওলানা নুরুল ইসলাম।

বিবৃতিতে তারা আরও বলেন, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আমাদের দাবি, অনতিবিলম্বে আসামের মুসলমানদের ওপর দমন–পীড়ন বন্ধ করুন এবং মুসলমানদের ভিটেবাড়ি ফিরিয়ে দিন। এই জঘন্য ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করুন। ভারতীয় মুসলমানদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে এবং তারা যেন সম্পূর্ণ নিরাপত্তার সঙ্গে নির্ভয়ে বসবাস করতে পারে, সে ব্যবস্থা করতে হবে। মুসলমানদের ওপর এমন আঘাত চলতে থাকলে বিশ্ব শান্তিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আমরা মনে করি।

আসামে উচ্ছেদের অভিযোগ নিয়ে যা বলল হেফাজত

 হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:২৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম
মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম। ছবি: যুগান্তর

ভারতের আসাম রাজ্যে উচ্ছেদের নামে মুসলিমদের ওপর দমন–পীড়ন চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করে এর নিন্দা জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

সোমবার এক বিবৃতিতে সংগঠনটির আমির মাওলানা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মহাসচিব মাওলানা নুরুল ইসলাম এক যৌথ বিবৃতিতে এ নিন্দা জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, আসামের দরং জেলার মুসলমানদের কাছে সব ধরনের সরকারি নথিপত্র, দলিল-প্রমাণ ও পরিচয়পত্র থাকা সত্ত্বেও শুধু মন্দিরের পরিধি বাড়ানোর অজুহাতে কিছুদিন ধরে সেখানে দফায় দফায় উচ্ছেদ অভিযান চালানো হচ্ছে। ভেঙে দেওয়া হয়েছে ঘরবাড়ি ও মসজিদ। ভারতে যেভাবে মুসলিম জনগোষ্ঠীর ওপর নির্মম নির্যাতন চালানো হচ্ছে, তা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না।

হেফাজতের বিবৃতিতে বলা হয়, সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে একজন উগ্র হিন্দুকে এক মুসলমানের লাশের উপর তাণ্ডব চালাতে দেখা গেছে। ভারতের মত একটি সেকুলার ও গণতান্ত্রিক দেশে বিশেষ একটি জনগোষ্ঠীর ওপর এমন অমানবিক আচরণ ও দমন-পীড়ন নীতি অপ্রত্যাশিত। ভারতের স্বাধীনতাসহ সব বিষয়ে মুসলিমদের ঐতিহ্য ও অবদানের ইতিহাস কারও অজানা নয়।

এমন জঘন্য ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছেন মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মাওলানা নুরুল ইসলাম।

বিবৃতিতে তারা আরও বলেন, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে আমাদের দাবি, অনতিবিলম্বে আসামের মুসলমানদের ওপর দমন–পীড়ন বন্ধ করুন এবং মুসলমানদের ভিটেবাড়ি ফিরিয়ে দিন। এই জঘন্য ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করুন। ভারতীয় মুসলমানদের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে এবং তারা যেন সম্পূর্ণ নিরাপত্তার সঙ্গে নির্ভয়ে বসবাস করতে পারে, সে ব্যবস্থা করতে হবে। মুসলমানদের ওপর এমন আঘাত চলতে থাকলে বিশ্ব শান্তিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আমরা মনে করি।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন