‘বিদেশে গেলে প্রমাণ হয়ে যাবে খালেদা জিয়াকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে’  
jugantor
‘বিদেশে গেলে প্রমাণ হয়ে যাবে খালেদা জিয়াকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে’  

  বরিশাল ব্যুরো  

০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ২০:১৩:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, আমাকে অনেকে বলেছেন, ফেসবুকে দেখেছি, সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখেছি— খালেদা জিয়াকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে এবং এ কথা আজকে না হোক কালকে সত্যি প্রমাণিত হবে। এই ভয়ে আপনারা (সরকার) তাকে বিদেশে পাঠাচ্ছেন না। বিদেশে গেলে প্রমাণ হয়ে যাবে তাকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে।

বরিশাল জিলা স্কুল মাঠে শুক্রবার বিকালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে বিভাগীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী একটু স্মরণ করে দেখেন কার মুখ থেকে আপনার মুক্তির কথা প্রথম উচ্চারিত হয়েছিল। বেগম খালেদা জিয়া বারবার আপনার মুক্তির কথা বলেছেন। অথচ আজকে আপনি তাকে আটকে রেখেছেন। এই তার প্রতিদান? অমানবিক প্রতিদান দিচ্ছেন আপনি। একটু স্মরণ করে দেখবেন, তখন খালেদা জিয়া ছাড়া কেউ আপনার পক্ষে ছিল না। আপনার দলের লোকজনও আপনার বিরোধিতা করেছেন। আপনার পক্ষে কথা বলেননি।

মির্জা আব্বাস আরও বলেন, এই সরকার চোখেও দেখে না কানেও শোনে না। জনগণের কথা শুনতে চায় না, জনগণ কী চায় তার দামও দেয় না। কারণ তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি। এই সরকার জানে তারা কখনো বাংলাদেশে নির্বাচিত হতে পারবে না।

তিনি বলেন, কিসের ভয় আপনাদের? তবে একটা কথা স্পষ্ট করতে চাই, আপনি ক্ষমতা প্রয়োগ করে বেশি দিন ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না। এ দেশের জনগণ আপনাকে পরিত্যাগ করেছে। আপনি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন। জনগণের সঙ্গে আপনাদের কোনো সম্পর্ক নাই।

মির্জা আব্বাস বলেন, কী আজব একটা দেশ বলেন; এ দেশের তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর মুক্তির জন্য আন্দোলন করতে হয়। অথচ খালেদা জিয়ার স্বামী জিয়াউর রহমান আওয়ামী লীগকে রাজনীতি করার অধিকার দিয়েছেন। আওয়ামী লীগ তো ছিল না। বাকশাল ছিল বাকশাল। জিয়াউর রহমান এসে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে আওয়ামী লীগকে রাজনীতি করার অধিকার দিয়েছেন। বহুদলীয় গণতন্ত্র কায়েম করেছে বেগম খালেদা জিয়া। সেই খালেদা জিয়ার অবদান অস্বীকার করে তাকে জেলে বন্দি করে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। খালেদা জিয়া বরিশালের জন্য অনেক কিছু করেছেন তাই যখন তার মুক্তির জন্য ডাক দেওয়া হবে তখন বরিশালবাসীকে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানান তিনি।

মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান ফারুকের সভাপতিত্বে ও বরিশাল মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মীর জাহিদুল কবির জাহিদের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন- কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সভাপতি শাহজাহান ওমর (বীরউত্তম), কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার, সাংগঠনিক সম্পাদক (বরিশাল বিভাগ) বিলকিস জাহান শিরিন, কেন্দ্রীয় বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম লাবু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক (বরিশাল বিভাগ) আকন কুদ্দুসুর রহমান, কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল হক নান্নু, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম টিপু, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ও সাবেক এমপি নাজিম উদ্দিন আলম, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক মনির হোসেন, জেলা বিএনপির (দক্ষিণ) সাবেক সভাপতি এবায়দুল হক চান, জেলা বিএনপির (উত্তর) সাবেক সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, জেলা বিএনপির (দক্ষিণ) আহ্বায়ক মজিবুর রহমান নান্টু, মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আলী হায়দার বাবুল প্রমুখ।

‘বিদেশে গেলে প্রমাণ হয়ে যাবে খালেদা জিয়াকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে’  

 বরিশাল ব্যুরো 
০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:১৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেছেন, আমাকে অনেকে বলেছেন, ফেসবুকে দেখেছি, সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখেছি— খালেদা জিয়াকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে এবং এ কথা আজকে না হোক কালকে সত্যি প্রমাণিত হবে। এই ভয়ে আপনারা (সরকার) তাকে বিদেশে পাঠাচ্ছেন না। বিদেশে গেলে প্রমাণ হয়ে যাবে তাকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে।

বরিশাল জিলা স্কুল মাঠে শুক্রবার বিকালে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে বিভাগীয় সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী একটু স্মরণ করে দেখেন কার মুখ থেকে আপনার মুক্তির কথা প্রথম উচ্চারিত হয়েছিল। বেগম খালেদা জিয়া বারবার আপনার মুক্তির কথা বলেছেন। অথচ আজকে আপনি তাকে আটকে রেখেছেন। এই তার প্রতিদান? অমানবিক প্রতিদান দিচ্ছেন আপনি। একটু স্মরণ করে দেখবেন, তখন খালেদা জিয়া ছাড়া কেউ আপনার পক্ষে ছিল না। আপনার দলের লোকজনও আপনার বিরোধিতা করেছেন। আপনার পক্ষে কথা বলেননি।

মির্জা আব্বাস আরও বলেন, এই সরকার চোখেও দেখে না কানেও শোনে না। জনগণের কথা শুনতে চায় না, জনগণ কী চায় তার দামও দেয় না। কারণ তারা জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি। এই সরকার জানে তারা কখনো বাংলাদেশে নির্বাচিত হতে পারবে না।  

তিনি বলেন, কিসের ভয় আপনাদের? তবে একটা কথা স্পষ্ট করতে চাই, আপনি ক্ষমতা প্রয়োগ করে বেশি দিন ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না। এ দেশের জনগণ আপনাকে পরিত্যাগ করেছে। আপনি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন। জনগণের সঙ্গে আপনাদের কোনো সম্পর্ক নাই। 

মির্জা আব্বাস বলেন, কী আজব একটা দেশ বলেন; এ দেশের তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রীর মুক্তির জন্য আন্দোলন করতে হয়। অথচ খালেদা জিয়ার স্বামী জিয়াউর রহমান আওয়ামী লীগকে রাজনীতি করার অধিকার দিয়েছেন। আওয়ামী লীগ তো ছিল না। বাকশাল ছিল বাকশাল। জিয়াউর রহমান এসে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে আওয়ামী লীগকে রাজনীতি করার অধিকার দিয়েছেন। বহুদলীয় গণতন্ত্র কায়েম করেছে বেগম খালেদা জিয়া। সেই খালেদা জিয়ার অবদান অস্বীকার করে তাকে জেলে বন্দি করে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। খালেদা জিয়া বরিশালের জন্য অনেক কিছু করেছেন তাই যখন তার মুক্তির জন্য ডাক দেওয়া হবে তখন বরিশালবাসীকে আন্দোলনে নামার আহ্বান জানান তিনি।

মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক মনিরুজ্জামান ফারুকের সভাপতিত্বে ও বরিশাল মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব মীর জাহিদুল কবির জাহিদের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন- কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সভাপতি শাহজাহান ওমর (বীরউত্তম), কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মজিবর রহমান সরোয়ার, সাংগঠনিক সম্পাদক (বরিশাল বিভাগ) বিলকিস জাহান শিরিন, কেন্দ্রীয় বিএনপির স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম লাবু, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক (বরিশাল বিভাগ) আকন কুদ্দুসুর রহমান, কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবুল হক নান্নু, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম টিপু, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ও সাবেক এমপি নাজিম উদ্দিন আলম, কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক মনির হোসেন, জেলা বিএনপির (দক্ষিণ) সাবেক সভাপতি এবায়দুল হক চান, জেলা বিএনপির (উত্তর) সাবেক সভাপতি মেজবাহ উদ্দিন ফরহাদ, জেলা বিএনপির (দক্ষিণ) আহ্বায়ক মজিবুর রহমান নান্টু, মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আলী হায়দার বাবুল প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন