‘কুমিল্লা সিটি নির্বাচনেই ইসি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে’
jugantor
‘কুমিল্লা সিটি নির্বাচনেই ইসি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২১ জুন ২০২২, ২২:৫৭:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সুপ্রীম কোর্টের অ্যাডভোকেট ড. খন্দকার মারুফ হোসেন বলেছেন, গুরুতর অসুস্থ দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দিচ্ছে না বর্তমান সরকার। আ.লীগের দন্ডপ্রাপ্ত নেতা অতিসম্প্রতি বিদেশে উন্নত চিকিৎসা নিয়েছেন। অথচ সরকার ‘দন্ডপ্রাপ্ত অজুহাতে’ বেগম জিয়াকে বিদেশে যেতে দিচ্ছে না। এক দেশে দুই আইন, এটা খুবই অমানবিক।

মানবিক দিক বিবেচনায় এনে অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে বিদেশে সুচিকিৎসা গ্রহণের সুযোগ দিতে সরকারের কাছে দাবি জানান তিনি।

সোমবার বিকালে যুক্তরাজ্যের পূর্ব লন্ডনের ফিল্ডগেট স্ট্রিট মায়েদা ব্যাংকুয়েটিং হলে যুক্তরাজ্য প্রবাসী বৃহত্তর কুমিল্লা জাতীয়তাবাদী পরিবারের আয়োজনে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ‌

গণতন্ত্রের মাতা অসুস্থ খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, তার সুস্থতা ও বাংলাদেশে বন্যায় বিপন্ন মানুষের জন্য দোয়া করতে এই সভার আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মারুফ আরও বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ পরিচয় উপহার দিয়েছেন। ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’র দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলেছেন। বিশ্বে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসে ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে এশিয়ার অর্থনীতিতে নতুন 'ইমার্জিং টাইগার'-এ পরিণত করেছেন। শহীদ জিয়া ও খালেদা জিয়া যেখানে সফল, আ.লীগ নেতারা সেখানে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন।

বিএনপির এই তরুণ নেতা বলেন, এই আ.লীগ তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার জন্য ১৭৩ দিন হরতাল করে দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছিলো। '৯৬ সালে খালেদা জিয়া তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করেছে। এটি এখন জনগণের প্রধান দাবি। এটি আজ প্রমাণিত যে, আ.লীগ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় না। দেশের মানুষ সবাই বলছে, শেখ হাসিনার অধীনে এই দেশে আগামী নির্বাচন হবে না।

তিনি সরকারকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, সংবিধানে সংশোধনী এনে নির্দলীয় তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করুন। তাহলেই কেবল বিএনপিসহ সকল দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটের মাধ্যমে সরকার নির্বাচিত হলে দেশে গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে।

ড. মারুফ হোসেন বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে সম্পূর্ণ অকার্যকর ও ব্যর্থ উল্লেখ করে বলেন, কুমিল্লা সিটি নির্বাচনেই ইসি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে।

‘কুমিল্লা সিটি নির্বাচনেই ইসি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২১ জুন ২০২২, ১০:৫৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সুপ্রীম কোর্টের অ্যাডভোকেট ড. খন্দকার মারুফ হোসেন বলেছেন, গুরুতর অসুস্থ দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার সুযোগ দিচ্ছে না বর্তমান সরকার।  আ.লীগের দন্ডপ্রাপ্ত নেতা অতিসম্প্রতি বিদেশে উন্নত চিকিৎসা নিয়েছেন। অথচ সরকার ‘দন্ডপ্রাপ্ত অজুহাতে’ বেগম জিয়াকে বিদেশে যেতে দিচ্ছে না। এক দেশে দুই আইন, এটা খুবই অমানবিক।  

মানবিক দিক বিবেচনায় এনে অবিলম্বে খালেদা জিয়াকে বিদেশে সুচিকিৎসা গ্রহণের সুযোগ দিতে সরকারের কাছে দাবি জানান তিনি। 

সোমবার বিকালে যুক্তরাজ্যের পূর্ব লন্ডনের ফিল্ডগেট স্ট্রিট মায়েদা ব্যাংকুয়েটিং হলে যুক্তরাজ্য প্রবাসী বৃহত্তর কুমিল্লা জাতীয়তাবাদী পরিবারের আয়োজনে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।  ‌

গণতন্ত্রের মাতা অসুস্থ  খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি, তার সুস্থতা ও বাংলাদেশে বন্যায় বিপন্ন মানুষের জন্য দোয়া করতে এই সভার আয়োজন করা হয়। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে  ড. মারুফ আরও বলেন, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদ পরিচয় উপহার দিয়েছেন। ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’র দেশকে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলেছেন। বিশ্বে মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসে ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যমে দেশকে এশিয়ার অর্থনীতিতে নতুন 'ইমার্জিং টাইগার'-এ পরিণত করেছেন। শহীদ জিয়া ও খালেদা জিয়া যেখানে সফল, আ.লীগ নেতারা সেখানে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন। 

বিএনপির এই তরুণ নেতা বলেন, এই আ.লীগ তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার জন্য ১৭৩ দিন হরতাল করে দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করেছিলো। '৯৬ সালে খালেদা জিয়া তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করেছে। এটি এখন জনগণের প্রধান দাবি। এটি আজ প্রমাণিত যে, আ.লীগ সরকারের অধীনে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয় না। দেশের মানুষ সবাই বলছে, শেখ হাসিনার অধীনে এই দেশে আগামী নির্বাচন হবে না। 

তিনি সরকারকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, সংবিধানে সংশোধনী এনে নির্দলীয় তত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা প্রবর্তন করুন। তাহলেই কেবল বিএনপিসহ সকল দল নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোটের মাধ্যমে সরকার নির্বাচিত হলে দেশে গণতন্ত্র, মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে। 

ড. মারুফ হোসেন বর্তমান নির্বাচন কমিশনকে সম্পূর্ণ অকার্যকর ও ব্যর্থ উল্লেখ করে বলেন, কুমিল্লা সিটি নির্বাচনেই ইসি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন