যারা দিনের ভোট রাতে কাটে তাদের সঙ্গে বিএনপি খেলে না: গয়েশ্বর
jugantor
যারা দিনের ভোট রাতে কাটে তাদের সঙ্গে বিএনপি খেলে না: গয়েশ্বর

  বরিশাল ব্যুরো  

৩০ নভেম্বর ২০২২, ২০:৫০:৫২  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, যারা দিনের ভোট রাতে কাটে তাদের সঙ্গে বিএনপি খেলে না। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিলে দেখা যাবে কত খেলতে পারেন।

বুধবার দুপুরে দেশব্যাপী গায়েবি ও মিথ্যা মামলা, পুলিশি নির্যাতন ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

বিক্ষোভ সমাবেশে গয়েশ্বর আরও বলেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির সমাবেশ পল্টনে হবে। আমরা সমাবেশ করবো পল্টনে কিন্তু অনুমতি দিয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। সঙ্গে শর্ত দিয়েছে ২৬টি। সমাবেশে কোনো জেলার কাউকে দাওয়াত দেওয়া হয়নি। বিএনপি কোনো অবস্থান ধর্মঘট দেয়নি, শুধু দিয়েছি সমাবেশ। বিএনপি কিছু গোপন রাখে না, সরাসরি বলে দেবে কোনদিন কী হবে। ভোটের অধিকার ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পাশাপাশি গুম খুনের বিচার চায় বিএনপি।

এ সময় প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে গয়েশ্বর বলেন, আপনারা একটু পেশাজীবী হন। চাকরির রুলস মেনে চলেন। কদিন পর বেতনের টাকা পাবেন না। পুলিশের এতো ভয় কেন। সরকারের প্রতিনিধিত্ব পরিবর্তন হয়। প্রশাসনের হয় না।

এ সময় আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকার বিএনপির গণসমাবেশ সফল করার আহবান জানান অন্যান্য নেতারা।

মহানগর বিএনপির আহবায়ক মনিরুজ্জামান খান ফারুকের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন- দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান, মাহাবুবুল হক নান্নুসহ কেন্দ্র ও স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা।

যারা দিনের ভোট রাতে কাটে তাদের সঙ্গে বিএনপি খেলে না: গয়েশ্বর

 বরিশাল ব্যুরো 
৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৮:৫০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য বাবু গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, যারা দিনের ভোট রাতে কাটে তাদের সঙ্গে বিএনপি খেলে না। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিলে দেখা যাবে কত খেলতে পারেন।

বুধবার দুপুরে দেশব্যাপী গায়েবি ও মিথ্যা মামলা, পুলিশি নির্যাতন ও গ্রেফতারের প্রতিবাদে বরিশাল জেলা ও মহানগর বিএনপি আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

বিক্ষোভ সমাবেশে গয়েশ্বর আরও বলেন, আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির সমাবেশ পল্টনে হবে। আমরা সমাবেশ করবো পল্টনে কিন্তু অনুমতি দিয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। সঙ্গে শর্ত দিয়েছে ২৬টি। সমাবেশে কোনো জেলার কাউকে দাওয়াত দেওয়া হয়নি। বিএনপি কোনো অবস্থান ধর্মঘট দেয়নি, শুধু দিয়েছি সমাবেশ। বিএনপি কিছু গোপন রাখে না, সরাসরি বলে দেবে কোনদিন কী হবে। ভোটের অধিকার ও সুষ্ঠু নির্বাচনের পাশাপাশি গুম খুনের বিচার চায় বিএনপি।

এ সময় প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে গয়েশ্বর বলেন, আপনারা একটু পেশাজীবী হন। চাকরির রুলস মেনে চলেন। কদিন পর বেতনের টাকা পাবেন না। পুলিশের এতো ভয় কেন। সরকারের প্রতিনিধিত্ব পরিবর্তন হয়। প্রশাসনের হয় না।

এ সময় আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকার বিএনপির গণসমাবেশ সফল করার আহবান জানান অন্যান্য নেতারা।

মহানগর বিএনপির আহবায়ক মনিরুজ্জামান খান ফারুকের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন- দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আকন কুদ্দুসুর রহমান, মাহাবুবুল হক নান্নুসহ কেন্দ্র ও স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতারা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন