বিএনপি নেতা ইশরাকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা
jugantor
বিএনপি নেতা ইশরাকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১৯:৩২:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির ১ নাম্বার সদস্য প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

সোমবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী এ আদেশ দেন।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অপরাধ ও তথ্য বিভাগের এসআই শাহ আলম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মতিঝিল থানার নাশকতার মামলায় ইশরাক হোসেন আদালতে গরহাজির থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

মামলার এজাহার অনুযায়ী, ২০২০ সালের ১২ নভেম্বর রাজধানীর মতিঝিলে অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পুড়িয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় ইশরাকসহ ৪২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ।

আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ওই মামলায় ইশরাক উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়েছিলেন। জামিনের মেয়াদ শেষে তাকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়।

কিন্তু তিনি আত্মসমর্পণ না করায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। গত ৬ এপ্রিল পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠায়। আদালত ইশরাকের জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠান। এরপর ১২ এপ্রিল তিনি আদালত থেকে জামিন পান।

উল্লেখ্য, গতকাল রোববার পুরান ঢাকায় লিফলেট বিতরণ করতে গিয়ে হামলার শিকার হন বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেন। এতে ৩০ জন আহত হন। এ হামলার জন্য জবি ছাত্রলীগকে দায়ী করেন ইশরাক।

বিএনপি নেতা ইশরাকের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির ১ নাম্বার সদস্য প্রকৌশলী ইশরাক হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। 

সোমবার ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট রাজেশ চৌধুরী এ আদেশ দেন। 

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অপরাধ ও তথ্য বিভাগের এসআই শাহ আলম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, মতিঝিল থানার নাশকতার মামলায় ইশরাক হোসেন আদালতে গরহাজির থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

মামলার এজাহার অনুযায়ী, ২০২০ সালের ১২ নভেম্বর রাজধানীর মতিঝিলে অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পুড়িয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। এ ঘটনায় ইশরাকসহ ৪২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে পুলিশ। 

আদালত সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ওই মামলায় ইশরাক উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়েছিলেন। জামিনের মেয়াদ শেষে তাকে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়। 

কিন্তু তিনি আত্মসমর্পণ না করায় আদালত তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। গত ৬ এপ্রিল পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠায়। আদালত ইশরাকের জামিন আবেদন নাকচ করে কারাগারে পাঠান। এরপর ১২ এপ্রিল তিনি আদালত থেকে জামিন পান।

উল্লেখ্য, গতকাল রোববার পুরান ঢাকায় লিফলেট বিতরণ করতে গিয়ে হামলার শিকার হন বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেন। এতে ৩০ জন আহত হন। এ হামলার জন্য জবি ছাত্রলীগকে দায়ী করেন ইশরাক।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন