আদালত নির্ধারিত সময়েই খালেদা জিয়ার আপিল শুনানি চায় দুদক

প্রকাশ : ২৩ জুন ২০১৮, ২০:২৬ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

আদালতের বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যেই খালেদা জিয়ার আপিল শুনানি করতে চায় দুদক। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজার বিরুদ্ধে তার করা আপিল ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হাইকোর্টকে নির্দেশনা দেন আপিল বিভাগ।

গত ১১ জুন আপিল বিভাগের রায়ের অনুলিপি প্রকাশ পায়। কিন্তু সুপ্রিমকোর্টে অবকাশ চলায় আজ হাইকোর্টে আপিল শুনানির দিন ধার্যের আবেদন জানাবেন রাষ্ট্র ও দুদকের আইনজীবী। অন্যদিকে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে আপিল নিষ্পত্তি করতে হবে- এ নির্দেশনা পুনর্বিবেচনা চেয়ে রিভিউ পিটিশনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড  দেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৫। রায়ে বিএনপি চেয়ারপারসন ছাড়াও তারেক রহমানসহ পাঁচজনকে দশ বছরের কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড দেন আদালত। এ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন খালেদা জিয়া। 

আপিলে নিম্ন আদালতের দেয়া সাজা বাতিল করে তাকে বেকসুর খালাস দেয়ার আবেদন জানানো হয়। পাশাপাশি জামিনও চান তিনি। 

গত ১২ মার্চ বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দেন। 

একই সঙ্গে উক্ত সময়ের মধ্যে মামলার পেপারবুক প্রস্তুতের জন্য হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখাকে নির্দেশ দেয়া হয়। ওই জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদক আপিল করে। 

গত ১৬ মে ওই আপিল খারিজ করে দিয়ে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগ খালেদা জিয়ার জামিন বহাল রাখেন। পাশাপাশি সাজার বিরুদ্ধে তার করা আপিল ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে হাইকোর্টকে নির্দেশনা দেন আপিল বিভাগ।

দুদকের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান যুগান্তরকে বলেন, আপিল বিভাগ ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে খালেদা জিয়ার আপিল নিষ্পত্তি করতে হাইকোর্টকে নির্দেশনা দিয়েছেন। সর্বোচ্চ আদালতের এ নির্দেশনা হাইকোর্টের জন্য বাধ্যতামূলক। সেই হিসেবে রোববার কোর্ট খোলার দিনই বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চে খালেদা জিয়ার আপিলসহ মোট চারটি আপিলের ওপর শুনানির দিন ধার্যের জন্য আবেদন জানাব। 

এদিকে আপিল বিভাগের রায়ের এ নির্দেশনা পুনর্বিবেচনা চেয়ে রিভিউ পিটিশন দায়েরের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। খালেদা জিয়ার আইনজীবী প্যানেলের সদস্য অ্যাডভোকেট মাসুদ রানা বলেন, আপিল নিষ্পত্তির জন্য সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত। এ বেঁধে দেয়া সময়সীমার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা চেয়ে রিভিউ করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। রিভিউ দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।