৪ পুলিশ এসে ফখরুলকে বলেন—যেতে হবে, ওপরের নির্দেশ: স্ত্রী
jugantor
৪ পুলিশ এসে ফখরুলকে বলেন—যেতে হবে, ওপরের নির্দেশ: স্ত্রী

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:২৫:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তার উত্তরার বাসা থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে। শুক্রবার সকালে ডিবি প্রধান হারুন অর রশিদ তাকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেন।

মির্জা ফখরুলকে তুলে নেওয়ার বিষয়ে তার স্ত্রী রাহাত আরা বেগম শুক্রবার ভোরে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন। রাতের ঘটনার বর্ণনা দেন তিনি।

তিনি জানান, রাত ১০টা থেকেই ডিবি পুলিশের সদস্যরা বাসার চারদিকে অবস্থান নেয়। এ সময় সড়কের বাতিও নিভিয়ে দেওয়া হয়।

রাহাত আরা বলেন, মির্জা ফখরুল বাসায় এসে ওষুধ খেয়ে ঘুমাতে যান। তার শরীর ভালো যাচ্ছে না। রাত ৩টার দিকে চার পুলিশ সদস্য বাসায় ঢুকে বলেন, স্যার যেতে হবে, ওপরের নির্দেশ।

রাহাত আরা বেগমের দাবি, ডিবি পুলিশ সদস্যরা বাসার নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে বাজে আচরণ করেছে। তাদের চড় থাপ্পর মেরেছে।


রাহাত আরা বেগম সাংবাদিকদের বলেন, চারজন উপরে আসছিলেন। তাদের বসানো হয়েছিল। তারা বলেছেন, তাকে নিয়ে (মির্জা ফখরুল) যাবেন। পরে শুনেছি নিচে দরজা না খোলায় সিকিউরিটি গার্ডকে চড় থাপ্পড় মারা হয়েছে।

তিনি বলেন, এটা নিয়ে এর আগেও আমাদের অনেক অভিজ্ঞতা আছে। এর আগে তারা এসেছেন। স্যার (মির্জা ফখরুল) হয় তো বাসায় ছিলেন না। তখন তারা এসে ভেতরে ঢুকেছেন।

কেন বিএনপি মহাসচিবকে নেওয়া হয়েছে সে বিষয়ে তারা কিছু বলেছেন কিনা- জানতে চাইলে ফখরুলপত্নী বলেন, কাল পরশুর মধ্যে তার (মির্জা ফখরুল) বিরুদ্ধে নাকি দুই তিনটা মামলা হয়েছে। আপনারা কেন এসেছেন- জানতে চাইলে তারা স্যারকে (মির্জা ফখরুল) বলেন, তারা উপরের নির্দেশে তাকে নিয়ে যাচ্ছেন। তবে কার নির্দেশে নিয়ে যাচ্ছেন সেটা তারা বলেন নাই।

রাহাত আরা বেগম আরও বলেন, যে কাপড় পরে ছিলেন সেভাবেই গেছেন ফখরুল। যাওয়ার সময় টুকটাক ওষুধ নিয়ে চলে গেছেন। তারা আসছেন তিনটার মধ্যে, সাড়ে ৩টার মধ্যে বের হয়ে গেছেন।

চলে যাওয়ার পর স্বামীর সঙ্গে আর কোনো যোগাযোগ হয়নি বলে জানান রাহাত আরা বেগম।

৪ পুলিশ এসে ফখরুলকে বলেন—যেতে হবে, ওপরের নির্দেশ: স্ত্রী

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তার উত্তরার বাসা থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে। শুক্রবার সকালে ডিবি প্রধান হারুন অর রশিদ তাকে ডিবি কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেন।

মির্জা ফখরুলকে তুলে নেওয়ার বিষয়ে তার স্ত্রী রাহাত আরা বেগম শুক্রবার ভোরে গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন। রাতের ঘটনার বর্ণনা দেন তিনি।

তিনি জানান, রাত ১০টা থেকেই ডিবি পুলিশের সদস্যরা বাসার চারদিকে অবস্থান নেয়। এ সময় সড়কের বাতিও নিভিয়ে দেওয়া হয়। 

রাহাত আরা বলেন, মির্জা ফখরুল বাসায় এসে ওষুধ খেয়ে ঘুমাতে যান। তার শরীর ভালো যাচ্ছে না। রাত ৩টার দিকে চার পুলিশ সদস্য বাসায় ঢুকে বলেন, স্যার যেতে হবে, ওপরের নির্দেশ। 

রাহাত আরা বেগমের দাবি, ডিবি পুলিশ সদস্যরা বাসার নিরাপত্তাকর্মীদের সঙ্গে বাজে আচরণ করেছে। তাদের চড় থাপ্পর মেরেছে। 


রাহাত আরা বেগম সাংবাদিকদের বলেন, চারজন উপরে আসছিলেন। তাদের বসানো হয়েছিল। তারা বলেছেন, তাকে নিয়ে (মির্জা ফখরুল) যাবেন। পরে শুনেছি নিচে দরজা না খোলায় সিকিউরিটি গার্ডকে চড় থাপ্পড় মারা হয়েছে। 

তিনি বলেন, এটা নিয়ে এর আগেও আমাদের অনেক অভিজ্ঞতা আছে। এর আগে তারা এসেছেন। স্যার (মির্জা ফখরুল) হয় তো বাসায় ছিলেন না। তখন তারা এসে ভেতরে ঢুকেছেন। 

কেন বিএনপি মহাসচিবকে নেওয়া হয়েছে সে বিষয়ে তারা কিছু বলেছেন কিনা- জানতে চাইলে ফখরুলপত্নী বলেন, কাল পরশুর মধ্যে তার (মির্জা ফখরুল) বিরুদ্ধে নাকি দুই তিনটা মামলা হয়েছে। আপনারা কেন এসেছেন- জানতে চাইলে তারা স্যারকে (মির্জা ফখরুল) বলেন, তারা উপরের নির্দেশে তাকে নিয়ে যাচ্ছেন। তবে কার নির্দেশে নিয়ে যাচ্ছেন সেটা তারা বলেন নাই। 

রাহাত আরা বেগম আরও বলেন, যে কাপড় পরে ছিলেন সেভাবেই গেছেন ফখরুল। যাওয়ার সময় টুকটাক ওষুধ নিয়ে চলে গেছেন। তারা আসছেন তিনটার মধ্যে, সাড়ে ৩টার মধ্যে বের হয়ে গেছেন। 

চলে যাওয়ার পর স্বামীর সঙ্গে আর কোনো যোগাযোগ হয়নি বলে জানান রাহাত আরা বেগম।  

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন