চূড়ান্ত লড়াইয়ের সময় এসে গেছে: মান্না
jugantor
চূড়ান্ত লড়াইয়ের সময় এসে গেছে: মান্না

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫:৩৭:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, সরকার ফ্যাসিবাদী আচরণের সব সীমা অতিক্রম করেছে। চূড়ান্ত লড়াইয়ের সময় এসে গেছে। এই লড়াইয়ে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত।

শুক্রবার দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাকিব আনোয়ার স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে এসব কথা বলেন তিনি।

মান্না বলেন, বিরোধী রাজনৈতিক শক্তিকে দমনের জন্য সরকার সর্বশক্তি নিয়োগ করেছে। সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে রাজনৈতিক শিষ্ঠাচারবহির্ভূত এবং অসাংবিধানিক বক্তব্য দেওয়া হচ্ছে। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে গুলি করে, হামলা করে তারা দেশকে অস্থিতিশীল করে তুলেছে। অবৈধ ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে সরকার শেষ চেষ্টা করছে। তারাও জানে সময় ফুরিয়ে এসেছে।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসকে আটক করার প্রতিবাদ জানিয়ে গণতন্ত্র মঞ্চের এই শীর্ষ নেতা বলেন, হামলা, মামলা, গ্রেফতার করে গণঅভ্যুত্থান ঠেকানো যাবে না। অবিলম্বে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ বিএনপি এবং গণতন্ত্র মঞ্চের নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবি করেন তিনি।

সরকারের প্রতি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে মান্না বলেন, বিদায় নেওয়ার জন্য প্রস্তুত হন। পদত্যাগ করে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন। অন্যথায় জনগণ রাজপথে ফয়সালা করবে। গত ১৪ বছর ধরে যে জনগণের সব অধিকার হরণ করেছেন, সিদ্ধান্ত এখন সেই জনগণের হাতে৷

জনগণের উদ্দেশ্যে মান্না বলেন, আমাদের ভয় পাবার কিছু নেই। ভয় পেয়েছে স্বৈরাচার সরকার। যে যেখানে আছেন, সেখান থেকেই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। দলমত নির্বিশেষে সব বিরোধী রাজনৈতিক দল এবং গণতন্ত্রকামী জনগণকে ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি।

চূড়ান্ত লড়াইয়ের সময় এসে গেছে: মান্না

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৩:৩৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, সরকার ফ্যাসিবাদী আচরণের সব সীমা অতিক্রম করেছে। চূড়ান্ত লড়াইয়ের সময় এসে গেছে। এই লড়াইয়ে আমাদের বিজয় সুনিশ্চিত। 

শুক্রবার দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সাকিব আনোয়ার স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে এসব কথা বলেন তিনি। 

মান্না বলেন, বিরোধী রাজনৈতিক শক্তিকে দমনের জন্য সরকার সর্বশক্তি নিয়োগ করেছে। সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে রাজনৈতিক শিষ্ঠাচারবহির্ভূত এবং অসাংবিধানিক বক্তব্য দেওয়া হচ্ছে। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে গুলি করে, হামলা করে তারা দেশকে অস্থিতিশীল করে তুলেছে। অবৈধ ক্ষমতা টিকিয়ে রাখতে সরকার শেষ চেষ্টা করছে। তারাও জানে সময় ফুরিয়ে এসেছে।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসকে আটক করার প্রতিবাদ জানিয়ে গণতন্ত্র মঞ্চের এই শীর্ষ নেতা বলেন, হামলা, মামলা, গ্রেফতার করে গণঅভ্যুত্থান ঠেকানো যাবে না। অবিলম্বে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ বিএনপি এবং গণতন্ত্র মঞ্চের নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবি করেন তিনি। 

সরকারের প্রতি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে মান্না বলেন, বিদায় নেওয়ার জন্য প্রস্তুত হন। পদত্যাগ করে অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন। অন্যথায় জনগণ রাজপথে ফয়সালা করবে। গত ১৪ বছর ধরে যে জনগণের সব অধিকার হরণ করেছেন, সিদ্ধান্ত এখন সেই জনগণের হাতে৷ 

জনগণের উদ্দেশ্যে মান্না বলেন, আমাদের ভয় পাবার কিছু নেই। ভয় পেয়েছে স্বৈরাচার সরকার। যে যেখানে আছেন, সেখান থেকেই প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। দলমত নির্বিশেষে সব বিরোধী রাজনৈতিক দল এবং গণতন্ত্রকামী জনগণকে ঐক্যবদ্ধভাবে সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান তিনি। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন