কোটা নিয়ে প্রতিনিয়ত প্রতারণা করছেন প্রধানমন্ত্রী: খসরু

প্রকাশ : ০৩ জুলাই ২০১৮, ১৯:৪৩ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। ফাইল ছবি

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, কোটা সংস্কারের দাবিতে যখন গোটা বাংলাদেশ জেগে উঠেছে তখন সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী সব কোটাব্যবস্থা বাতিল করে দিলেন। যদি কেউ পবিত্র সংসদে দাঁড়িয়ে কোনো সিদ্ধান্ত নেয়, সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা তার দায়িত্ব। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী ছাত্রদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে।
 
মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক যুব সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন। 

‘কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের পৈশাচিক হামলার প্রতিবাদ এবং অবিলম্বে কোটা পদ্ধতি বাতিলের দাবিতে’ সমাবেশের আয়োজন করে বাংলাদেশ ইয়ূথ ফোরাম। 
সংগঠনটির উপদেষ্টা কৃষিবিদ মেহেদী হাসান পলাশের সভাপতিত্বে ও মুহাম্মদ সাইদুর রহমানের সঞ্চালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমাতুল্লাহ, খালেদা ইয়াসমিন প্রমুখ।

আমির খসরু বলেন, ছাত্ররা আন্দোলন করেছে কোটা সংস্কারের জন্য যাতে করে বাংলাদেশের আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ উন্মুক্ত থাকে। আজকে কোটা নাম দিয়ে কিছু সীমিত মানুষের কাছে চাকরি কারাবদ্ধ হয়ে আছে। মেধার ভিত্তিতে চাকরি অর্থাৎ দেশ পরিচালনার সুযোগ থেকেই মূলত কোটা সংস্কারের বিষয়টি উঠে এসেছে।

তিনি বলেন, আমরা দেখেছি ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে সব আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকায় ছিল ছাত্র সমাজ। যে ছাত্রসমাজ ১/১১ সময় সামরিক শাসনকালে তাদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। সেই ছাত্র সমাজ আজকে একটি সন্ত্রাসী দলের নিপীড়ন-নির্যাতনের শিকার হচ্ছে। তাই এই দলটিকে আন্তর্জাতিকভাবে সন্ত্রাসী দল হিসেবে পরিচিত করা উচিত। তাদের নির্যাতন-নিপীড়ন আজকে বাংলাদেশের সব মানুষ নীরবে কাঁদছে। 

আমির খসরু বলেন, যেভাবে সরকারি দলের লোকজন দিবালোকে ছাত্রদের ওপর হামলা চালিয়ে যাচ্ছে তা অবিশ্বাস্য। ছাত্রসমাজ আন্দোলন করছে একটি মেধাবী বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে। এই ছাত্রসমাজ আন্দোলন করছে কোটা সংস্কারের মাধ্যমে আগামীর মেধাবীরা যেন বাংলাদেশ পরিচালনায় অংশগ্রহণ করতে পারে। 

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে সরকারি শিক্ষার মান কোন অবস্থায় নেমে এসেছে সবাই জানে। সারা দেশে সব প্রশ্নপত্র ফাঁস এবং দলীয়কণের কারণে শিক্ষাব্যবস্থা আজ তলানিতে চলে আসছে। মেধাহীন শিক্ষাব্যবস্থা বাংলাদেশে চলছে।