কোটা আন্দোলনকারীদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সহানুভূতি চান রওশন

প্রকাশ : ১২ জুলাই ২০১৮, ২১:০৮ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

ফাইল ছবি

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীদের সহানুভূতির দৃষ্টিতে দেখতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

বৃহস্পতিবার সংসদের বাজেট অধিবেশনের সমাপনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি এই আহ্বান জানান বিরোধীদলীয় নেতা।

রওশন বলেন, কোটা নিয়ে শিক্ষার্থীদের মধ্যে অনেক বিভ্রান্তি দেখা যাচ্ছে। শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছে। তারা তো আমাদের সন্তান। তারা তো আবদার করবেই। তারা তো চাকরি চাইবে। তাদের চাকরিতে যেমন করে হোক, প্রোভাইড করতে হবে। চাকরি দিতে হবে। 

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে সচেতন আছেন চেষ্টা করছেন। স্পিকারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করব, তিনি যেন সহানুভূতির দৃষ্টি নিয়ে এই বিষয়টি বিবেচনা করেন।

চলতি অধিবেশনের বাজেট বক্তৃতাতেও প্রধানমন্ত্রীর প্রতি একই আহ্বান জানিয়েছিলেন জাতীয় পার্টির জ্যেষ্ঠ কো-চেয়ারম্যান রওশন।

চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা নিয়ে রওশন বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে বলব, চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমার বিষয়টি সহানুভূতির সঙ্গে বিবেচনা করবেন। তিনি দেশকে ভালোবাসেন। জাতিকে ভালোবাসেন। তিনি এটা পারবেন। তিনি না করে পারবেন না।

বাজেট প্রসঙ্গে রওশন বলেন, বাজেটে ব্যাংক লুটপাটকারীদের কর কমানো হয়েছে। ব্যাংক খাতে লুটপাট চলছে। মানুষের করের টাকায় দিতে হচ্ছে। সুশাসন প্রতিষ্ঠার কোনো বিকল্প নেই। ব্যাংক খাতের নৈরাজ্য বন্ধ করতে হলে সংস্কারের কোনো বিকল্প নেই। ১৬ লাখ মানুষ ব্যাংক হিসাব বন্ধ করে দিয়েছে।

রাজধানীর যানজট প্রসঙ্গে রওশন বলেন, ‘রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী চলাচল করলে রাস্তা বন্ধ রাখা হয়। রাস্তায় যানজট ছাড়তে ছাড়তে রাত হয়ে যায়। অন্য রাস্তায় যাওয়াই যায় না। বৃষ্টিতে সব রাস্তা ভাঙা। কেউ বলে না সাহস করে। এখানে যারা আছেন, সবাই জানেন। কিন্তু কারও সাহস নেই বলার। সবাই যানজটে নাকাল থাকে।’

খাদ্যে ভেজালের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অনুযোগ করে বলেন, যতবারই বলি প্রধানমন্ত্রী হেসে উড়িয়ে দেন। হেসে উড়িয়ে দেয়ার কথা না। ডিজিটাল বাংলাদেশ কীভাবে গড়বেন? আবহাওয়া পর্যন্ত দূষিত। নদী ভালো রাখেনি। আবহাওয়ায় সীসা। এগুলো দেখতে হবে।

অর্থবছর পরিবর্তনের দাবি করে রওশন বলেন, অর্থবছর পবিবর্তনের কথা বলতে চাই। ব্রিটেনে অর্থবছর শুরু হয় এপ্রিল মাসে। যুক্তরাষ্ট্রে অক্টোবরে। বাংলাদেশের আবহাওয়া অনুযায়ী জানুয়ারি-এপ্রিল মাসে হতে পারে। যখন অর্থছাড় শুরু হয় বৃষ্টি আসে। কাজ ঠিকমতো করতে পারি না। অর্থবছর পরিবর্তনের বিষয়ে সবাই বিবেচনা করবেন।