‘নির্বাচনী এলাকার নেতাকর্মীদের অন্য জেলায় চালান দেয়া হচ্ছে’

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৮ জুলাই ২০১৮, ২১:২১ | অনলাইন সংস্করণ

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন
ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন অভিযোগ করেছেন, তিন সিটিতে সরকার খুলনা-গাজীপুর মডেলে ভোট করতে চাচ্ছে। তারা স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশকে ব্যবহার করে ভোট ছিনতাই করতে যাচ্ছে। ডাকাতি করে ভোট নিয়ে যাওয়ার জন্য সব প্রস্তুতি নিয়েছে।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় শনিবার ড. মোশাররফ এ কথা বলেন। ‘সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকারের দাবি’তে এ সভার আয়োজন করে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ-ভাসানী)। দলের সভাপতি আজহারুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য দেন এনপিপির ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, লেবার পার্টির একাংশের মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, বিএনপির জহিরউদ্দিন স্বপন, জাগপার খোন্দকার লুৎফর রহমান, সাম্যবাদী দলের সাঈদ আহমেদ, ইসলামী ঐক্যজোটের শওকত আমীন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহিউদ্দিন ইকরাম প্রমুখ।

ড. মোশাররফ বলেন, তিন সিটিতে আওয়ামী লীগ জয় ছিনিয়ে নিতে চায়। ইতিমধ্যে প্রশাসনের ব্যবহারে সেটা স্পষ্ট হয়ে উঠছে। ধানের শীষের প্রার্থীর পক্ষে ভোট কেন্দ্রে যেসব এজেন্ট নিয়োগ দেয়া হয়েছে তাদের ভয় দেখিয়ে, হুমকি দিয়ে বাড়ি ছাড়া করা হচ্ছে। বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করার ক্ষেত্রে আদালত ও ইসির নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা মানছে না পুলিশ। গ্রেফতার করে অন্য জেলায় তাদের চালান দেয়া হচ্ছে।

এ বিএনপি নেতা বলেন, আমরা এই তিন নির্বাচনে দেখতে চাই জনগণ নিজের হাতে ভোট দিতে পারে কিনা। এটার মাধ্যমে এই সরকারের যে কুৎসিত চেহারা তা জনগণের কাছে উন্মোচিত হবে। এ সরকারের অধীনে যে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়- এটা তিন সিটি নির্বাচনের পরে জনগণ চুড়ান্তভাবে বুঝে ফেলবে। সেই প্রেক্ষাপটে তারা সিদ্ধান্ত নেবে।

জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যখন অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হয় তখন সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রয়োজন হয়। আমাদের সুশীল সমাজ, প্রতিবেশী রাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ সবাই চায় একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন। তা নিশ্চিত করতে হলে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। কারণ খালেদা জিয়া ও ২০ দলের অংশগ্রহণ ছাড়া বাংলাদেশে কোনো অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন হতে পারে না।

কয়লা উধাও প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কয়েক লাখ টন কয়লা উধাও হয়ে গেল। এটা তো ব্রিফকেসে করে নিয়ে যাওয়ার মতো জিনিস নয়। প্রধানমন্ত্রী এই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী। তিনি ও প্রতিমন্ত্রী কেউ এ বিষয়ে কোনো কথা বলছেন না। এর মানে হল- তাদের মধ্যে কোনো চেইন অব কমান্ড নেই।

ঘটনাপ্রবাহ : রাজশাহী-বরিশাল-সিলেট সিটি নির্বাচন ২০১৮

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter