কুমিল্লার মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে আদেশ রোববার

প্রকাশ : ০৯ আগস্ট ২০১৮, ১৮:৪৭ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

ফাইল ছবি

 

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বাসে বোমা হামলার ঘটনায় বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া ছয় মাসের জামিনের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের ওপর শুনানি শেষ হয়েছে। 

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগ এ বিষয়ে আদেশের জন্য রোববার দিন ধার্য করেন।

গত সোমবার বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দেন। 

এর বিরুদ্ধে আবেদনের পর মঙ্গলবার চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী আবেদনটি পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠিয়েদেন। আদালতে খালেদার পক্ষে আইনজীবী ছিলেন এ জে মোহাম্মদ আলী ও ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজার বিরুদ্ধে আপিল শুনানি

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় পাঁচ বছরের সাজার বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার ১৩তম দিনে খালেদা জিয়ার পক্ষে আপিল শুনানি করেন এ জে মোহাম্মদ আলী, আব্দুর রেজাক খান। সঙ্গে ছিলেন জয়নুল আবেদীন, মাহবুব উদ্দিন খোকন, কায়সার কামাল, এহসানুর রহমান ও মাসুদ রানা। 

দুদকের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। বৃহস্পতিবার মামলার রায় থেকে রাষ্ট্রপক্ষের যুক্তি পড়ে শুনান আইনজীবীরা। 

এহসান বলেন, আজ খালেদা জিয়ার আপিল শুনানিতে পেপারবুক থেকে উপস্থাপন করা হয়েছে। আদালত রোববার সাড়ে ১০টা পর্যন্ত শুনানি মুলতবি করেছেন। বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে শুনানি চলছে।

নড়াইলে মানহানি মামলায় হাইকোর্টে জামিন আবেদন

স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে বিতর্কিত বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে নড়াইলে করা মানহানি মামলায় হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেছেন খালেদা জিয়া।

বিচারপতি মুহাম্মদ আবদুল হাফিজ ও বিচারপতি কাশেফা হোসেনের আদালতে এ আবেদনের ওপর রোববার শুনানি হতে পারে। খালেদা জিয়ার পক্ষে ব্যারিস্টার কায়সার কামাল এ আবেদনটি করেন বলে জানিয়েছেন। 

জামিন আবেদনের পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার এ কে এম এহসানুর রহমান জানান, গত ৫ আগস্ট নড়াইলের জেলা ও দায়রা জজ খালেদা জিয়ার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছিলেন। বৃহস্পতিবার হাইকোর্টে জামিন আবেদনটি করা হয়েছে। এখন সংশ্লিষ্ট আদালতে এ আবেদনের ওপর শুনানি হতে পারে।