‘বিএনপি বড় বড় মাফিয়াদের সঙ্গে বৈঠক করে ষড়যন্ত্র করছে’
jugantor
‘বিএনপি বড় বড় মাফিয়াদের সঙ্গে বৈঠক করে ষড়যন্ত্র করছে’

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৮:২৮:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

পানি সম্পদ উপমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম বলেছেন, বিএনপি আন্দোলনে ব্যর্থ, নির্বাচনে ব্যর্থ। তাদের সঙ্গে জনগণ নেই। তাই তারা দেশে এবং বিদেশে বসে বিশ্বের বড় বড় মাফিয়া চক্রের সঙ্গে বৈঠক করে ষড়যন্ত্র করছে। তারা যত ষড়যন্ত্রই করুক, সফল হবে না। কারণ দেশের ১৬ কোটি জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আছে।

শুক্রবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচিতে তিনি এসব কথা বলেন।

এনামুল হক শামীম বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হচ্ছেন মানবতার মা। এতিমের টাকা মেরে খাওয়া সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে জামিনের দ্বিতীয় মেয়াদ বাড়িয়ে দিয়েছেন। আর খালেদা জিয়া এবং তার ছেলে বিদেশে বসে বিশ্ব মাফিয়াদের সঙ্গে তারেক রহমান সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করছে। তারেক রহমানরা যতই ষড়যন্ত্র করুক কোনো লাভ হবে না। সব ষড়যন্ত্রের জাল ভেদ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাবেই।

করোনাকালে সাংবাদিকরাও মানবিক কাজ করছেন উল্লেখ করে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী বলেন, করোনার সময় ইউরোপ, আমেরিকা, কানাডার মতো শক্তিশালী দেশগুলো যখন হিমশিম খাচ্ছে তখন জননেত্রী শেখ হাসিনার সঠিক নেতৃত্বে আমাদের অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, চিকিৎসক, নার্সসহ সাংবাদিকরাও মানবিক কাজ করছেন। সাংবাদিকরা যে মানবিক কাজ করছেন- ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি তার প্রমাণ করে।

তিনি বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিক বান্ধব প্রধানমন্ত্রী। অন্য পেশার মানুষের পাশাপাশি করোনাকালে সাংবাদিকদের প্রণোদনা দিয়েছেন। এটা বাংলাদেশে বিরল ঘটনা। অসুস্থ সাংবাদিকদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন প্রধানমন্ত্রী।

গঠনমূলক সমালোচনা করার আহ্বান জানিয়ে এনামুল হক শামীম বলেন, সাংবাদিকদের সবাই আওয়ামী লীগমনা হবেন- এমনটা যেমন ঠিক না, তেমনি বিএনপি বা অন্যমনা হবেন এটাও ঠিক না। সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে সঠিক ও গঠনমূলক সমালোচনা করবেন। সত্যকে তুলে ধরবেন। আমরা যদি কোনো ভুল করি তা দেখিয়ে দেবেন। কিন্তু সমালোচনার জন্য সমালোচনা করবেন না।

ছাত্রলীগের সাবেক এই সভাপতি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে যেমন বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না, তেমনি জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্ম না হলে বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কাউকে পাওয়া যেত না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজকে বিশ্বের রোল মডেল।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদের কারণে আজকে বাংলাদেশ ডিজিটাল হয়েছে জানিয়ে এনামুল হক শামীম বলেন, আমরা এখন বাসা থেকেই অফিস করতে পারি। আবার অ্যাপসের মাধ্যমে কোথায় কী হচ্ছে, কোথায় কী করা দরকার তা জানতে পারছি। আমরা এখন মহাকাশ জয় করেছি।

তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার কারণেই ছাত্র রাজনীতির গুণগত পরিবর্তন এসেছিল। খালেদা জিয়া ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছিল, আজকের প্রধানমন্ত্রী ছাত্রদের হাতে বই ও কলম খাতা তুলে দিয়ে বলেছিলেন, শুধু ভালো ছাত্রনেতা হলে চলবে না। ভালো ছাত্র হতে হবে আগে।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন- রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির জাফর সিকদার, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মো. রিয়াজ চৌধুরী, জনকল্যাণ সম্পাদক খালিদ সাইফুল্লাহ প্রমুখ। এ সময় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিব রহমান উপস্থিত ছিলেন।

‘বিএনপি বড় বড় মাফিয়াদের সঙ্গে বৈঠক করে ষড়যন্ত্র করছে’

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

পানি সম্পদ উপমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম বলেছেন, বিএনপি আন্দোলনে ব্যর্থ, নির্বাচনে ব্যর্থ। তাদের সঙ্গে জনগণ নেই। তাই তারা দেশে এবং বিদেশে বসে বিশ্বের বড় বড় মাফিয়া চক্রের সঙ্গে বৈঠক করে ষড়যন্ত্র করছে। তারা যত ষড়যন্ত্রই করুক, সফল হবে না। কারণ দেশের ১৬ কোটি জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আছে।

শুক্রবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচিতে তিনি এসব কথা বলেন।

এনামুল হক শামীম বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হচ্ছেন মানবতার মা। এতিমের টাকা মেরে খাওয়া সাজাপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে জামিনের দ্বিতীয় মেয়াদ বাড়িয়ে দিয়েছেন। আর খালেদা জিয়া এবং তার ছেলে বিদেশে বসে বিশ্ব মাফিয়াদের সঙ্গে তারেক রহমান সরকার পতনের ষড়যন্ত্র করছে। তারেক রহমানরা যতই ষড়যন্ত্র করুক কোনো লাভ হবে না। সব ষড়যন্ত্রের জাল ভেদ করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাবেই।

করোনাকালে সাংবাদিকরাও মানবিক কাজ করছেন উল্লেখ করে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী বলেন, করোনার সময় ইউরোপ, আমেরিকা, কানাডার মতো শক্তিশালী দেশগুলো যখন হিমশিম খাচ্ছে তখন জননেত্রী শেখ হাসিনার সঠিক নেতৃত্বে আমাদের অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী, চিকিৎসক, নার্সসহ সাংবাদিকরাও মানবিক কাজ করছেন। সাংবাদিকরা যে মানবিক কাজ করছেন- ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি তার প্রমাণ করে।

তিনি বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাংবাদিক বান্ধব প্রধানমন্ত্রী। অন্য পেশার মানুষের পাশাপাশি করোনাকালে সাংবাদিকদের প্রণোদনা দিয়েছেন। এটা বাংলাদেশে বিরল ঘটনা। অসুস্থ সাংবাদিকদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন প্রধানমন্ত্রী। 

গঠনমূলক সমালোচনা করার আহ্বান জানিয়ে এনামুল হক শামীম বলেন, সাংবাদিকদের সবাই আওয়ামী লীগমনা হবেন- এমনটা যেমন ঠিক না, তেমনি বিএনপি বা অন্যমনা হবেন এটাও ঠিক না। সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে সঠিক ও গঠনমূলক সমালোচনা করবেন। সত্যকে তুলে ধরবেন। আমরা যদি কোনো ভুল করি তা দেখিয়ে দেবেন। কিন্তু সমালোচনার জন্য সমালোচনা করবেন না। 

ছাত্রলীগের সাবেক এই সভাপতি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম না হলে যেমন বাংলাদেশ স্বাধীন হতো না, তেমনি জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্ম না হলে বঙ্গবন্ধুবিহীন বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে কাউকে পাওয়া যেত না। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজকে বিশ্বের রোল মডেল।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র সজীব ওয়াজেদের কারণে আজকে বাংলাদেশ ডিজিটাল হয়েছে জানিয়ে এনামুল হক শামীম বলেন, আমরা এখন বাসা থেকেই অফিস করতে পারি। আবার অ্যাপসের মাধ্যমে কোথায় কী হচ্ছে, কোথায় কী করা দরকার তা জানতে পারছি। আমরা এখন মহাকাশ জয় করেছি। 

তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার কারণেই ছাত্র রাজনীতির গুণগত পরিবর্তন এসেছিল। খালেদা জিয়া ছাত্রদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়েছিল, আজকের প্রধানমন্ত্রী ছাত্রদের হাতে বই ও কলম খাতা তুলে দিয়ে বলেছিলেন, শুধু ভালো ছাত্রনেতা হলে চলবে না। ভালো ছাত্র হতে হবে আগে।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি রফিকুল ইসলাম আজাদের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন- রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির জাফর সিকদার, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মো. রিয়াজ চৌধুরী, জনকল্যাণ সম্পাদক খালিদ সাইফুল্লাহ প্রমুখ। এ সময় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংগঠনিক সম্পাদক হাবিব রহমান উপস্থিত ছিলেন।

 
আরও খবর