অমুক ভাই তমুক ভাইকে মেইনটেইন করতে হবে কেন, প্রশ্ন কাদেরের
jugantor
অমুক ভাই তমুক ভাইকে মেইনটেইন করতে হবে কেন, প্রশ্ন কাদেরের

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১:১১:১৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমার খারাপ লাগে ছাত্রলীগের কর্মীরা যখন ফোন দেয়, মেসেজ করে। আমি বলি ছাত্রলীগ করলে ভালোভাবে করবে।

মঙ্গলবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, তারা খুব বড় গলায় বলে আমি অমুক ভাইকে মেইনটেইন করি। আমি তমুক ভাইকে মেইনটেইন করি। ভাইকে মেইনটেইন করতে হবে কেন? এটা কোন কথা? এটা তো ছাত্রলীগে জীবনেও দেখিনি।

ভাইকে মেইনটেইন করতে হবে কেন, এ প্রশ্ন রেখে কাদের বলেন, মেইনটেইন করতে হবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে। মেইনটেইন করবে শেখ হাসিনার সততা, সাহসকে। মেইনটেইন করবে সজীব ওয়াজেদ জয়ের ডিজিটাল বাংলাদেশকে। ডিসিপ্লিন মেইনটেইন করতে হবে।

আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলন উদ্বোধন করেন।

এর আগে গত ২ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের কাউন্সিলে দাওয়াত করে দীর্ঘ সময় বসিয়ে রাখার প্রসঙ্গ টেনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, নেতাদের বসিয়ে রেখে... তাহলে দাওয়াত দিচ্ছ কেন? একেকজন লম্বা বক্তৃতা! সময় বুঝে বলতে হবে। মেইনটেইন-টেনটেইন যেন আর শুনতে না পাই। ছাত্রলীগকে সম্পূর্ণ সুনামের ধারায় ফিরিয়ে আনতে হবে।

উল্লেখ্য, গেল ২ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের যৌথ সম্মেলনে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। আয়োজকদের ওপর ‘ক্ষুব্ধ হয়ে’ বক্তব্য না দিয়েই মঞ্চ ছাড়েন ছাত্রলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের চার কেন্দ্রীয় নেতা। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক।

অমুক ভাই তমুক ভাইকে মেইনটেইন করতে হবে কেন, প্রশ্ন কাদেরের

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০৯:১১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, আমার খারাপ লাগে ছাত্রলীগের কর্মীরা যখন ফোন দেয়, মেসেজ করে। আমি বলি ছাত্রলীগ করলে ভালোভাবে করবে। 

মঙ্গলবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, তারা খুব বড় গলায় বলে আমি অমুক ভাইকে মেইনটেইন করি। আমি তমুক ভাইকে মেইনটেইন করি। ভাইকে মেইনটেইন করতে হবে কেন? এটা কোন কথা? এটা তো ছাত্রলীগে জীবনেও দেখিনি। 

ভাইকে মেইনটেইন করতে হবে কেন, এ প্রশ্ন রেখে কাদের বলেন, মেইনটেইন করতে হবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে। মেইনটেইন করবে শেখ হাসিনার সততা, সাহসকে। মেইনটেইন করবে সজীব ওয়াজেদ জয়ের ডিজিটাল বাংলাদেশকে। ডিসিপ্লিন মেইনটেইন করতে হবে।

আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্মেলন উদ্বোধন করেন।

এর আগে গত ২ ডিসেম্বর ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের কাউন্সিলে দাওয়াত করে দীর্ঘ সময় বসিয়ে রাখার প্রসঙ্গ টেনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, নেতাদের বসিয়ে রেখে... তাহলে দাওয়াত দিচ্ছ কেন? একেকজন লম্বা বক্তৃতা! সময় বুঝে বলতে হবে। মেইনটেইন-টেনটেইন যেন আর শুনতে না পাই। ছাত্রলীগকে সম্পূর্ণ সুনামের ধারায় ফিরিয়ে আনতে হবে।

উল্লেখ্য, গেল ২ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের যৌথ সম্মেলনে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে। আয়োজকদের ওপর ‘ক্ষুব্ধ হয়ে’ বক্তব্য না দিয়েই মঞ্চ ছাড়েন ছাত্রলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের চার কেন্দ্রীয় নেতা। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন