গোটা দেশ গোরস্থানে পরিণত হয়েছে: রিজভী
jugantor
গোটা দেশ গোরস্থানে পরিণত হয়েছে: রিজভী

  যুগান্তর রিপোর্ট  

০৩ আগস্ট ২০২০, ১৮:১৩:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

একটা অমানবিক ও নির্দয় সরকার থাকার কারণে বিচারবহির্ভূত হত্যা তীব্র আকার ধারণ করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। 
 
বগুড়া শহর বিএনপির সাবেক সভাপতি ও জেলা বিএনপির সদস্য ওমর ফারুক এবং বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহিন শওকতের স্ত্রী দিলরুবা শাহিন ক্যান্সার ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করায় তাদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সোমবার তিনি এ অভিযোগ করেন। 

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে দুই পরিবারের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন রিজভী।

রিজভী বলেন, মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই। প্রাকৃতিক মহামারী করোনার আঘাতে জীবন আরও দুর্বিষহ আকার ধারণ করছে। কারণ যারা দিনের ভোট রাতে করে, ভোট কেন্দ্রে মানুষকে আসতে দেয় না, গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নেয় তাদের পক্ষে এটাই সম্ভব। সরকার মানুষের মৃত্যু ও লাশের ওপর দিয়ে তারা রাজত্ব কায়েম করতে চায়। আজকে গোটা দেশ গোরস্থানে পরিণত হয়েছে। এই রকম অরাজক পরিস্থিতি চলতে পারে না।

চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, কোরবানির চামড়া মানুষ এতিমখানায় দেয়। এই চামড়া বিক্রি করে এতিমদের খরচ চালানো হয়। আজকে এতিমদের হক মারা হয়েছে। চামড়ার কোনো মূল্য নেই। পথেঘাটে চামড়া ফেলে দেয়া হচ্ছে। চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। এই রকম অরাজকতা নৈরাজ্যের মধ্যে দেশ চলছে। ব্যর্থ সরকারের পতন না হলে মানুষের মুক্তি মিলবে না। তাই মানুষের জানমালের নিরাপত্তা জন্য সবার উচিত ঐক্যবদ্ধভাবে এই অবৈধ সরকারের পতন ঘটানো।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, সরকারের ব্যর্থতার কারণে সুচিকিৎসা মানুষ পাচ্ছে না। সুচিকিৎসা না পাওয়ায় ফারুকের মতো তরুণ নেতা, দিলরুবার মতো নারীনেত্রী অকালে প্রাণ হারাল। আমি মনে করি চারদিকে অন্যায় অরাজক পরিস্থিতির কারণে সাধারণ মানুষসহ বিএনপির অনেক নেতাকর্মী মারা গেছেন। হাসপাতালে সিট নেই, অক্সিজেন নেই, ভেন্টিলেটর নেই। তাহলে সরকার কী দিয়ে করোনা মোকাবেলা করছে। করোনা মোকাবেলায় সরকার অত্যন্ত নির্লজ্জভাবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।

গোটা দেশ গোরস্থানে পরিণত হয়েছে: রিজভী

 যুগান্তর রিপোর্ট 
০৩ আগস্ট ২০২০, ০৬:১৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

একটা অমানবিক ও নির্দয় সরকার থাকার কারণে বিচারবহির্ভূত হত্যা তীব্র আকার ধারণ করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বগুড়া শহর বিএনপির সাবেক সভাপতি ও জেলা বিএনপির সদস্য ওমর ফারুক এবং বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শাহিন শওকতের স্ত্রী দিলরুবা শাহিন ক্যান্সার ও করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইন্তেকাল করায় তাদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সোমবার তিনি এ অভিযোগ করেন।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে দুই পরিবারের সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন রিজভী।

রিজভী বলেন, মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই। প্রাকৃতিক মহামারী করোনার আঘাতে জীবন আরও দুর্বিষহ আকার ধারণ করছে। কারণ যারা দিনের ভোট রাতে করে, ভোট কেন্দ্রে মানুষকে আসতে দেয় না, গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নেয় তাদের পক্ষে এটাই সম্ভব। সরকার মানুষের মৃত্যু ও লাশের ওপর দিয়ে তারা রাজত্ব কায়েম করতে চায়। আজকে গোটা দেশ গোরস্থানে পরিণত হয়েছে। এই রকম অরাজক পরিস্থিতি চলতে পারে না।

চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করে রিজভী বলেন, কোরবানির চামড়া মানুষ এতিমখানায় দেয়। এই চামড়া বিক্রি করে এতিমদের খরচ চালানো হয়। আজকে এতিমদের হক মারা হয়েছে। চামড়ার কোনো মূল্য নেই। পথেঘাটে চামড়া ফেলে দেয়া হচ্ছে। চামড়া শিল্পকে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। এই রকম অরাজকতা নৈরাজ্যের মধ্যে দেশ চলছে। ব্যর্থ সরকারের পতন না হলে মানুষের মুক্তি মিলবে না। তাই মানুষের জানমালের নিরাপত্তা জন্য সবার উচিত ঐক্যবদ্ধভাবে এই অবৈধ সরকারের পতন ঘটানো।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, সরকারের ব্যর্থতার কারণে সুচিকিৎসা মানুষ পাচ্ছে না। সুচিকিৎসা না পাওয়ায় ফারুকের মতো তরুণ নেতা, দিলরুবার মতো নারীনেত্রী অকালে প্রাণ হারাল। আমি মনে করি চারদিকে অন্যায় অরাজক পরিস্থিতির কারণে সাধারণ মানুষসহ বিএনপির অনেক নেতাকর্মী মারা গেছেন। হাসপাতালে সিট নেই, অক্সিজেন নেই, ভেন্টিলেটর নেই। তাহলে সরকার কী দিয়ে করোনা মোকাবেলা করছে। করোনা মোকাবেলায় সরকার অত্যন্ত নির্লজ্জভাবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে।