সিসিটিভি ফুটেজ দেখে নেতাকর্মীদের গ্রেফতারে বিএনপির ক্ষোভ
jugantor
সিসিটিভি ফুটেজ দেখে নেতাকর্মীদের গ্রেফতারে বিএনপির ক্ষোভ

  যুগান্তর রিপোর্ট  

২২ নভেম্বর ২০২০, ২০:৩২:০৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সিসিটিভি ফুটেজ দেখে নেতাকর্মীদের গ্রেফতারে বিএনপির ক্ষোভ

নির্যাতনের মাধ্যমে কয়েকজন নেতার কাছ থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জবানবন্দি আদায় এবং সিসিটিভি ফুটেজের বরাতে তাদের গ্রেফতার দেখানোর তীব্র প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানিয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটি।

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থায়ী কমিটি মনে করে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তৈরি করা মিথ্যা প্রচারণার মাধ্যমে বিএনপিকে হেয়প্রতিপন্ন করাই সরকারের মূল লক্ষ্য। এ ধরনের কর্মকাণ্ড নেতাকর্মীদের গ্রেফতার, নির্যাতন, দমন-নিপীড়ন করে তাদের মনোবল ভেঙে দেয়ার অপকৌশল ছাড়া কিছুই নয়। শনিবার জাতীয় স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভার সিদ্ধান্ত রোববার প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হয়।

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকায় কয়েকটি বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনা কেন্দ্র করে পুলিশ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনগুলোর নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার ও রিমান্ড এবং গুমের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় বৈঠকে। স্থায়ী কমিটি মনে করে, বিএনপি কোনোরকম সন্ত্রাসে বিশ্বাস করে না। এটা সরকারের অপকৌশল। নিজেদের এজেন্টদের দ্বারা এসব সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ঘটিয়ে বিএনপিকে দোষারোপ করা। যা অতীতে তারা করেছে। সভায় অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীর মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়।

এতে বলা হয়, সভা মনে করে করোনার ভ্যাকসিন সংগ্রহের বিষয়ে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদফতর এখনও পর্যন্ত কোনো স্বচ্ছ ধারণা জনগণের সামনে তুলে ধরতে পারেনি। ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও বণ্টনের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবিলম্বে যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণ করে জনগণকে অবহিত করা অত্যন্ত জরুরি। গণমাধ্যমে ভ্যাকসিন সংগ্রহের বিষয়ে সরকারি ভাষ্য অনুযায়ী যেসব তথ্য প্রকাশিত হচ্ছে তা অত্যন্ত অস্পষ্ট এবং বিভ্রান্তিমূলক। সভা মনে করে ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও বণ্টন নিয়ে কোনো রকম দুর্নীতি না করে স্বচ্ছ নজরদারি ও জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে এসে মানবিক কারণে জনগণের কাছে বিনামূল্যে প্রদান ও সহজলভ্য করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

২৭ নভেম্বর এরশাদবিরোধী আন্দোলনে নিহত ‘শহীদ মিলন দিবস’ যথাযথ মর্যাদায় পালনের সিদ্ধান্ত হয় সভায়।

সিসিটিভি ফুটেজ দেখে নেতাকর্মীদের গ্রেফতারে বিএনপির ক্ষোভ

 যুগান্তর রিপোর্ট 
২২ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৩২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
সিসিটিভি ফুটেজ দেখে নেতাকর্মীদের গ্রেফতারে বিএনপির ক্ষোভ
ফাইল ছবি

নির্যাতনের মাধ্যমে কয়েকজন নেতার কাছ থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর জবানবন্দি আদায় এবং সিসিটিভি ফুটেজের বরাতে তাদের গ্রেফতার দেখানোর তীব্র প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানিয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটি। 

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, স্থায়ী কমিটি মনে করে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে তৈরি করা মিথ্যা প্রচারণার মাধ্যমে বিএনপিকে হেয়প্রতিপন্ন করাই সরকারের মূল লক্ষ্য। এ ধরনের কর্মকাণ্ড নেতাকর্মীদের গ্রেফতার, নির্যাতন, দমন-নিপীড়ন করে তাদের মনোবল ভেঙে দেয়ার অপকৌশল ছাড়া কিছুই নয়। শনিবার জাতীয় স্থায়ী কমিটির ভার্চুয়াল সভার সিদ্ধান্ত রোববার প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হয়। 

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকায় কয়েকটি বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনা কেন্দ্র করে পুলিশ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনগুলোর নেতাদের নামে মিথ্যা মামলা, গ্রেফতার ও রিমান্ড এবং গুমের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করা হয় বৈঠকে। স্থায়ী কমিটি মনে করে, বিএনপি কোনোরকম সন্ত্রাসে বিশ্বাস করে না। এটা সরকারের অপকৌশল। নিজেদের এজেন্টদের দ্বারা এসব সন্ত্রাসী কার্যকলাপ ঘটিয়ে বিএনপিকে দোষারোপ করা। যা অতীতে তারা করেছে। সভায় অবিলম্বে গ্রেফতারকৃত নেতাকর্মীর মুক্তি ও মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়।

এতে বলা হয়, সভা মনে করে করোনার ভ্যাকসিন সংগ্রহের বিষয়ে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদফতর এখনও পর্যন্ত কোনো স্বচ্ছ ধারণা জনগণের সামনে তুলে ধরতে পারেনি। ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও বণ্টনের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অবিলম্বে যথাযথ পরিকল্পনা গ্রহণ করে জনগণকে অবহিত করা অত্যন্ত জরুরি। গণমাধ্যমে ভ্যাকসিন সংগ্রহের বিষয়ে সরকারি ভাষ্য অনুযায়ী যেসব তথ্য প্রকাশিত হচ্ছে তা অত্যন্ত অস্পষ্ট এবং বিভ্রান্তিমূলক। সভা মনে করে ভ্যাকসিন সংগ্রহ ও বণ্টন নিয়ে কোনো রকম দুর্নীতি না করে স্বচ্ছ নজরদারি ও জবাবদিহিতার আওতায় নিয়ে এসে মানবিক কারণে জনগণের কাছে বিনামূল্যে প্রদান ও সহজলভ্য করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। 

২৭ নভেম্বর এরশাদবিরোধী আন্দোলনে নিহত ‘শহীদ মিলন দিবস’ যথাযথ মর্যাদায় পালনের সিদ্ধান্ত হয় সভায়। 

 

ঘটনাপ্রবাহ : রাজধানীতে বাসে আগুন

১২ নভেম্বর, ২০২০
আরও খবর