২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাড্ডার ওসিকে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ
jugantor
২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাড্ডার ওসিকে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৫ নভেম্বর ২০২১, ২১:৪৬:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাড্ডার ওসিকে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ দলটির ৮ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

ঢাকা মেট্রোপলিটন সেশন জজ আদালতের বিচারক কেএম ইমরুল কায়েস এ আদেশ দেন।

বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২০১৫ সালের এক মামলায় এদিন ৩৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট গ্রহণের দিন ধার্য ছিল এবং রিজভীসহ বিএনপির আট নেতার আদালতে হাজিরের কথা ছিল। কিন্তু তারা হাজির হননি। পরে বিচারক ৩৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) গ্রহণ করে তাদের মধ্যে রিজভীসহ বিএনপির ৮ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

এই গ্রেফতারি পরোয়ানা বাস্তবায়নের ব্যাপারে আগামী ২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাড্ডা থানার ওসিকে প্রতিবেদন দেওয়ার আদেশ দেন বিচারক।

সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত সরকারি কৌসুলি তাপস কুমার পাল এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলাটিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসসহ দলটির ২৪ জন জামিনে আছেন। পলাতকদের মধ্যে আরও আছেন ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর এমএ কাইয়ুম।

মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়, ২০১৫ সালের ২৬ জানুয়ারি বাড্ডায় রিজভীর নেতৃত্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা হরতালের সমর্থনে মিছিল বের করেন। মিছিল থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হলে সেখানে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন। ওই ঘটনার পর পুলিশ বাড্ডা থানায় রিজভীসহ ৩২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে।

২০১৯ সালের ২৯ ডিসেম্বর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার পরিদর্শক জাহিদুর রহমান ৩৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাড্ডার ওসিকে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৫ নভেম্বর ২০২১, ০৯:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাড্ডার ওসিকে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ
ফাইল ছবি

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ দলটির ৮ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত।

ঢাকা মেট্রোপলিটন সেশন জজ আদালতের বিচারক কেএম ইমরুল কায়েস এ আদেশ দেন।

বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২০১৫ সালের এক মামলায় এদিন ৩৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট গ্রহণের দিন ধার্য ছিল এবং রিজভীসহ বিএনপির আট নেতার আদালতে হাজিরের কথা ছিল। কিন্তু তারা হাজির হননি। পরে বিচারক ৩৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) গ্রহণ করে তাদের মধ্যে রিজভীসহ বিএনপির ৮ নেতার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

এই গ্রেফতারি পরোয়ানা বাস্তবায়নের ব্যাপারে আগামী ২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাড্ডা থানার ওসিকে প্রতিবেদন দেওয়ার আদেশ দেন বিচারক।

সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত সরকারি কৌসুলি তাপস কুমার পাল এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলাটিতে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসসহ দলটির ২৪ জন জামিনে আছেন। পলাতকদের মধ্যে আরও আছেন ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর এমএ কাইয়ুম।

মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়, ২০১৫ সালের ২৬ জানুয়ারি বাড্ডায় রিজভীর নেতৃত্বে বিএনপির নেতাকর্মীরা হরতালের সমর্থনে মিছিল বের করেন। মিছিল থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হলে সেখানে বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন। ওই ঘটনার পর পুলিশ বাড্ডা থানায় রিজভীসহ ৩২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করে। 

২০১৯ সালের ২৯ ডিসেম্বর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার পরিদর্শক জাহিদুর রহমান ৩৩ জনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন