‘এতদিন বিনা কাবিনে সংসার করছেন, এখন কাবিন করা হলো’
jugantor
‘এতদিন বিনা কাবিনে সংসার করছেন, এখন কাবিন করা হলো’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২২ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:০৪:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন করতে সরকারের আইন প্রণয়নের বিষয়ে কড়া সমালোচনা করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

তিনি বলেছেন, কিছুদিন আগে নির্বাচন কমিশন আইন নিয়ে কিছু বিলাপ-প্রলাপ হলো। পরে সরকারি দলই আইনের প্রস্তাব করল। মাঝখানে আইনমন্ত্রী বললেন, আইন তো জটিল ব্যবস্থা। এত তাড়াতাড়ি করা যাবে না। এখন শুধু আইন না, ইতোপূর্বে নির্বাচন কমিশন যা যা করেছে তার সবকিছুর বৈধতাও দিয়েছে এই আইনের মাধ্যমে। কিন্তু তারা এতদিন যা করেছেন তা বেআইনি। এখন একটা আইনি প্রলেপ দেওয়া হলো। অর্থাৎ এতদিন বিনা কাবিনে সংসার করছেন, এখন কাবিন করা হলো।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় গয়েশ্বর এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা বিদেশে চলে যায়, রিজার্ভ চুরি হয়। আজ পর্যন্ত কেউ ধরা পড়ে না। এই সরকার রিজার্ভ চুরির সঙ্গে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে জড়িত, না হলে কাউকে ধরার চেষ্টা করে না কেন? কত খুনের আসামি ধরা পড়ে, সাগর-রুনির আসামি ধরা পড়ে না কেন? এই রিজার্ভ চোর, খুনিদের প্রশাসন চেনে কিন্তু ধরে না।

জেলকে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই মন্তব্য করে গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, পুরো দেশটাই যখন জেলখানা সেখানে ছোট্ট একটা কক্ষে যেতে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। পালাক্রমে এখানে অনেকেই আসবে, বের হবে।

জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি লায়ন মিয়া মো. আনোয়ারের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কেএম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

‘এতদিন বিনা কাবিনে সংসার করছেন, এখন কাবিন করা হলো’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২২ জানুয়ারি ২০২২, ০৭:০৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নির্বাচন কমিশন (ইসি) গঠন করতে সরকারের আইন প্রণয়নের বিষয়ে কড়া সমালোচনা করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

তিনি বলেছেন, কিছুদিন আগে নির্বাচন কমিশন আইন নিয়ে কিছু বিলাপ-প্রলাপ হলো। পরে সরকারি দলই আইনের প্রস্তাব করল। মাঝখানে আইনমন্ত্রী বললেন, আইন তো জটিল ব্যবস্থা। এত তাড়াতাড়ি করা যাবে না। এখন শুধু আইন না, ইতোপূর্বে নির্বাচন কমিশন যা যা করেছে তার সবকিছুর বৈধতাও দিয়েছে এই আইনের মাধ্যমে। কিন্তু তারা এতদিন যা করেছেন তা বেআইনি। এখন একটা আইনি প্রলেপ দেওয়া হলো। অর্থাৎ এতদিন বিনা কাবিনে সংসার করছেন, এখন কাবিন করা হলো।

শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় গয়েশ্বর এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের টাকা বিদেশে চলে যায়, রিজার্ভ চুরি হয়। আজ পর্যন্ত কেউ ধরা পড়ে না। এই সরকার রিজার্ভ চুরির সঙ্গে প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে জড়িত, না হলে কাউকে ধরার চেষ্টা করে না কেন? কত খুনের আসামি ধরা পড়ে, সাগর-রুনির আসামি ধরা পড়ে না কেন? এই রিজার্ভ চোর, খুনিদের প্রশাসন চেনে কিন্তু ধরে না।

জেলকে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই মন্তব্য করে গয়েশ্বর চন্দ্র বলেন, পুরো দেশটাই যখন জেলখানা সেখানে ছোট্ট একটা কক্ষে যেতে ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। পালাক্রমে এখানে অনেকেই আসবে, বের হবে।

জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি লায়ন মিয়া মো. আনোয়ারের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলনের সভাপতি কেএম রকিবুল ইসলাম রিপন প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন