রাজপথ দখলের ডাক গয়েশ্বরের
jugantor
রাজপথ দখলের ডাক গয়েশ্বরের

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১৪ মে ২০২২, ২২:২৭:৪১  |  অনলাইন সংস্করণ

দলের নেতাকর্মীদের রাজপথ দখলে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

শনিবার বগুড়ায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। কেন্দ্রীয় বিএনপির ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

গয়েশ্বর রায় বলেন, ‘এ সরকারের দুর্নীতি আর অর্থপাচারের কারণে এই দেশও শ্রীলংকার মতো অবস্থার দিকে যাচ্ছে। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটিয়ে দেশ ও জনগণকে রক্ষা করতে হবে। এটা একমাত্র পারে বিএনপির মতো দলই। শেখ হাসিনার যাওয়ার সময়, তার থাকার সময় আর নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘জিয়াউর রহমানের ডাকে দেশ যুদ্ধেও মাধ্যমে দেশ স্বাধীন হয়েছে, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলনে ৯০ এ গণতন্ত্র ফিরে পেয়েছে, এখন তারেক রহমানের নেতৃত্বে দেশ ও জনগণকে দুঃশাসনের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। শেখ হাসিনা সারা দেশে তার আত্মীয়স্বজনকে বড় বড় পদে বসিয়ে অর্থপাচার করছেন, গত ১৪ বছর লুটপাট আর জুলুমবাজি করে চলেছেন, এটা আর চলতে দেওয়া যাবে না। প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। ঘরে বসে থেকে নয়, মাঠে নেমে প্রয়োজনে রক্ত দিয়ে দেশ রক্ষা করতে হবে।’

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক রেজাউল করিম বাদশার সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় কৃষক দলের সহসভাপতি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, রাজশাহী বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক ওবায়দুল হক চন্দন, এমপি মোশারফ হোসেন।

এদিকে যশোরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগের ওপর আস্থা নেই জনগণের। তাই তারা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে ভয় পাচ্ছে।

জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএনপির খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব সাবেরুল হক সাবু।

রাজপথ দখলের ডাক গয়েশ্বরের

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১৪ মে ২০২২, ১০:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

দলের নেতাকর্মীদের রাজপথ দখলে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়।

শনিবার বগুড়ায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান। কেন্দ্রীয় বিএনপির ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

গয়েশ্বর রায় বলেন, ‘এ সরকারের দুর্নীতি আর অর্থপাচারের কারণে এই দেশও শ্রীলংকার মতো অবস্থার দিকে যাচ্ছে। তাই যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে এ সরকারের পতন ঘটিয়ে দেশ ও জনগণকে রক্ষা করতে হবে। এটা একমাত্র পারে বিএনপির মতো দলই। শেখ হাসিনার যাওয়ার সময়, তার থাকার সময় আর নয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘জিয়াউর রহমানের ডাকে দেশ যুদ্ধেও মাধ্যমে দেশ স্বাধীন হয়েছে, খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলনে ৯০ এ গণতন্ত্র ফিরে পেয়েছে, এখন তারেক রহমানের নেতৃত্বে দেশ ও জনগণকে দুঃশাসনের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। শেখ হাসিনা সারা দেশে তার আত্মীয়স্বজনকে বড় বড় পদে বসিয়ে অর্থপাচার করছেন, গত ১৪ বছর লুটপাট আর জুলুমবাজি করে চলেছেন, এটা আর চলতে দেওয়া যাবে না। প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। ঘরে বসে থেকে নয়, মাঠে নেমে প্রয়োজনে রক্ত দিয়ে দেশ রক্ষা করতে হবে।’

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক রেজাউল করিম বাদশার সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় কৃষক দলের সহসভাপতি হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু, রাজশাহী বিভাগীয় সহসাংগঠনিক সম্পাদক ওবায়দুল হক চন্দন, এমপি মোশারফ হোসেন। 

এদিকে যশোরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগের ওপর আস্থা নেই জনগণের। তাই তারা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে ভয় পাচ্ছে। 

জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন বিএনপির খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সদস্য সচিব সাবেরুল হক সাবু।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন