‘হামলাকারী সন্ত্রাসীদের’ অবিলম্বে গ্রেফতার করুন: ফখরুল
jugantor
‘হামলাকারী সন্ত্রাসীদের’ অবিলম্বে গ্রেফতার করুন: ফখরুল

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৬ মে ২০২২, ১৮:৪৭:২৯  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ওপর হামলাকারীদের ‌‘সন্ত্রাসী’ আখ্যা দিয়ে তাদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ছাত্রদলের আহত নেতাকর্মীদের দেখতে গিয়ে এ দাবি জানান তিনি।

বিএনপি মহাসচিব ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল, শমরিতা হাসপাতাল ও আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে আহত নেতাকর্মীদের দেখতে যান। এ সময় তাদের চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজ নেন।

এই হামলার নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের ওপর ভয়াবহভাবে আক্রমণ করে প্রায় শতাধিক ছাত্রকে আহত করা হয়েছে। এমনকি হাইকোর্টের ভেতরে ঢুকে খোঁজে খোঁজে বের করে মেরেছে, আহত করেছে, নারীদেরকেও তারা রেহাই দেয়নি। আহতদের মধ্যে শুধু শমরিতা হাসপাতালেই ভর্তি রয়েছে ৫০ জনের বেশি। এ ছাড়া অন্যান্য হাসপাতালেও অনেকে রয়েছে। প্রত্যেকে মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে। এদের মধ্যে দুইজন আইসিইউতে আছে, মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত আছে।

ফখরুল বলেন, ‘বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রীর কটূক্তির পরই গোটা দেশে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে। এ ঝড়কে দমন করার জন্য তারা সন্ত্রাসের আশ্রয় নিয়েছে। এটা হচ্ছে ফ্যাসিসদের চরিত্র।’

তিনি বলেন, ‘আজকে এটা নতুন নয়, আওয়ামী লীগ সন্ত্রাস করেই টিকে আছে। সন্ত্রাসীর মাধ্যমে তারা এদেশে ক্ষমতা ধরে রাখতে চায়। আমরা বিশ্বাস করি, জনগণের উত্তাল আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে এ সন্ত্রাসীদের সমাপ্তি ঘটবে। হামলার তীব্র নিন্দা ও বিচারের দাবি করছি।’

এ সময় বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে ছিলেন- ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিমউদ্দিন আলম, যুবদলের সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন, চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইয়েংর সদস্য শায়রুল কবির খান প্রমুখ।

‘হামলাকারী সন্ত্রাসীদের’ অবিলম্বে গ্রেফতার করুন: ফখরুল

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৬ মে ২০২২, ০৬:৪৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ছাত্রদল নেতাকর্মীদের ওপর হামলাকারীদের ‌‘সন্ত্রাসী’ আখ্যা দিয়ে তাদের চিহ্নিত করে অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।  

বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর বিভিন্ন হাসপাতালে ছাত্রদলের আহত নেতাকর্মীদের দেখতে গিয়ে এ দাবি জানান তিনি।  

বিএনপি মহাসচিব ইসলামী ব্যাংক হাসপাতাল, শমরিতা হাসপাতাল ও আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে আহত নেতাকর্মীদের দেখতে যান। এ সময় তাদের চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজ নেন। 

এই হামলার নিন্দা জানিয়ে তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের ওপর ভয়াবহভাবে আক্রমণ করে প্রায় শতাধিক ছাত্রকে আহত করা হয়েছে। এমনকি হাইকোর্টের ভেতরে ঢুকে খোঁজে খোঁজে বের করে মেরেছে, আহত করেছে, নারীদেরকেও তারা রেহাই দেয়নি। আহতদের মধ্যে শুধু শমরিতা হাসপাতালেই ভর্তি রয়েছে ৫০ জনের বেশি। এ ছাড়া অন্যান্য হাসপাতালেও অনেকে রয়েছে। প্রত্যেকে মারাত্মকভাবে আহত হয়েছে। এদের মধ্যে দুইজন আইসিইউতে আছে, মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত আছে। 

ফখরুল বলেন, ‘বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রীর কটূক্তির পরই গোটা দেশে প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে।  এ ঝড়কে দমন করার জন্য তারা সন্ত্রাসের আশ্রয় নিয়েছে। এটা হচ্ছে ফ্যাসিসদের চরিত্র।’

তিনি বলেন, ‘আজকে এটা নতুন নয়, আওয়ামী লীগ সন্ত্রাস করেই টিকে আছে। সন্ত্রাসীর মাধ্যমে তারা এদেশে ক্ষমতা ধরে রাখতে চায়। আমরা বিশ্বাস করি, জনগণের উত্তাল আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে এ সন্ত্রাসীদের সমাপ্তি ঘটবে। হামলার তীব্র নিন্দা ও বিচারের দাবি করছি।’

এ সময় বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে ছিলেন- ঢাকা মহানগর উত্তরের আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান, নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিমউদ্দিন আলম, যুবদলের সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, এসএম জাহাঙ্গীর হোসেন, চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইয়েংর সদস্য শায়রুল কবির খান প্রমুখ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন