আ’লীগ ভোট ডাকাতি করে আমাদের বিজয় কেড়ে নিয়েছে: জাতীয় পার্টি
jugantor
আ’লীগ ভোট ডাকাতি করে আমাদের বিজয় কেড়ে নিয়েছে: জাতীয় পার্টি

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

০২ মার্চ ২০২১, ২১:৩০:০১  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় পার্টি মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেছেন, মানুষের ভোটাধিকার রক্ষার আন্দোলনে প্রয়োজনে প্রাণ দেব, কিন্তু মাথা নত করব না। চলমান স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা জিতেছে আর হেরেছেন দেশের ভোটাররা। ভোট দিতে না পেরে তারা রাস্তায় কান্না করেছেন, এটা মেনে নেওয়া যায় না। জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি মঙ্গলবার এসব কথা বলেন।

জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, আওয়ামী লীগ দেশকে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। আমরা মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠিত করব। বর্তমান সরকারের অধীনে আর কোনো নির্বাচনে জাতীয় পার্টি অংশ নেবে কি না- তা আগামী প্রেসিডিয়াম সভায় সিদ্ধান্ত হবে বলেও জানান তিনি।

জাতীয় পার্টি মহাসচিব বলেন, নির্বাচনে ইভিএম মেশিনে শতভাগ ভোট পড়ছে, এটা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। ইভিএমকে আওয়ামী ইভিএম-এ পরিণত করা হয়েছে। আওয়ামীতন্ত্র আর গণতন্ত্র এক সঙ্গে চলতে পারে না। জাতীয় পার্টি মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার নিশ্চিত করতে রাজনীতি করছে। প্রহসনের নির্বাচন বন্ধ করতে আমাদের সংগ্রাম চলবে।

তিনি বলেন, সৈয়দপুর পৌর নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছে অনুরোধ করেছি। তারা সবাই আশ্বাস দিলেও হয়েছে পুরো উল্টো।

নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চান কি না- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে জাতীয় পার্টি মহাসচিব বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের লাজলজ্জা থাকলে তাদেরই উচিত সিদ্ধান্ত নেওয়া।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবে জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, যে আইনে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয় সে আইনের পরিবর্তন চাই আমরা।

সদ্য সমাপ্ত সৈয়দপুর পৌর নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সিদ্দিকুল আলম বলেন, মাত্র ২ ঘণ্টার ভোটে প্রায় ১০ হাজার ভোট পেয়েছি। সুষ্ঠু ভোট হলে জাতীয় পার্টি বিজয়ী হতো। কিন্তু আওয়ামী লীগ ভোট ডাকাতি করে আমাদের বিজয় কেড়ে নিয়েছে।

এ সময় আরওবক্তব্য দেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এটিইউ তাজ রহমান, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল এমপি, ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান এমপি ও এইচএম আসিফ শাহরিয়ার।

আ’লীগ ভোট ডাকাতি করে আমাদের বিজয় কেড়ে নিয়েছে: জাতীয় পার্টি

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
০২ মার্চ ২০২১, ০৯:৩০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জাতীয় পার্টি মহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেছেন, মানুষের ভোটাধিকার রক্ষার আন্দোলনে প্রয়োজনে প্রাণ দেব, কিন্তু মাথা নত করব না। চলমান স্থানীয় সরকার নির্বাচনে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা জিতেছে আর হেরেছেন দেশের ভোটাররা। ভোট দিতে না পেরে তারা রাস্তায় কান্না করেছেন, এটা মেনে নেওয়া যায় না। জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি মঙ্গলবার এসব কথা বলেন।

জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, আওয়ামী লীগ দেশকে পুলিশি রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়েছে। আমরা মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠিত করব। বর্তমান সরকারের অধীনে আর কোনো নির্বাচনে জাতীয় পার্টি অংশ নেবে কি না- তা আগামী প্রেসিডিয়াম সভায় সিদ্ধান্ত হবে বলেও জানান তিনি।

জাতীয় পার্টি মহাসচিব বলেন, নির্বাচনে ইভিএম মেশিনে শতভাগ ভোট পড়ছে, এটা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। ইভিএমকে আওয়ামী ইভিএম-এ পরিণত করা হয়েছে। আওয়ামীতন্ত্র আর গণতন্ত্র এক সঙ্গে চলতে পারে না। জাতীয় পার্টি মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার নিশ্চিত করতে রাজনীতি করছে। প্রহসনের নির্বাচন বন্ধ করতে আমাদের সংগ্রাম চলবে। 

তিনি বলেন, সৈয়দপুর পৌর নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, প্রধান নির্বাচন কমিশনার ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কাছে অনুরোধ করেছি। তারা সবাই আশ্বাস দিলেও হয়েছে পুরো উল্টো। 

নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ চান কি না- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে জাতীয় পার্টি মহাসচিব বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের লাজলজ্জা থাকলে তাদেরই উচিত সিদ্ধান্ত নেওয়া। 

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সম্পর্কিত প্রশ্নের জবাবে জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, যে আইনে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয় সে আইনের পরিবর্তন চাই আমরা। 

সদ্য সমাপ্ত সৈয়দপুর পৌর নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী সিদ্দিকুল আলম বলেন, মাত্র ২ ঘণ্টার ভোটে প্রায় ১০ হাজার ভোট পেয়েছি। সুষ্ঠু ভোট হলে জাতীয় পার্টি বিজয়ী হতো। কিন্তু আওয়ামী লীগ ভোট ডাকাতি করে আমাদের বিজয় কেড়ে নিয়েছে। 

এ সময় আরও বক্তব্য দেন- জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এটিইউ তাজ রহমান, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূইয়া, মেজর (অব.) রানা মোহাম্মদ সোহেল এমপি, ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান এমপি ও এইচএম আসিফ শাহরিয়ার।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন