৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে চায় এনপিপি
jugantor
আগামী সংসদ নির্বাচন
৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে চায় এনপিপি

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ২০:৫২:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি)। শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির অঙ্গ সংগঠন ন্যাশনাল পিপলস যুব পার্টির দ্বিতীয় কেন্দ্রীয় সম্মেলনে পার্টির চেয়ারম্যান শেখ ছালাউদ্দিন ছালু এ ঘোষণা দেন।

সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন- এনপিপির মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আবদুল হাই মন্ডল, ন্যাশনাল পিপলস যুব পার্টির আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার কেএম শামছুল আলম মিশুক, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব রহুল আমিন রাহুল প্রমুখ।

এনপিপি চেয়ারম্যান বলেন, ২০১৪ সালে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন হয়েছে। বিএনপি ও ২০ দলীয় জোট নির্বাচনে না যাওয়ার কারণে এটি হয়েছে। এর ফলে ২০ দলীয় জোট একটি নিথর জোটে পরিণত হয়েছে। আর ২০১৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়ে এবং ড. কামাল হোসেনকে নেতা মেনে যে নির্বাচন করেছে তার মধ্য দিয়ে ২০ দলীয় জোট নিস্তব্ধ ও মৃতপ্রায় একটি সংগঠনে পরিণত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এখনো বাংলার জনগণ বিএনপিকে বিরোধী দল মনে করে। জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল মনে করে না। বিরোধী দল আজ রাজনৈতিকভাবে অনেকটাই অকার্যকর। আপনারা দেখেছেন বিএনপি গত তিন দিন ধরে ধারাবাহিকভাবে মিটিং করছে, যাতে আন্দোলন করতে পারে। আমি বলতে চাই, একটা নিথর ও নিস্তব্ধ দল দ্বারা আন্দোলন সংঘটিত করা সম্ভব না। এ অবস্থায় এনপিপি আগামী ২০২৩ সালের নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে। তিনি বলেন, নির্বাচনে অংশগ্রহণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করাটাই বড় কথা। যার সাহস আছে ও মনোবল আছে, সেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারে।

আগামী সংসদ নির্বাচন

৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে চায় এনপিপি

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি)। শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের আবদুস সালাম হলে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির অঙ্গ সংগঠন ন্যাশনাল পিপলস যুব পার্টির দ্বিতীয় কেন্দ্রীয় সম্মেলনে পার্টির চেয়ারম্যান শেখ ছালাউদ্দিন ছালু এ ঘোষণা দেন। 

সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন- এনপিপির মহাসচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আবদুল হাই মন্ডল, ন্যাশনাল পিপলস যুব পার্টির আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার কেএম শামছুল আলম মিশুক, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব রহুল আমিন রাহুল প্রমুখ।

এনপিপি চেয়ারম্যান বলেন, ২০১৪ সালে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচন হয়েছে। বিএনপি ও ২০ দলীয় জোট নির্বাচনে না যাওয়ার কারণে এটি হয়েছে। এর ফলে ২০ দলীয় জোট একটি নিথর জোটে পরিণত হয়েছে। আর ২০১৮ সালের নির্বাচনে বিএনপি ঐক্যফ্রন্টে যোগ দিয়ে এবং ড. কামাল হোসেনকে নেতা মেনে যে নির্বাচন করেছে তার মধ্য দিয়ে ২০ দলীয় জোট নিস্তব্ধ ও মৃতপ্রায় একটি সংগঠনে পরিণত হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, এখনো বাংলার জনগণ বিএনপিকে বিরোধী দল মনে করে। জাতীয় পার্টিকে বিরোধী দল মনে করে না। বিরোধী দল আজ রাজনৈতিকভাবে অনেকটাই অকার্যকর। আপনারা দেখেছেন বিএনপি গত তিন দিন ধরে ধারাবাহিকভাবে মিটিং করছে, যাতে আন্দোলন করতে পারে। আমি বলতে চাই, একটা নিথর ও নিস্তব্ধ দল দ্বারা আন্দোলন সংঘটিত করা সম্ভব না। এ অবস্থায় এনপিপি আগামী ২০২৩ সালের নির্বাচনে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে। তিনি বলেন, নির্বাচনে অংশগ্রহণ ও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করাটাই বড় কথা। যার সাহস আছে ও মনোবল আছে, সেই নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন