‘আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় কর্নেল অলি’
jugantor
‘আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় কর্নেল অলি’

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

১০ জুন ২০২২, ২০:২৮:১৫  |  অনলাইন সংস্করণ

‘আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় কর্নেল অলি’

‘কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় মিথ্যাচার করছেন’ বলে মন্তব্য করেছেন এলডিপির (একাংশ) মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এলডিপির জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির এক বিশেষ বর্ধিত সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

দলটির সভাপতি আব্দুল করিম আব্বাসীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন- সিনিয়র সহসভাপতি ও সাবেক এমপি আব্দুল গণি, মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, সহসভাপতি ইব্রাহিম রৌনক, ডা. জাফর সিদ্দিক, মোড়ল আমজাদ হোসেন, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এমএ বাশার, চাষী এনামুল হক, অতিরিক্ত মহাসচিব তমিজ উদ্দিন টিটু, একেএম মহিউদ্দিন, এসএম বেলাল প্রমুখ।

শাহাদাত হোসেন সেলিম বলেন, ‘এলডিপির সভা মনে করে, গত কয়েকদিন ধরে কর্নেল (অব.) অলি আহমেদের নেতৃত্বাধীন দলের পক্ষ থেকে আমাদের পার্টির বিষয়ে যে বক্তব্য দেওয়া হয়েছে- তা অরাজনৈতিক, শিষ্টাচারবহির্ভূত এবং চরম মিথ্যাচার। কোনো বিশেষ মহলের ইঙ্গিতে তারা জাতীয়তাবাদী আদর্শের বিরুদ্ধে অব্যাহত ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে মিথ্যাচার ও অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে।’

‘অথচ সবাই জানে যে, এলডিপি ২০ দলীয় জোটের শুরু থেকেই একটি শরিক দল হিসেবে বিএনপি ও জিয়া পরিবারের প্রতি আস্থাশীল। তবে আওয়ামী লীগ সরকারের সাজানো পাতানো মামলায় দেশনেত্রী খালেদা জিয়া ও দেশনায়ক তারেক রহমানের বিরুদ্ধে তথাকথিত সাজা ঘোষণার পর থেকেই অলি আহমদ বিএনপির নেতৃত্বকে চ্যালেঞ্জ করেন। এর মাধ্যমে তিনি আওয়ামী লীগের এজেন্ডা বাস্তবায়নের ষড়যন্ত্র করছেন। নেতাকর্মী শূন্য হওয়ায় অলি আহমদ কিছুদিন ধরে আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় আমাদের দলের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন। এ ধরনের ষড়যন্ত্র ও মিথ্যাচার থেকে সব নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানাই।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, ‘এলডিপির সভা বিশ্বাস করে যে, ২০ দলীয় জোট এবং তারেক রহমানের নেতৃত্বে চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আমাদের পূর্ণ সমর্থন ও সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র এবং জনগণের মৌলিক অধিকার পুনরুদ্ধার হবে। যে কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য দলের সভাপতি আব্দুল করিম আব্বাসী ও মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিমকে সব ধরনের দায়িত্ব দেওয়া হয়। দুজনের সিদ্ধান্তই আমাদের দলের সিদ্ধান্ত বলে বিবেচিত হবে।’

‘আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় কর্নেল অলি’

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
১০ জুন ২০২২, ০৮:২৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
‘আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় কর্নেল অলি’
অলি আহমেদ ও শাহাদাত হোসেন সেলিম। ফাইল ছবি

‘কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় মিথ্যাচার করছেন’ বলে মন্তব্য করেছেন এলডিপির (একাংশ) মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম।

শুক্রবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এলডিপির জাতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির এক বিশেষ বর্ধিত সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন। 

দলটির সভাপতি আব্দুল করিম আব্বাসীর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন- সিনিয়র সহসভাপতি ও সাবেক এমপি আব্দুল গণি, মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, সহসভাপতি ইব্রাহিম রৌনক, ডা. জাফর সিদ্দিক, মোড়ল আমজাদ হোসেন, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব এমএ বাশার, চাষী এনামুল হক, অতিরিক্ত মহাসচিব তমিজ উদ্দিন টিটু, একেএম মহিউদ্দিন, এসএম বেলাল প্রমুখ।

শাহাদাত হোসেন সেলিম বলেন, ‘এলডিপির সভা মনে করে, গত কয়েকদিন ধরে কর্নেল (অব.) অলি আহমেদের নেতৃত্বাধীন দলের পক্ষ থেকে আমাদের পার্টির বিষয়ে যে বক্তব্য দেওয়া হয়েছে- তা অরাজনৈতিক, শিষ্টাচারবহির্ভূত এবং চরম মিথ্যাচার। কোনো বিশেষ মহলের ইঙ্গিতে তারা জাতীয়তাবাদী আদর্শের বিরুদ্ধে অব্যাহত ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে মিথ্যাচার ও অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে।’

‘অথচ সবাই জানে যে, এলডিপি ২০ দলীয় জোটের শুরু থেকেই একটি শরিক দল হিসেবে বিএনপি ও জিয়া পরিবারের প্রতি আস্থাশীল। তবে আওয়ামী লীগ সরকারের সাজানো পাতানো মামলায় দেশনেত্রী খালেদা জিয়া ও দেশনায়ক তারেক রহমানের বিরুদ্ধে তথাকথিত সাজা ঘোষণার পর থেকেই অলি আহমদ বিএনপির নেতৃত্বকে চ্যালেঞ্জ করেন। এর মাধ্যমে তিনি আওয়ামী লীগের এজেন্ডা বাস্তবায়নের ষড়যন্ত্র করছেন। নেতাকর্মী শূন্য হওয়ায় অলি আহমদ কিছুদিন ধরে আবারো বিএনপির কাছে ঘনিষ্ঠ হওয়ার অপচেষ্টায় আমাদের দলের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছেন। এ ধরনের ষড়যন্ত্র ও মিথ্যাচার থেকে সব নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানাই।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, ‘এলডিপির সভা বিশ্বাস করে যে, ২০ দলীয় জোট এবং তারেক রহমানের নেতৃত্বে চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আমাদের পূর্ণ সমর্থন ও সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।  অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র এবং জনগণের মৌলিক অধিকার পুনরুদ্ধার হবে। যে কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য দলের সভাপতি আব্দুল করিম আব্বাসী ও মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিমকে সব ধরনের দায়িত্ব দেওয়া হয়। দুজনের সিদ্ধান্তই আমাদের দলের সিদ্ধান্ত বলে বিবেচিত হবে।’

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন