রেল ক্রসিং নিয়ে রবের ৮ দাবি
jugantor
রেল ক্রসিং নিয়ে রবের ৮ দাবি

  যুগান্তর প্রতিবেদন  

৩১ জুলাই ২০২২, ১৮:৪১:৫৮  |  অনলাইন সংস্করণ

সারা দেশে রেল ক্রসিং অরক্ষিত রেখে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি মূলত হত্যাকাণ্ড মন্তব্য করে জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেছেন, ‘সারা বিশ্বে রেলপথ নিরাপদ হলেও বাংলাদেশে লেভেল ক্রসিং অরক্ষিত থাকায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। ফলে লেভেল ক্রসিংগুলো যেন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। অরক্ষিত রেল ক্রসিংয়ে অসংখ্য মৃত্যুতে উন্নয়নের রোল মডেল প্রতিফলন হয় না।’

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, শুধুমাত্র গত সাত মাসে রেলপথে দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে ১৭৮ জন আর আহত হয়েছে ১ হাজার ১৭০ জন। বিভিন্ন পরিসংখ্যানে জানা যায়, রেলপথে দুই হাজার ৮৫৬টি লেভেল ক্রসিং রয়েছে। এর মধ্যে অবৈধ এক হাজার ৩৬১টি। সে হিসাবে প্রায় ৪৮ শতাংশ অবৈধ। এছাড়াও বৈধ লেভেল ক্রসিংগুলোর মধ্যে ৬৩২টিতে গেটম্যান নেই। দেশে ৮২ শতাংশ রেলক্রসিং অনিরাপদ।

বিবৃতিতে আ স ম রব বলেন, ‘একটি রাষ্ট্রে অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং থাকবে আর প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় মানুষ নিহত হবে এটা সভ্য দেশে চিন্তাও করা যায় না। রেল ক্রসিংগুলোতে নিরাপদ সুরক্ষায় কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় সব হত্যাকাণ্ডের দায় সরকারকে বহন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘অরক্ষিত রেল ক্রসিংয়ে অসংখ্য প্রাণ ঝরে যাওয়ার পরও সরকার কোনো জোরাল পদক্ষেপ নেয় না বরং প্রতিটি দুর্ঘটনার পর লোক দেখানো তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু তদন্ত প্রতিবেদনের সুপারিশ বাস্তবায়নের কোনো পদক্ষেপও নেওয়া হয় না। এমনকি দুর্ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির আওতায়ও আনা হয় না। রেল কর্তৃপক্ষ রেল ক্রসিংয়ে সংঘঠিত দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির কোনো তথ্যও সংগ্রহ করে না।’

অতি দ্রুত রেল ক্রসিংয়ের ‘মরণফাঁদ’ বন্ধ করার জন্য ৮ দফা দাবি জানান জেএসডি সভাপতি।

১. বৈধ অবৈধ সব ধরনের অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং নিরাপদ করতে হবে। রেল ক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায়ে শাস্তির বিধান করতে হবে।
২. সব লেভেল ক্রসিংয়ে প্রয়োজনীয় গেটম্যান নিয়োগ করতে হবে। গেটকিপার পদ স্থায়ী করতে হবে।
৩. প্রত্যেক রেল ক্রসিংয়ে শক্তিশালী ‘গেটবার’ বা ‘পথরোধক’ স্থাপন করতে হবে। রেল ক্রসিংয়ে প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে।
৪. দুর্ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে এবং রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দায় নির্ধারণ করতে হবে। রেল ব্যবস্থাপনায় সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে।
৫. গেটম্যানদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনে কর্তৃপক্ষের নজরদারি নিশ্চিত করতে হবে।
৬. যানবাহন চালকদের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রশিক্ষণের আয়োজন করতে হবে।
৭. সড়কে প্রাণহানির দায়ে আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে।
৮. নিরাপদ সড়ক ও রেলপথ নিশ্চিত করতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

বিবৃতিতে আ স ম রব আরও বলেন, রেললাইনের অরক্ষিত লেভেল ক্রসিংয়ে ‘মরণফাঁদ’ রেখে ‘নিজ দায়িত্বে রাস্তা পার হন’- এই সতর্কবাণী উচ্চারণ করে সরকার দায় এড়ানোর কোনো সুযোগ গ্রহণ করতে পারে না। জনগণের প্রাণ নিরাপদ রাখাই সরকারের মৌলিক কর্তব্য। এ থেকে বিচ্যুত হওয়ার কোনো অবকাশ সরকারের নেই।

রেল ক্রসিং নিয়ে রবের ৮ দাবি

 যুগান্তর প্রতিবেদন 
৩১ জুলাই ২০২২, ০৬:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সারা দেশে রেল ক্রসিং অরক্ষিত রেখে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় প্রাণহানি মূলত হত্যাকাণ্ড মন্তব্য করে জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেছেন, ‘সারা বিশ্বে রেলপথ নিরাপদ হলেও বাংলাদেশে লেভেল ক্রসিং অরক্ষিত থাকায় প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনা ঘটছে। ফলে লেভেল ক্রসিংগুলো যেন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। অরক্ষিত রেল ক্রসিংয়ে অসংখ্য মৃত্যুতে উন্নয়নের রোল মডেল প্রতিফলন হয় না।’

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, শুধুমাত্র গত সাত মাসে রেলপথে দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে ১৭৮ জন আর আহত হয়েছে ১ হাজার ১৭০ জন। বিভিন্ন পরিসংখ্যানে জানা যায়, রেলপথে দুই হাজার ৮৫৬টি লেভেল ক্রসিং রয়েছে। এর মধ্যে অবৈধ এক হাজার ৩৬১টি। সে হিসাবে প্রায় ৪৮ শতাংশ অবৈধ। এছাড়াও বৈধ লেভেল ক্রসিংগুলোর মধ্যে ৬৩২টিতে গেটম্যান নেই। দেশে ৮২ শতাংশ রেলক্রসিং অনিরাপদ।

বিবৃতিতে আ স ম রব বলেন, ‘একটি রাষ্ট্রে অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং থাকবে আর প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনায় মানুষ নিহত হবে এটা সভ্য দেশে চিন্তাও করা যায় না। রেল ক্রসিংগুলোতে নিরাপদ সুরক্ষায় কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় সব হত্যাকাণ্ডের দায় সরকারকে বহন করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘অরক্ষিত রেল ক্রসিংয়ে অসংখ্য প্রাণ ঝরে যাওয়ার পরও সরকার কোনো জোরাল পদক্ষেপ নেয় না বরং প্রতিটি দুর্ঘটনার পর লোক দেখানো তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু তদন্ত প্রতিবেদনের সুপারিশ বাস্তবায়নের কোনো পদক্ষেপও নেওয়া হয় না। এমনকি দুর্ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির আওতায়ও আনা হয় না। রেল কর্তৃপক্ষ রেল ক্রসিংয়ে সংঘঠিত দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির কোনো তথ্যও সংগ্রহ করে না।’

অতি দ্রুত রেল ক্রসিংয়ের ‘মরণফাঁদ’ বন্ধ করার জন্য ৮ দফা দাবি জানান জেএসডি সভাপতি।

১. বৈধ অবৈধ সব ধরনের অরক্ষিত লেভেল ক্রসিং নিরাপদ করতে হবে। রেল ক্রসিংয়ে প্রাণহানির দায়ে শাস্তির বিধান করতে হবে।
২. সব লেভেল ক্রসিংয়ে প্রয়োজনীয় গেটম্যান নিয়োগ করতে হবে। গেটকিপার পদ স্থায়ী করতে হবে।
৩. প্রত্যেক রেল ক্রসিংয়ে শক্তিশালী ‘গেটবার’ বা ‘পথরোধক’ স্থাপন করতে হবে। রেল ক্রসিংয়ে প্রযুক্তি ব্যবহার করতে হবে।
৪. দুর্ঘটনায় দায়ীদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে এবং রেলের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দায় নির্ধারণ করতে হবে। রেল ব্যবস্থাপনায় সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে।
৫. গেটম্যানদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনে কর্তৃপক্ষের নজরদারি নিশ্চিত করতে হবে।
৬. যানবাহন চালকদের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রশিক্ষণের আয়োজন করতে হবে।
৭. সড়কে প্রাণহানির দায়ে আইনের কঠোর প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। 
৮. নিরাপদ সড়ক ও রেলপথ নিশ্চিত করতে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।  

বিবৃতিতে আ স ম রব আরও বলেন, রেললাইনের অরক্ষিত লেভেল ক্রসিংয়ে ‘মরণফাঁদ’ রেখে ‘নিজ দায়িত্বে রাস্তা পার হন’- এই সতর্কবাণী উচ্চারণ করে সরকার দায় এড়ানোর কোনো সুযোগ গ্রহণ করতে পারে না। জনগণের প্রাণ নিরাপদ রাখাই সরকারের মৌলিক কর্তব্য। এ থেকে বিচ্যুত হওয়ার কোনো অবকাশ সরকারের নেই।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন